ঢাবির আইন বিভাগে বেআইনি কারবার

Print

নিয়ম অনুযায়ী আট বছরের মধ্যে অনার্স-মাস্টার্স শেষ করার কথা থাকলেও সাত বছরেও অনার্সের গণ্ডি পার হতে পারেননি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) এজিএস ও ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন। রাজনৈতিক প্রভাবকে কাজে লাগিয়ে একের পর এক বিশেষ সুবিধা নিয়েও সাত বছরেও আটকে ছিলেন তৃতীয় বর্ষেই। তবে তৃতীয় বর্ষের প্রকাশিত ফলাফলেও একাধিক বিষয়ে অকৃতকার্য হয়েছেন সাদ্দাম। তা সত্ত্বেও নজিরবিহীন পদোন্নতি পেয়ে চতুর্থ বর্ষের প্রথম পর্বের পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন তিনি। যা বিভাগ তথা বিশ^বিদ্যালয়ের নজিরবিহীন বলে জানা গেছে। অন্যদিকে পর্যাপ্ত ক্লাস উপস্থিতি না থাকলেও বিশেষ ব্যবস্থাপনায় এ পরীক্ষায় অংশ নেন তিনি। অথচ ক্লাস উপস্থিতি শর্তের কারণে পরীক্ষা দিতে না পারারও অসংখ্য নজির আছে বিভাগটিতে। ফলে বিভাগের পক্ষপাতদুষ্ট এ সিদ্ধান্তে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা যায়, গত ২৭ মে আইন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের সমাপনী পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়। তাতে দেখা যায়, ১২৪ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেন। এর মধ্যে ১২১ জন পরীক্ষায় পাস করেন। পাসের হার ৯৭ দশমিক ৫৮ শতাংশ। অনুত্তীর্ণ তিনজনের একজন হলেন সাদ্দাম হোসেন।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 19 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com