এই সাকিবকে কমই দেখা যায়

Print

রীতি মেনে সাকিব আল হাসান টেস্ট শুরুর আগের দিন এসেছিলেন সংবাদ সম্মেলনে। অধিনায়ক এসেছিলেন টেস্টের দ্বিতীয় দিনে। এলেন আজও। গত পাঁচ দিনের তিন দিনই সংবাদমাধ্যমের সামনে এসেছেন সাকিব। অধিনায়ক হিসেবেই শুধু নয়, পুরো ক্যারিয়ারে বাঁহাতি অলরাউন্ডার কি এত ঘন ঘন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছেন?

একটা সময় ‘হ্যাঁ-না’ উত্তরেই শেষ হতো তাঁর বেশির ভাগ সংবাদ সম্মেলন। এখন তা নয়। চট্টগ্রামে তিনটি সংবাদ সম্মেলনেই মন খুলে কথা বলেছেন। হালকা-ভারী, প্রাসঙ্গিক-অপ্রাসঙ্গিক, তির্যক-সোজা—সব প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন সবিস্তারে। শুধু রাশভারী কণ্ঠে নয়, কখনো কখনো এতটাই রসাত্মক উত্তর দিয়েছেন, গুরুগম্ভীর সংবাদ সম্মেলন পেয়েছে ভিন্ন মাত্রা। মাঠের পারফরম্যান্স যেমনই হোক, এই টেস্টে বাংলাদেশ দলের সবচেয়ে আকর্ষণীয় দিক ছিল বোধ হয় অধিনায়কের সংবাদ সম্মেলন, যেখানে তাঁর প্রতিটি কথাই যেন সাংবাদিকদের কাছে ‘বচনামৃত’!

আজ সংবাদ সম্মেলনে এসেই তাঁকে যে প্রশ্নটা প্রথম শুনতে হয়েছে: সাকিব চাপে?

বাংলাদেশ অধিনায়কের উত্তর, ‘যে ধরনের ম্যাচ আশা করেছিল ঠিক তার উল্টো হয়েছে। চাপে তো থাকতেই হবে।’

অধিনায়ক হিসেবে চাপটা কী সব দিক থেকেই কমাতে চাচ্ছেন? ৩ উইকেট নিয়েছেন, অপরাজিত আছেন আবার সংবাদ সম্মেলনেও আসছেন! এবার সাকিবের উত্তর, ‘এটা সতীর্থদের ওপর থেকে চাপ কমানোর একটি প্রক্রিয়া, সেটা বলতে পারেন। মাঠের চাপ, ওটা তো থাকবেই। যত দিন ক্রিকেট খেলব তত দিন থাকবে। এটা মেনে নিতে হবে এবং এটা নিয়ে চিন্তা করার কিছু নেই।’

প্রশ্নের পর প্রশ্ন। হাসিমুখে সব প্রশ্নের উত্তর দিয়ে যান সাকিব। কখনো কখনো বিপজ্জনক প্রশ্ন হয়—দেশের দুর্বল ক্রিকেট কাঠামো উন্নয়নে বিসিবির ভূমিকা নিয়ে কী বলবেন? এমন প্রশ্নের উত্তর দিয়ে বিপদে পড়তে পারেন বলে সাকিব তা হেসে এড়িয়ে যান, ‘টেস্ট ম্যাচের মধ্যে বিসিবি নিয়ে প্রশ্ন, আমাকে বিপদে ফেলার রাস্তা!’

‘লাস্ট কোশ্চেন’ বলার পরও আরও চার-পাঁচটা প্রশ্ন হয়ে যায়—বিসিবির মিডিয়া ম্যানেজার সংবাদ সম্মেলনের সমাপ্তি ঘোষণা করতে উদ্যোগী হন। ঠিক এ সময়ই কেউ হাত তুলে বসেন। সাকিব মিডিয়া ম্যানেজারকে থামিয়ে দেন, ‘আরে করতে দেন প্রশ্ন, মজাই তো লাগছে!’

সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে তাঁর দা-কুমড়ো সম্পর্ক ঠিক নয়। তবে দিনের পর দিন সংবাদমাধ্যম এড়িয়ে যাওয়ার অভ্যাস তাঁর আছে। তুমুল আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেও নির্লিপ্ত থাকার আশ্চর্য ক্ষমতা আছে। তবুও এই টেস্টে সাকিব ভীষণ সরব। প্রচারের আলোয় আসা কিংবা বিশেষ কারণে সংবাদমাধ্যমের দৃষ্টি আকর্ষণ—কিছুই তাঁর দরকার নেই। চরিত্রের বাইরে গিয়ে তিনি তবুও আসছেন। মন খুলে কথা বলছেন। কেন? আফগানিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স এতটাই বিবর্ণ, সতীর্থদের দিকে ছুটে যাওয়া সমালোচনার তির ঠেকাতে তিনি ‘ঢাল’ হয়ে দাঁড়াতে চাইছেন। দলকে নিয়ে অহেতুক বিতর্ক কিংবা গুঞ্জন যেন তৈরি না হয়, সাকিব সেই চেষ্টাই করছেন। হয়তো মনে মনে ভাবছেন, পারফরম্যান্স ভালো হলে মুখে কি আর এত কিছু বলা লাগে!

কাল চট্টগ্রাম টেস্টের শেষ দিন। শেষ দিনে অধিনায়কেরই আসার রীতি। তিন দিন এলেন। কালও কি আসছেন? সাকিব হো হো করে হাসেন, ‘হ্যাঁ, হ্যাঁ, তা তো অবশ্যই!’

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 56 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com