ড্রাগন ফল- আশ্চর্য এক অচেনা ফল

Print

ড্রাগন ফল- আশ্চর্য এক অচেনা ফল

ঢাকায় ড্রাগন ফলের ছড়াছড়ি লক্ষ্য করছি ইদানীং । দাম ও কামে কম যায় না লাল টকটকে এই আশ্চর্য আকৃতি ও প্রকৃতির ফলটি। কেজি চার থেকে পাঁচশ টাকা। কী আছে এই বিচিত্র ফলে? শুনুন বলি।
শ্রেষ্ঠ ফলের মধ্যে ড্রাগন ফল একটি। শরীরের জন্য বিশেষ উপকারী এই ফল। খুব কম ক্যালরিযুক্ত এই ফলে রয়েছে অসংখ্য উপাদান যা শরীরকে নানা ভয়ংকর রোগ থেকে রক্ষা করে। প্রথমত ড্রাগন ফলে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন সি, ভিটামিন ই, বিটা ক্যারটিন, লাইকোপিন, বিটালেইন যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসাবে সুপরিচিত। অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের কাজ হলো শরীরে উৎপন্ন ভয়ংকর কালপ্রিট ফ্রি ্যাডিকেল নিষ্কৃয় বা ধ্বংস করা। এই ভয়ংকর বস্তুটি শরীরে ক্যান্সার, হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের মতো মারণঘাতী রোগ সৃষ্টি করে। ২২৭ গ্রাম ড্রাগন ফলে রয়েছে ৭ গ্রাম ফাইবার বা আঁশ। ফাইবার অত্যাবশকীয় খাদ্য উপাদান। ফাইবার খাবার হজম, হ্রদরোগ ও টাইপ২ ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। শরীরে আঁশের পরিমাণ কমে গেলে নানা বিপর্যয়ের সৃষ্টি হয়। তার মধ্যে কোষ্ঠকাঠিন্য অন্যতম। খাবারের মাধ্যমে পর্যাপ্ত আঁশ খেলে কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বহুলাংশে কমে যায়। ড্রাগন ফলে রয়েছে প্রচুর প্রিবায়োটিক ও প্রোবায়োটিক। আমাদের অন্ত্রে প্রায় ১০০ ট্রিলিয়ন জীবণু রয়েছে যার মধ্যে ৪০০ রকম ব্যাক্টেরিয়া বিদ্যমান। আঁশ প্রোবায়োটিকের(শরীরের জন্য উপকারী জীবাণু) বংশবৃদ্ধি ও ভারসাম্যে সহায়তা করে। প্রিবায়োটিক হলো প্রোবায়োটিকের খাবার। এই উপকারী ফলে আরও রয়েছে পর্যাপ্ত আয়রন বা লৌহ এবং ম্যাগনেসিয়াম। শরীরে হিমোগ্লোবিনের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো আয়রন। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি যে পৃথিবীর এক-তৃতীয়াংশ মানুষ আয়রন ঘাটতিতে ভোগে। হিমোগ্লোবিন শরীরে অক্সিজেন সরবরাহের একমাত্র অবলম্বন। আর ম্যাগনেসিয়াম? শরীরে ৬০০ প্রকার রাসায়নিক বিক্রিয়ার জন্য দরকার হয় ম্যাগনেসিয়ামের। ম্যাগনেসিয়ামের অভাব হলে শরীরে নানা প্রকার মেটাবলিক ডিজঅর্ডার সৃষ্টি হয়। শেষ কথা হলো- এই ফলে ফ্যাট নেই, প্রোটিন আছে। তাই সম্ভব হলে বাজারের অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ও ওষুধ না খেয়ে নিয়মিত ড্রাগন ফল খান।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 57 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com