এত কম দামে কোরবানির পশুর চামড়া বিক্রি হতাশ ব্যবসায়ীরা।

Print

খোরশেদ আলল, ঢাকা, জেলা  প্রতিনিধি
ঈদের দিন দুপুরের পর থেকেই সাভারের চামড়া শিল্প নগরীতে কাঁচা চামড়া ঢুকতে শুরু করেছে। কিন্তু সরকারের দাম বেঁধে দিয়েই দায়িত্ব শেষ, মাঠপর্যায়ে তা মানা হচ্ছে কিনা, তার কোনো তদারকি নেই সরকারের। আর এ অবস্থার সুযোগে স্মরণকালের সর্বনিম্ন দামে বিক্রি হচ্ছে কোরবানির পশুর চামড়া। রাজধানীতে নির্ধারিত দামের অর্ধেকেও চামড়া বিক্রি করতে পারছেন না মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। যার সম্পূর্ণ দায় ট্যানারি মালিকদের দিচ্ছেন তারা। ট্যানারি মালিকরা বিভিন্ন অজুহাতে  মৌসুমী ব্যবসায়ীদের  ফাঁদে ফেলেছে। 
সামান্য গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি  কারণ দেখিয়ে বলছে বৃষ্টিতে  চামড়ার ভিজে যাওয়া চামড়ার লোম   উঠে যাচ্ছে  সেজন্যই  চামড়ার দাম  একটু কম হচ্ছে । 
মৌসুমী ব্যবসায়ীরা মনে করেন এটা তাদের একটা প্রতারণার জাল বানিয়েছে। 
যদিও তা অস্বীকার করে দরপতনের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই বলে দাবি বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের।

কোরবানিকে কেন্দ্র করে সারা দেশে কয়েক লাখ মৌসুমি ব্যবসায়ী, সাময়িক সময়ের জন্য অর্থলগ্নি করেন চামড়া ক্রয়ে। কাঁচা চামড়া ব্যবসায়ীদের হাত ঘুরে যা প্রবেশ করে ট্যানারিতে। বিপুল সংখ্যক চামড়া কেনাবেচায় শৃঙ্খলা ধরে রাখতে সরকারও বেধে দেয় দাম।

সাভারের    আশুলিয়া থেকে ঈদের পরের দিন চামড়া বিক্রি করতে আসা এক ব্যক্তি জানান, আমরা সাভারের ট্যানারীতে চামড়া দিতে এসেছি। কিন্তু আসার পর তারা অজুহাত দেয় চামড়া সাইজ ছোট, এগুলো রাখা যাবে না। রাখলেও কম দাম পাবো। মুলত ট্যানারি মালিকরা দাম কম দেয়ার জন্য এমন কৌশল অবলম্বন করছেন। সরকার যেন এ বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে নজরদারী করেন।

চামড়া ব্যবসায়ী মো. আবু বকার  জানান, বিশ্ববাজারে ক্রেতা কম। এই জন্য চামড়া দাম কম, এমন দোহাই দিচ্ছেন ট্যানারী মালিকরা। তবে কি কারনে বিদেশী ক্রেতা আগের চেয়ে কম? এটা সরকার ও ট্যানারী মালিকরাই বলতে পারবেন।

কিন্তু সব পরিকল্পনা ভেস্তে যেতে বসেছে এবার। রাজধানীতে বেধে দেয়া দামের অর্ধেকে নেমেছে কাঁচা চামড়ার দাম। প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া যিক্রি হচ্ছে গড়পড়তা ১৫ থেকে ২০ টাকা দরে। গড়ে প্রতিটি ছাগলের চামড়া বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৫০ টাকায়। চামড়া ক্রয়ে ট্যানারি মালিকদের অনীহার কারণেই এ পরিস্থিতির সৃষ্টি, বলছেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা।

সাভারের একটি  ট্যানারির   সুপারভাইজার শাহ আলম বলেন, বিগত বছর গুলোতে দুই থেকে আড়াই হাজার টাকা  দর থাকলেও, ট্যানারি স্থানান্তরের পর এখন ৫ থেকে ৬ শত টাকা চামড়া কিনতেও কষ্ট হচ্ছে ট্যানারি মালিকদের। এছাড়া বিশ্ব বাজারে বিশেষ করে চায়নাতে মালের চাহিদা কম থাকায় এই সমস্যা তৈরি হয়েছে বলেও দাবী করেন তিনি।

বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো. সাখাওয়াত উল্লাহ  জানান, চামড়ার কম দামের ক্ষেত্রে আমাদের কোন হাত নেই। যারা আড়ৎদার রয়েছে তারাই ভালো বলতে পারবেন। বরং আমরা সরকারের বেধে দেয়া দাম দিয়েই আড়ৎদারে কাছ থেকে চামড়া কিনতে হবে। তিনি আরও জানান, গত ট্যানারীতে কোরবানির ঈদের মৌসুমে প্রায় ৮০ লাখ পশুর চামড়া কেনা হয়েছিলো। এবারও এমন লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। তবে  সময় মতো ও সঠিক পদ্ধতিতে লবন না দিলে নষ্ট হওয়া আশঙ্কা রয়েছে। এমন কারনে গত বছর প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ চামড়া নষ্ট হয়ে গিয়েছিলো।

এদিকে , চামড়ার বাজারে ধসের পেছনে সরকারের নজরদারির অভাবকে দায়ী করছেন অর্থনীতিবিদরা।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 57 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com