কলারোয়ায় জেল হত্যা দিবসে আলোচনা সভা

Print

মোঃ ইমরান সরদার, সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি: কলারোয়ায় জেল হত্যা দিবসে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।৩রা নভেম্বর সকালে পৌরসভার বিশ্বাস মার্কেটের আওয়ামীলীগের অস্থায়ী কার্যালয়ে আলোচনা ও শোক সভার আয়োজন করেছে কলারোয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ।

কলারোয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক আহবায়ক সাজেদুর রহমান খান চৌধুরী মজনুর সভাপতিত্বে আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও কলারোয়া উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম লাল্টু বলেন-আজ ৩ নভেম্বর, শোকাবহ জেলহত্যা দিবস। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর দ্বিতীয় কলঙ্কজনক অধ্যায় রচিত হয় এই দিনে। ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর মধ্যরাতে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের নির্জন প্রকোষ্ঠে জাতীয় চার নেতা বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ, মন্ত্রিসভার সদস্য ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী এবং এ এইচ এম কামারুজ্জামানকে নির্মম ও নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়।

মুক্তিযুদ্ধের শত্রুরা সেদিন দেশমাতৃকার সেরা সন্তান এই জাতীয় চার নেতাকে শুধু গুলি চালিয়েই ক্ষান্ত হয়নি, কাপুরুষের মতো গুলিবিদ্ধ দেহকে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে একাত্তরের পরাজয়ের জ্বালা মিটিয়েছিল। ইতিহাসের এই নিষ্ঠুর হত্যাযজ্ঞের ঘটনায় শুধু বাংলাদেশের মানুষই নয়, স্তম্ভিত হয়েছিল সমগ্র বিশ্ব। কারাগারে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকা অবস্থায় বর্বরোচিত এ ধরনের হত্যাকাণ্ড পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল।

সভাপতির বক্তব্যে চৌধুরী মজনু বলেন- জেল হত্যার পরদিন তৎকালীন উপ কারা মহাপরিদর্শক (ডিআইজি প্রিজন) কাজী আবদুল আউয়াল লালবাগ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। তবে দীর্ঘ ২১ বছর এই বিচারের প্রক্রিয়াকে ধামাচাপা দিয়ে রাখা হয়। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে মামলাটি পুনরুজ্জীবিত করার প্রক্রিয়া শুরু করে। মামলায় ১৯৯৮ সালের ১৫ অক্টোবর ২৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। ২০০৪ সালের ২০ অক্টোবর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ মতিউর রহমান মামলার রায় দেন।জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার হত্যাকাণ্ড ছিল একই ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতা। বঙ্গবন্ধুকে হতার পর খন্দকার মোশতাক আহমেদের নেতৃত্বে ষড়যন্ত্রকারীরা জাতীয় চার নেতাকে তাদের সরকারে যোগদানের প্রস্তাব দেয়।

আমরা কলারোয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে ৩রা নভেম্বর জেল হত্যা দিবসে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার সৈয়দ নজরুল ইসলাম তাজউদ্দীন আহমদ এম মনসুর আলী এ এইচ এম কামারুজ্জামানের নির্মম ভাবে হত্যা করার বিচার চাই।

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন কলারোয়া উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহানাজ নাজনীন খুকু, কলারোয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসম্পাদক শেখ জাকির হোসেন, সাংগাঠনিক সম্পাদক রবিউল আলম মল্লিক রবি, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আজিজুল ইসলাম, সাবেক চেয়ারম্যান ভুট্টো লাল গাইন, কলারোয়া প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক শেখ মোসলেম উদ্দিন,পৌর কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম, ছাত্র নেতা শিমুল,রাসেল,সাগর,আবু সাঈদ, আজিজুল, ফাহিম, রিপন, সম্রাট, ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম সহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী।সমগ্র অনুষ্ঠানটি সন্চালনা করেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান স ম মোরশেদ আলী ভিপি।অনুষ্ঠানে শেষে জাতীয় ৪ নেতার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা ও তাদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানানো হয়।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 64 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com