জাবিতে ইবি খেলোয়াড়দের অস্ত্র ঠেকিয়ে হত্যার হুমকি : খেলা স্থগিত

Print

ইবি প্রতিনিধি
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) হ্যান্ডবল দলের খেলোয়াড়দের মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে হত্যার হুমকি দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। শিক্ষার্থী পরিচয়ে তারা এ হুমকি দিয়েছে বলে জানিয়েছে ভুক্তভোগীরা। তবে তাদের পরিচয় শনাক্ত করতে পারেনি ভুক্তভোগী খেলোয়াড়রা।

রোববার বেলা সাড়ে তিনটার দিকে বঙ্গবন্ধু চ্যাম্প আন্তঃবিশবিদ্যালয় স্পোর্টসের হ্যান্ডবল প্রতিযোগিতায় জাবি ও ইবির মধ্যকার সেমিফাইনাল ম্যাচের পূর্বে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঠে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার ফলে খেলা বন্ধ করে মাঠ ত্যাগ করেছে ইবি টিম। ভুক্তভোগী খেলোয়াড়দের মাধ্যমে এসব তথ্য জানা গেছে।

ইবি দলের খেলোয়াড়রা জানায়, রোববার (৭ এপ্রিল) বিকাল ৪টায় স্বাগতিক জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের হ্যান্ডবলের সেমিফাইনাল মাচ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। ফলে ইবি দলের খেলোয়াড়রা বেলা তিনটার দিকে মাঠে ওয়ার্মআপ করতে নামে। এসময় বেলা সাড়ে তিনটার দিকে দশ-বারজনের একটি দল এসে খেলোয়াড়দের হুমকি-ধমকি দেয় এবং খেলায় অংশ না নিয়ে জাবিকে ‘বাই’ দিতে বলে চলে যায়। ঘটনার দশ মিনিট পর পুনরায় তারা মাঠে আসে এবং খেলোয়াড়দের অকথ্য ভাষায় গালাগাল শুরু করে। একপর্যায়ে পিস্তল বের করে দলীয় ক্যাপ্টেনসহ দুজন খেলোয়াড়ের মাথায় ধরে। এসময় তারা বলতে থাকে ‘খেলা ছাইড়া না দিলে মাইরা ফালামু’। এতে ভয় পেয়ে ইবি দলের খেলোয়াড়রা মাঠ থেকে দ্রুত রেস্ট হাইজে ফিরে যায় এবং মালামাল নিয়ে ক্যাম্পাস ত্যাগ করতে গেলে পুনরায় তাদের ধাওয়া করে ওই ক্যাডাররা।

খেলোয়াড়রা দাবি করেন, অস্ত্রধারীরা ১৪ জনের টিমের মধ্যে বেছে বেছে অধিনায়কসহ জাতীয় দলের দুই খেলোয়াড়ের মাথায় অস্ত্র ঠেকায়। এটি পরিকল্পিত না হলে সম্ভব নয়। কেউ তাদের চিনিয়ে দিয়েছে বলেই এমনটি ঘটেছে বলে দাবি করেছে তারা।

একটি সূত্র জানায়, বঙ্গবন্ধু স্পোর্টস চ্যাম্পের হ্যান্ডবল প্রতিযোগিতার ফাইনাল ম্যাচটি প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এদিকে আজকের সেমিফাইনাল ম্যাচটি যে দল জিতবে তারা ফাইনালে যাবে। ফলে সম্মানজনক এই ম্যাচটিকে ঘিরে এটি পরিকল্পিতও হতে পারে বলে দাবি তাদের।

এদিকে ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে ইবি দলের ম্যানেজার অধ্যাপক জাকারিয়া রহমান বলেন, আমি প্রথম ম্যাচে দলের সাথে ছিলাম। তবে সিন্ডিকেট সভায় অংশগ্রহনের জন্য ক্যাম্পাসে ফিরে আসি। বিষয়টি আমি টেলিফোনে শুনেছি। আমরা ইতোমধ্যে মৌখিক নিন্দা জানিয়েছি। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে লিখিত অভিযোগ জানানোর প্রক্রিয়া চলছে।

বিষয়টি নিয়ে মুঠোফোনে জানতে চাইলে ইবি দলের সাথে অবস্থানরত দলীয় কোচ শাহ আলম কচি বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরিক শিক্ষা বিভাগের উপ-পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান বাবলার সাথে কথা বলিয়ে দেন। তিনি বলেন, ‘আমরা ঘটনার সময় একটু পাশে ছিলাম। খবর পেয়ে মাঠে আসি এবং কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে খেলা ছেড়ে চলে আসি।’

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর (ভারপ্রাপ্ত) আ স ম ফিরোজ উল হাসান বলেন, তারা খেলা না করেই মাঠ ছেড়ে চলে গেছে। তবুও আমরা উদারতা দেখিয়ে বলেছি তারা যখন আমাদের সাথে খেলতে চায় আমরা খেলব। আমাদের কাছে কোন প্রকার অভিযোগ আসেনি। আর এখন যে অভিযোগ করা হচ্ছে সে বিষয়ে কোন প্রমাণ নাই।

এবিষয়ে বঙ্গবন্ধু চ্যাম্প আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় প্রতিযোগিতা ২০১৯ এর প্রকল্প পরিচালক মামুন অস্ত্রের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, খেলোয়াড়রা নিরাপদে আছে। খেলাটি আমরা স্থগিত করেছি। পরবর্তিতে নিরপেক্ষ ভেন্যুতে ম্যাচটি আয়োজন করার প্রক্রিয়া চলছে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 75 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com