এবার লবণ নিয়ে হুলস্থুল বাঁধানোর চেষ্টায় অসাধু চক্র

Print

জোগান ও সরবরাহ পর্যাপ্ত থাকার পরও দেশের কয়েকটি জেলায় লবণের দাম বাড়ার গুজব ছড়ানো হয়েছে। একারণে লবণ সংগ্রহ করে রাখতে দোকানে ভিড় করছেন সাধারণ ক্রেতারা। আর এই সুযোগে অসাধু ব্যবসায়ীরা মুনাফা লোটার চেষ্টা করছে। এরইমধ্যে কয়েকটি জেলায় স্থানীয় প্রশাসন বেশকিছু ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সাজা দিয়েছে।

তবে দেশে লবণের কোনো ঘাটতি নেই বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক)। মঙ্গলবার এক বিজ্ঞপ্তিতে সরকারি সংস্থাটি জানায়, বর্তমানে চাহিদার চেয়েও অনেক বেশি লবণ মজুদ রয়েছে।

দেশের লবণ উৎপাদনকারী মিল মালিক ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বাজারে লবণের জোগান ও সরবরাহ পর্যাপ্ত রয়েছে। গুজব রটানোকারীদের শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন তারা। অন্যদিকে পেঁয়াজের দাম নিয়ে অস্থিরতা না কাটতেই আরেকটি নিত্যপণ্য লবণ নিয়ে হুলস্থুল বাঁধানোর চেষ্টাকে নজিরবিহীন বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

ঢাকা টাইমসের হরিগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, সোমবার দিবাগত রাতে হবিগঞ্জ শহর ও আশপাশ এলাকায় লবণের দাম বাড়ছে বলে গুজব ছড়িয়ে পড়ে। রাতেই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইয়াসির আরাফাত রানার নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে শহরের চৌধুরী বাজার এলাকা থেকে চার ব্যবসায়ীকে আটক করে কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত।

কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন হবিগঞ্জ শহরের রাজনগর এলাকার ব্যবসায়ী মো. আব্দুল কাদির নানু ও বাতিরপুর এলাকার কানাই দাসের ছেলে সুরঞ্জিত দাস। অর্থদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন চৌধুরী বাজার এলাকার রাজকুমার রায়ের ছেলে মিঠুন রায় ও নোয়াহাটি এলাকার রবিন্দু পালের ছেলে রঞ্জিত পাল।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইয়াসির আরাফাত রানা বলেন, ‘লবণের দাম বাড়েনি। এটা একটা গুজব। যারা এ গুজব রটাবে বা কৃত্রিম সংকট তৈরির জন্য মজুত রাখবে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি জনসাধারণকেও এ বিষয়ে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তিনি।

এদিকে নেত্রকোনার খালিয়াজুরী উপজেলায় লবণের দাম বেড়েছে বলে গুজব ছড়িয়ে পড়লে ভিড় জমে যায় বিভিন্ন দোকানে। সাধারণ ক্রেতাদের কেউ কেউ সর্বনিম্ন ৫ কেজি থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২০ কেজি পর্যন্তও লবণও কিনে নেন।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 70 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com