একটা প্রভাবশালী শ্রেণী করের আওতার বাইরে : আনু মুহাম্মদ

Print
মোঃ রায়হান চৌধুরী, জাবি প্রতিনিধি :
‘বাংলাদেশের উন্নয়ন প্রকল্পে পৃথিবীর মধ্যে সর্বোচ্চ ব্যয় করা হয়। বড় বড় প্রকল্পে যারা লাভবান হচ্ছে তাদের থেকে করও নেয়া যাচ্ছে না। এসব প্রকল্পে জনকল্যাণের চেয়ে সরকারের বিজ্ঞাপনের উপর বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়।’ রোববার জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগ আয়োজিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের জাতীয় বাজেট সম্পর্কিত `Revisiting The Proposed National Budget For FY2019-20′ শীর্ষক আলোচনাসভায় অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ এসব কথা বলেন।
এসময় তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে ১৯৭২ সাল থেকে এ পর্যন্ত কোনো বছর আগের বছরের চেয়ে বাজেট কমেনি, বরং বেড়েছে। আর প্রতি বছর বাজেট বাড়লেও জনগণের সক্ষমতা বাড়ছে না। বাজেটের জন্য খাত অনুযায়ী যথাযথ তথ্য, দক্ষ জনশক্তি, কৃষক, শ্রমিক, শিক্ষার্থী সহ বিভিন্ন গোষ্ঠীর সাথে যোগাযোগ না থাকায় বাজেট ফলপ্রসু হচ্ছে না।’
তিনি আরও বলেন, ‘দেশে শিক্ষা ও প্রযুক্তির জন্য বিরাট অঙ্কের অর্থ বরাদ্দ করা হলেও শিক্ষার জন্য পর্যাপ্ত বরাদ্দ দেয়া হয়নি। বরং শিক্ষা ও গবেষণার জন্য বরাদ্দ খুবই কম।’ এসময় ঋণ খেলাপীদের দমন করে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে দক্ষ জনক্তি হিসেবে গড়েতোলার উপযুক্ত বাজেট প্রণয়নের জন্য সরকারকে অনুরোধ করেন। এছাড়া দেশের আবহাওয়া বিবেচনায় জানুয়ারি-ডিসেম্বর কিংবা বৈশাখ- চৈত্র হিসেবে জাতীয় বাজেট প্রণয়নের প্রস্তাব করেন তিনি।
আলোচনাসভায় মালা রানী দাসের সঞ্চালনায় সভাপতির বক্তব্যে অর্থনীতি বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক মো. শওকত আলী বলেন, ‘জাতীয় বাজেট পর্যালোচনা বাজেটের নানা অসঙ্গতি তুলে ধরার পাশাপাশি একটি সময়োপযোগী বাজেট প্রণয়নে সহায়তা করবে। দেশের অর্থব্যবস্থাকে সক্রিয় করে দক্ষ জনশক্তি তৈরি করে দেশকে এগিয়ে নিতে কার্যকর বাজেটের বিকল্প নেই।’
বিশেষ আলোচক হিসেবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান মো. আব্দুল মজিদ বলেন, ‘ভ্যাট-ট্যাক্সের আওতা বাড়লেও মোট রাজস্ব আয় বাড়ছে না। কর ফাঁকি দেয়ার পরিমাণ বেড়েই চলছে।’
আলোচনাসভায় সিপিডির গবেষক তৌফিকুল ইসলাম খাঁন বলেন, ‘আমাদের বাজেট বাড়লেও উন্নয়ন সব জায়গায় পৌছায়নি। দিন দিন বৈষম্য বাড়ছে। প্রবৃদ্ধি বাড়লেও বাড়ছে না কর্মসংস্থান।’
আলোচনাসভায় ২০১৯-২০ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন অর্থনীতি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মাহিন, নাজিয়া তাসনিম দিপ্তী, সুহৃদ ও ইশাদি। এসময় অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক মো. আমজাদ হোসেন, সহযোগী অধ্যাপক মো. জাহাঙ্গীর আলম, সহযোগী অধ্যাপক আয়েশা সিদ্দিকা, সহকারী অধ্যাপক এ এইচ এম শহীদ শামি, প্রভাষক নুসরাত আফরোজ তানিয়া, মালা রানী দাস, মো. আদনান আল নাহিয়ান, মো. রনি হোসাইন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 34 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com