“এপ্রিল ফুল” অতঃপর মুসলিম ইতিহাস…..

Print

-এম.সোহেল রানাঃ
আজ আমি “এপ্রিল ফুল” অতঃপর মুসলিম ইতিহাস সম্পর্কে একটু ধারণা উপস্থান করবো। যেগুলো জেনে রাখা আমাদের মুসলিম জাতির জন্য অতিবো জরুরী, বলে আমি বিশ্বাস করি। আমরা না জেনে বুঝেই কোন না কোন ভুলপথে অগ্রসর হয়ে পড়ি তাই এই তথ্য বা ইতিহাস থেকে একটু হলেও ভুল ধারনাগুলো কমবে বলে আমার ধারণা।

আজ থেকে প্রায় পাঁচশত বছরের আগের কথা- ১৪৯২সালের ১লা এপ্রিল এই দিন ইসলামী ইতিহাসের পাতায় এক জঘন্যতম মর্মান্তিক কালো অধ্যায়ের নাম “এপ্রিল ফুল” (April Fool)। এদিন প্রায় ৭লক্ষাধিক মুসলিম নর-নারীর রক্তে প্লাবিত হয়েছিলো সেই স্পেন সাগর। যা আজ বিজাতি সংস্কৃতিতে পালিত হয় এপ্রিল ফুল (April Fool) নামে। স্পেনের মুসলমানদেরকে প্রলুব্ধ করে বোকা বানিয়ে হত্যার পর রাজা ফার্দিনান্দ স্বদম্ভে বলেছিলো- “হায়রে মুসলমান তোমরা এত বোকা”? আর তার স্ত্রী পর্তুগীজের রাণী ইসাবেলা সাথে সাথে বলে উঠলো- “এপ্রিল ফুল (April Fool) মুসলমানেরা এপ্রিলের বোকা”!

৮ম শতাব্দীর শুরুর দিকে মুসলিমদের দূর্দিনে সে দিন মুসলিম সেনাপতি তারেক বিন জেয়াদের নেতৃত্বে মুসলমানেরা স্পেন বিজয় করে ইসলামী শাসনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হয়ে ছিল। মুসলিম সেনাপতি তারেক বিন জেয়াদ ইউরোপিও সাগর পাড়ি দিয়ে স্পেনের জঙ্গলে পৌছে, সকল জলযান সাগরে ডুবিয়ে দিয়ে মুসলিম সেনাদের উদ্দেশ্যে ভাষনে বলেছিলেন,”হে ইসলামের বীর সেনানীরা, আমরা এসেছি স্পেনে আল্লাহর মনোনিত একমাত্র শান্তির ধর্ম ইসলামকে পৌঁছে দিয়ে বিজয় পতাকা উড়ানোর জন্য। পিছনে ফিরে দেখ, তোমাদের সকল জলযান মহাসাগরে ডুবিয়ে দেওয়া হয়েছে। তোমাদের সামনে স্পানিশ জনপদ আর পিছনে মহাসাগর।তোমাদের সামনে এখন দুটি পথ খোলা আছে,
১।. যুদ্ধ করতে করতে সামনে অগ্রসর হয়ে যদি তোমাদের মৃত্যু হয়, সেটা হবে শাহাদাতের মৃত্যু। আর
২।. যদি যুদ্ধক্ষেত্র থেকে পশ্চাদগমণ করো তাহলে ওই মহাসাগরে ডুবে তোমাদের মৃত্যু হবে, যে মৃত্যু হলে, সেটা হবে কাপুরুষের মৃত্যু। এখন তোমরাই ঠিক করে নাও কোন পথে অগ্রসর হবে”? সেদিন তারেক বিন জেয়াদের এই বক্তব্যে উজ্জ্বিবিত হয়ে মুসলিম বীর সেনারা অতি সহজেই স্পেন বিজয় করে ইসলামী শাসনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হয়।

