উচ্চশিক্ষার মান তলানিতে

Print

বিগত শতকের ৮০ ও ৯০ দশকে দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় ছিল অস্ত্রের ঝনঝনানি। স্বৈরশাসক এরশাদ বিরোধী আন্দোলন এবং ছাত্র সংগঠনগুলোর একে অন্যের বিরুদ্ধে এবং আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘাত-সংঘর্ষে ক্যাম্পাস ছিল উত্তপ্ত। একদিকে শিবিরের অস্ত্রবাজি অন্যদিকে শিবির ঠেকাও এবং ছাত্রদল বনাম ছাত্রলীগের বিরোধে অনেক প্রাণ ঝড়ে গেছে। সেশনজট ছিল শিক্ষার্র্থীদের নিয়তি। সে পরিস্থিতি এখন নেই। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস থেকে ছাত্র শিবির হারিয়ে গেছে এবং ছাত্রদল কার্যত নিস্তেজ। কিন্তু উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোয় অস্থিরতা কমেনি। এখন ছাত্র সংগঠনের আধিপত্যের বিরোধ নয়, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভিসিদের অনিয়ম, দুর্নীতির বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করছে। অধিকাংশ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় অভিন্ন চিত্র।

গত কয়েক বছরে দেশের কয়েকটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্নীতি, দলবাজি এবং ক্ষমতাসীন দলের সহযোগী ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগকে লাঠিয়াল হিসেবে ব্যবহারের অভিযোগে ছাত্র আন্দোলন হয়েছে, হচ্ছে। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে গেছে যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিরা দলদাস ভুমিকা পালন করছে; এমনকি ভিসির সন্মানিত পদ ছেড়ে যুবলীগের সভাপতি হওয়ার চেষ্টার মতো ঘটনা ঘটছে। ক্যাম্পাসে শিক্ষকদের দলবাজি শিক্ষার মানকে তলানিতে নিয়ে গেছে। যার জন্যই আন্তর্জাতিক র‌্যাংকিং এ বিশ্বের এক হাজার বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় বাংলাদেশের কোনো প্রতিষ্ঠানের নাম নেই। অথচ নেপাল, পাকিস্তান, ভারতের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর নাম ওই তালিকায় জ্বল জ্বল করছে।

দেশের ১৪ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের (ভিসি) বিরুদ্ধে তদন্ত করছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। অভিযুক্তদের মধ্যে একাধিক সাবেক ভিসিও রয়েছেন। নিয়োগ বাণিজ্য, অর্থ আত্মসাৎ ও অনিয়মের মাধ্যমে পদোন্নতি-পদায়নসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে ভিসিদের বিরুদ্ধে। ভিন্ন ভিন্ন তদন্ত কমিটি করে ভিসিদের অনিয়ম তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। ভিসিদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি তদন্তের পাশাপাশি বেশ কয়েকটি বিশ্ববিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিদের অনিয়ন দুর্নীতি ও সেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদে ছাত্রছাত্রীরা আন্দোলনে নেমেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নিয়ম না মেনে এবং দলীয় আনুগর্তকে গুরুত্ব দিয়ে নিয়োগ দেয়ার কারণে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভিসিরা বেপরোয়া হচ্ছেন, ক্যাম্পাসে বিশৃংখলার সৃষ্টি হচ্ছে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 24 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com