অনেক ব্যাংকে টাকা নেই

Print

নজিরবিহীন তারল্য সংকটে ভুগছে দেশের ব্যাংক খাত। কোনো কোনো ব্যাংকের প্রয়োজন মেটানোর মতো অর্থও নেই। তবে ঋণ বিতরণে পিছিয়ে থাকায় সরকারি ব্যাংকগুলোয় কিছু নগদ অর্থ রয়েছে। কিন্তু সামগ্রিকভাবে ব্যাংকিং খাতে নগদ অর্থ রেকর্ড পরিমাণ কমে গেছে। মূলত আগ্রাসীভাবে ঋণ বিতরণ, ডলার সংকট, আমানত সংগ্রহ করতে না পারা এবং খেলাপি ঋণ বৃদ্ধির কারণে এ সংকট তৈরি হয়েছে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, চলতি বছরে মে মাসে ব্যাংকগুলোর মোট তরল সম্পদ দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৪৬ হাজার ৭৯৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে নগদ জমা সংরক্ষণ (সিআরআর) এবং বিধিবদ্ধ জমা (এসএলআর) হিসেবে ১ লাখ ৮৬ হাজার ২৪৬ কোটি টাকা জমা রাখতে বাধ্য ব্যাংকগুলো। প্রয়োজনের বাইরে ব্যাংকগুলোর নগদ অর্থ আছে মাত্র ৬০ হাজার ৫৪৯ কোটি টাকা।

এটি গত সাড়ে ৬ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কম। এর আগে ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে ব্যাংকগুলোর অতিরিক্ত তারল্য ছিল ৫৯ হাজার ৯৫৪ কোটি টাকা। এর পর ২০১৮ সালের আগ পর্যন্ত নগদ টাকার এ তহবিল কখনই লাখ টাকার নিচে নামেনি। গত ছয় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ ১ লাখ ৪০ হাজার ২৪৩ কোটি টাকা অতিরিক্ত তারল্য ছিল ২০১৪ সালের মে মাসে। তার পরের বছরের একই মাসে এটি কমে ১ লাখ ৪ হাজার ৭১৪ কোটি টাকায় নেমে আসে। ২০১৬ সালের মে মাসে অতিরিক্ত তারল্য বেড়ে হয় ১ লাখ ১৩ হাজার ৫৬৬ কোটি টাকা।

২০১৭ সালের মে মাসে আবার কমে হয় ১ লাখ ৩ হাজার ২০৪ কোটি টাকা। ব্যাংকগুলো আগ্রাসীভাবে ঋণ বিতরণ শুরু করে ২০১৭ সালের পর থেকেই। নিয়মনীতি লঙ্ঘন করে ঋণ বিতরণের অসুস্থ প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয় ব্যাংকগুলো। দেশের ভেতরে ছাড়াও দেশের বাইরে থেকে পণ্য আমদানিতে ব্যাংকগুলোর অর্থায়ন ব্যাপকহারে বাড়ে। ফলে ২০১৮ সালের মে মাসে অতিরিক্ত তারল্য ৭৯ হাজার ৬৫০ কোটি টাকায় নেমে আসে। এর পর ব্যাংকিং খাতে শুরু হয় নয়ছয় সুদ নৈরাজ্য। আমানতের বিপরীতে সুদহার ব্যাপকহারে কমিয়ে দেয় ব্যাংকগুলো। সাধারণ মানুষ বিকল্প খাত সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ বেশি করতে থাকে। এতে ব্যাংকগুলোর বিপদ আরও বাড়ে। ফলে চলতি বছরের রেকর্ড পরিমাণ কমে গেছে ব্যাংকগুলোর নগদ টাকা।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 20 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com