দীর্ঘ প্রায় আটশত বছরের ইসলামী শাসনামলের শেষের দিকে এসে মুসলিম শাসকেরা ভোগবিলাসে মত্ত হয়ে ওঠে। রাজ্যের মুসলমানদের মধ্যে চরম দ্বিধাবিভক্ত দেখা দেয়।ফলে সুযোগ সন্ধানী রাজা ফার্দানিন্দ সেই সুযোগ গ্রহন করে নেয়। ফার্দানিন্দ স্পেন আক্রমনের উদ্দেশ্যে ততকালীন পর্তুগীজ রানী ইসাবেলাকে বিয়ে করে, তার সাথে যোগসাজে সে যৌথ আক্রমনের পরিকল্পনা করে। যৌথবাহিনীর আকস্মিক আক্রমনে স্পেনের মুসলমানেরা প্রতিরোধ গড়ে তোলে।তুমুল প্রতিরোধের মুখে একপর্যায়ে রাজা ফার্দানিন্দ ও রাণী ইসাবেলার যৌথবাহিনী স্পেনের সকল শষ্য ক্ষেত ও রাষ্ট্রীয় কোষাগারে আগুন দিয়ে জালিয়ে দেয় এবং স্পেন অবরোধ করে রাখে। ফলশ্রুতিতে দেখা দেয় চরম দুর্ভিক্ষ। এক পর্যায়ে মুসলমানদের মধ্যে চরম হতাশা ও অসহয়ত্ব লক্ষ করে রাজা ফার্দিনান্দ ও রাণী ইসাবেলার পক্ষ থেকে ঘোষনা করা হয় যে, আগামী ১লা এপ্রিল যে সকল মুসলমান নর-নারী মসজিদ সমুহে ও সাগরে অবস্থানরত জাহাজে আশ্রয় গ্রহন করবে তাদেরকে সাধারন ক্ষমা ঘোষনা করা হবে। অসহায় মজলুম মুসলিম নর-নারী কোন উপয়ান্তর না পেয়ে তাদের এই চক্রান্তে পা দিয়ে মসজিদ সমূহ ও জাহাজে আশ্রয় গ্রহন করে।

১৪৯২ সালের ১ লা এপ্রিল রাজা ফার্দিনান্দ ও রাণী ইসাবেলার যৌথবাহিনী সকল মসজিদ সমূহে বাহির থেকে তালা লাগিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং জাহাজে অবস্থানরত মুসলিম নর-নারীদের মহাসাগরে ডুবিয়ে হত্যা করে। স্পেনে অবস্থানরত প্রায় সাত লক্ষাধীক মুসলিম নর-নারী এদিন শাহাদাৎ বরণ করেন। আর মুসলমানদের এই করুন পরিনতি লক্ষ করে সেদিন রাজা ফার্দিনান্দ স্বদম্ভে বলে ওঠে “হায়রে মুসলমান তোমরা কতইনা বোকা”। তাঁর এই সুরে সূর মিলিয়ে রাণী ইসাবেলা বলে উঠলো- “মুসলমানেরা এপ্রিল ফুল (April Fool) বা এপ্রিলের বোকা”।

সেই থেকে এপ্রিল ফুলের (April Fool) প্রচলন। যা খ্রিষ্টানেরা পালন করে থাকে মুসলমানদের প্রতি উপহাস স্বরূপ। আর মুসলমানেরা বিজাতি সংস্কৃতিতে গা ভাসিয়ে নিজের (মুসলিম) ইতিহাসকে অবজ্ঞা করে একের পর এক এ ধরনের সংস্কৃতি নিজেদের মধ্যে প্রবেশ ঘটিয়ে ইসলামের চরম ক্ষতিসাধন করছে। অবস্থা দেখে আমার কেন যেন মনে হয়, হ্যামিলিয়নের সেই বংশী বাদক করুন সুরে তার বাঁশি বাঁজিয়ে চলছে। আর আমরা যেন ইঁদুর বাদরের ন্যায় ছুটে চলছি অশান্তির মহাসাগরে ডুবে মরবার জন্য।

দুঃখ হয় আমাদের সেই সকল মুসলিম ভাইদের জন্য যাহারা আমাদের (মুসলিম) কোন তথ্য ইতিহাস না জেনেই বিজাতিদের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে নিজেদের বোকা বানানোর কাজে লিপ্ত হন।

তথ্য- সংগ্রহ (ফেসবুক), মুসলিম ইতিহাস সমূহ।
১/০৪/২০১৮খ্রিঃ

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 179 বার)


Print
bdsaradin24.com