আরও বাড়ানো দরকার ঈদের ছুটি!

Print

 

কেউ বলছেন, বাড়ানো দরকার ঈদের ছুটি। কারো দাবি, গড়ে তোলা হোক পরিকল্পিত শপিং জোন। কর্তৃপক্ষ বাধ্য হচ্ছে সিট ছাড়াই ট্রেনের টিকেট বিক্রি করতে। আসলে এসবই বাংলাদেশের উৎসব-কেন্দ্রিক অর্থনীতির বেড়ে ওঠার চিত্র। যদিও দূরদর্শী সরকারি নীতির অভাবে মাত্র এক মাসে প্রায় দেড় লাখ কোটি নগদ টাকার অভ্যন্তরীণ লেনদেনের পুরো সুবিধা পাচ্ছে না বাংলাদেশ। এমন মন্তব্য করে উৎপাদক পর্যায়ে প্রকৃত সেবামূল্য নিশ্চিতের সঙ্গে পণ্যের বাজারে বিদেশ নির্ভরতা কমানোর আহ্বান অর্থনীতিবিদদের।

উৎসবের ধরণটাই আসলে এমন, প্রাণহানির ঝুঁকি রয়েছে, ছোট-খাটো দুর্ঘটনা যে ঘটছে না তাও নয়। তবুও বাস ট্রেনের ছাদ কিংবা লঞ্চের ডেক ভর্তি মানুষের ভিড়। শেকড়ের সন্ধানেই এত আয়োজন।

১ হাজার ৭শ ডলার মাথাপিছু আয়ের ১৭ কোটি মানুষের বাংলাদেশ। ঈদুল ফিতর উদযাপনে শুধু ঢাকাতেই নতুন পোশাক, জুতা কিংবা প্রসাধনী ক্রয়ে নগদ অর্থের লেনদেন হয় প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকা। আয়ের বড় একটি অংশ খরচ হয় অভ্যন্তরীণ যাতায়াতে। এসময়, বাজারে নগদ টাকার বাড়তি চাহিদা মেটাতে ব্যাংকগুলোকে দ্বারস্থ হতে হয়, এমনকি কেন্দ্রীয় ব্যাংককেও খুলতে হয় নতুন নোটের দুয়ার। ঈদ উপলক্ষে চাঙ্গা হয়ে ওঠা দেশের অর্থনীতিতে নগদ অর্থের সম্মিলিত প্রবাহ দাঁড়ায় দেড় লাখ কোটি টাকায়।

ঢাকা মহানগর দোকান মালিক সমিতি সভাপতি তৌফিক এহসান বলেন, ‘আমাদের মানসিকতা ও চিন্তা-চেতনা অনেক দূর পর্যন্ত এগিয়েছে। ঈদের বাজারে ১১ হাজার কোটির টাকার টার্গেট করেছিলাম গত বছরে। এইবার হয়তো ১৫ হাজার কোটি হতে পারে।

বাংলাদেশ বাস-ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি মো. ফারুক তালুকদার বলেন, ‘ঈদের ছুটিকে বাড়িয়ে তিন-চারদিন করা যায় কি-না। সেই তিন দিনের জন্য বাড়ি যেতে হবে যে মানসিক চাপ, সেটার জন্য ছুটির বৃদ্ধি করলে যাত্রীরা স্বস্তি পাবে।’

তবে, মুদ্রা সরবরাহ, লেনদেনসহ আর্থিক কর্মকাণ্ডের প্রসার অর্থনীতির জন্য ইতিবাচক হলেও, জাতীয় আয় বৃদ্ধির সুফল পুরোটা পাচ্ছে না বাংলাদেশ, এমন মত অর্থনীতিবিদদের।

রেলওয়ের মহাপরিচালক জানান, এই ঈদে প্রতিদিন প্রায় এক লাখ মানুষ বাড়িতে যেতে পারবে। আর সেটা যাত্রীদের অনুরোধের কারণে স্ট্যান্ডিং টিকেট দেয়া হয়।

অর্থনীতিবিদ ড.খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, মানুষের আয় বৃদ্ধি পাচ্ছে, চাহিদা তৈরি হচ্ছে। এটা সামগ্রিকভাবে অর্থনীতির জন্য ইতিবাচক। আর সুবিধা সব জায়গায় বিস্তৃত হলেও বণ্টনের দিক থেকে এখনও বৈষম্য রয়েছে।

চলতি বছর ঈদের সঙ্গে বিশ্বকাপ ফুটবলের উন্মাদনা যোগ হওয়ায় জমজমাট হয়ে উঠেছে দেশের ক্রীড়া-ভিত্তিক অর্থনৈতিক কার্যক্রম।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 128 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com