দুধে অ্যান্টিবায়োটিক ও ডিটারজেন্ট থাকার ব্যাখ্যা দিলেন তুষার

Print

বাজার থেকে সংগ্রহ করা দুধের নমুনায় অ্যান্টিবায়োটিক ও ডিটারজেন্ট ও ফরমালিনের উপস্থিতি পেয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) গবেষকরা। এ ছাড়া বিভিন্ন নামীদামি ব্র্যান্ডের ঘি, ফলের জুস, মরিচ ও হলুদের গুঁড়া, পাম অয়েল, সরিষার তেল ও সয়াবিন তেলের নমুনার বেশির ভাগই মানহীন।

মঙ্গলবার সকালে ঢাবির ফার্মেসি অনুষদের লেকচার থিয়েটার ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই ফল প্রকাশ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য দেন ঢাবি ক্লিনিক্যাল ফার্মেসি ও ফার্মাকোলজি বিভাগের অধ্যাপক আ. ব. ম. ফারুক।

বুধবার ফেসবুকে এর ব্যাখ্যা দিয়েছেন চিকিৎসক ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব আব্দুন নূর তুষার।

ফেসবুকে তিনি লেখে, ‘পাস্তুরিত তরল দুধে ক্ষতিকর জীবাণু থাকে না, কিন্তু অ্যান্টিবায়োটিক পাওয়া যেতে পারে।

এই নিয়ে বেশ কিছু দেশে গবেষণা হয়েছে। সেসব দেশেও এটা পাওয়া গেছে।

প্রাণী চিকিৎসকরা প্রাণীর চিকিৎসা করতে প্রয়োজনে অ্যান্টিবায়োটিক দেন। এটা বন্ধ করতে চাইলে এটাও মানতে হবে যে প্রচুর গরু অসুখে মরবে।

যেটা করা যেতে পারে সেটা হলো, অ্যান্টিবায়োটিক চলাকালে দুধ বেচা বা সংগ্রহ করে মিল্ক ভিটা বা প্রাণকে সরবরাহ করা যাবে না।

ডিটারজেন্ট দিয়ে খামারি তার দুধের পাত্র ধোয়। সাধারণত সেখানে সে প্রচুর পানি ব্যবহার করে না কারণ তাকে নলকূপ চেপে পানি তুলতে হয়। তারা সাবান মিশ্রিত একটা চৌবাচ্চায় পাত্র ডোবায় ও তারপর একবার ধুয়ে নেয়।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 53 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com