উচ্চশিক্ষায় অর্ধেকের বেশি আসন ফাঁকা থাকবে

Print

বুধবার প্রকাশিত হয়েছে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল। এবার পরীক্ষার্থী ছিলেন ১৩ লাখ ৩৬ হাজার ৬২৯ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছেন ৯ লাখ ৮৮ হাজার ১৭২। আর এই বিষয়টিই ভাবিয়ে তুলেছে সকলকে। কারণ উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসন রয়েছে ২২ লাখ ৬২ হাজার ৩৯৯। অর্থাৎ এবার উচ্চশিক্ষায় অর্ধেকেরও বেশি আসন ফাঁকাই থেকে যাবে।

বাংলাদেশ শিক্ষা তথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরোর (ব্যানবেইস) ২০১৭ সালের প্রতিবেদন অনুসারে সব পাবলিক ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল, প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, কারিগরিসহ উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির জন্য আসন রয়েছে ২২ লাখ ৬২ হাজার ৩৯৯। আর এবার আটটি সাধারণ বোর্ড, মাদ্রাসা এবং কারিগরি বোর্ডের অধীনে এবার পাস করেছেন নয় লাখ ৮৮ হাজার ১৭২ জন। সে হিসেবে আসন ফাঁকা থাকছে অর্ধেকেরও অনেক বেশি।

প্রতিবারের মতো এবারও বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা সর্বাধিক জিপিএ ৫ পেয়েছেন। তাই মেডিকেল কলেজ, প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়গুলোত ও স্বনামধন্য পাবরিক বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে হবে তীব্র ভর্তি প্রতিযোগিতা। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এবং মেডিকেল কলেজ মিলিয়ে আসন সংখ্যা মোট জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীর তুলনায় বেশি হলেও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভালো বিষয়গুলোতে ভর্তির প্রতিযোগিতা কমবে না।

বাংলাদেশ শিক্ষা তথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরোর (ব্যানবেইস) পরিচালক মো. ফসিউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সূত্র দিয়ে বলেন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সব মিলিয়ে আসন রয়েছে ৪৬ হাজার ৭৪৪ ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই লাখ ৬১ হাজার ৯৪২টি। ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে ৫৩ হাজার ১৪৮টি আসন। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানিয়েছে, সেখানে প্রায় সাড়ে ৬ লাখ আসন রয়েছে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পৃথক হয়ে রাজধানীর সাতটি সরকারি কলেজ বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত। এসব কলেজেও রয়েছে কয়েক লাখ আসন।

এ প্রসঙ্গে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব আন্ডারগ্র্যাজুয়েট স্টাডিজ অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. নাসির উদ্দিন জানান, তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক (সম্মান), স্নাতক (পাস) ও প্রফেশনাল কোর্সসহ প্রায় সাড়ে ৬ লাখ আসন রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষে ৪ লাখ ৯২০ হাজার, স্নাতক (পাস) কোর্সে দুই লাখ ৫০ হাজার এবং প্রফেশনাল কোর্সে ১২ হাজার আসন। তবে গত বছর স্নাতকে (সম্মান) শিক্ষার্থী ভর্তি হন ৩ লাখ ৯৬ হাজার। সব মিলিয়ে তাদের আসনে কোনো সংকট নেই। বরং কিছু আসন ফাঁকাই থাকবে।

এবছর জিপিএ ৫ পেয়েছেন ৪৭ হাজার ২৮৬ জন। এর মধ্যে শুধু বিজ্ঞান শাখায় জিপিএ ৫ পেয়েছেন ৩৩ হাজার ৭৫২ জন। অথচ মেডিকেল ও প্রকৌশল মিলিয়ে মোট আসন রয়েছে মাত্র সাড়ে ১৬ হাজার।

মেডিকেল কলেজ সূত্র বলছে, পাবলিক-প্রাইভেট মিলিয়ে মেডিকেল আসন রয়েছে সাড়ে ১০ হাজারের মতো। ফলে মেডিকেলে ভর্তির ক্ষেত্রে তীব্র প্রতিযোগিতার মুখোমুখি হতে হবে। একই অবস্থা হবে প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ক্ষেত্রেও। ইউজিসির প্রতিবেদন অনুসারে বুয়েট, ডুয়েট, কুয়েট, রুয়েট ও চুয়েট- এ পাঁচ বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট আসন রয়েছে পাঁচ হাজার ৭৭৪। এর মধ্যে বুয়েটে সর্বাধিক দুই হাজার ১২০টি আসন রয়েছে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 17 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com