নারীর শ্লীলতাহানি : মূল সমস্যাটা কোথায়?

Print

একটা দেশের শিক্ষাব্যবস্থাই নির্ণয় ক’রে দেয় রাষ্ট্রের অধিবাসীদের মনন, দৃষ্টিভঙ্গী, জীবনভাবনা, জীবনাচরণ… সব কিছু। ধর্মের নির্যাস থেকে যে শিক্ষাব্যবস্থা তৈরি সেই শিক্ষাব্যবস্থাই সৃষ্টি করেছে নারীর প্রতি পুরুষের এই অসভ্য দৃষ্টিভঙ্গী। এই শিক্ষাব্যবস্থাই পুরুষকে শিখিয়েছে যে, নারী তাঁর জীবনের শুধুই একটি প্রয়োজনীয় উপকরণ মাত্র। কোনো ধর্মই নারীকে ব্যক্তি হিসেবে, পুরুষের সমকক্ষ— সমাজের একজন সদস্য হিসেবে গণ্য করে নি। যে ধর্ম সৃষ্টির অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য হলো নারীকে দাবিয়ে রাখা, অথচ ভীষণ পরিতাপের বিষয় হলো, এই নারীরাই সেই ধর্ম পালনে সবচে বেশি উৎসাহী।

 

ধর্ম-প্রধান সমাজে, রাষ্ট্রে ও শিক্ষাব্যবস্থায় বেড়ে ওঠা যে ছেলে, সে তাঁর ধর্মের কাছ থেকে শিখেছে যে, নারী হলো শস্য ক্ষেত্র- তাকে কর্ষণ করা পুরুষের কাজ। যে ছেলে তাঁর ধর্মের কাছ থেকে শিখেছে যে, পুত্রার্থে ক্রিয়তেঃ ভার্যা অর্থাৎ পুত্র সন্তান জন্ম দেয়াই স্ত্রীর কাজ। যে ছেলে তাঁর ধর্মের কাছ থেকে শিখেছে যে, নারী হলো পুরুষের ভোগ্য বস্তু। যে ছেলে তাঁর ধর্মের কাছ থেকে শিখেছে যে, যুদ্ধে প্রতিপক্ষের নারী হলো গণিমতের মাল এবং তাকে ধর্ষণ করা বৈধ। যে ছেলে জানে যে, তার ধর্ম প্রবর্তক যুদ্ধবন্দী নারীকে তার পিতা ও ভ্রাতা যে দিন যুদ্ধে নিহত সেই রাতেই জোরপূর্বক বিছানায় নিয়েছেন। যে ছেলে তাঁর ধর্মের কাছ থেকে শিখেছে যে, নারী হলো পুরুষের অধঃস্তন।

যার ধর্মে পুরুষেরা মহাসমারোহে দ্রৌপদীর বস্ত্র হরণ করে, সীতার অগ্নি পরীক্ষা নেয়। যে ছেলে তাঁর ধর্মের কাছ থেকে শিখেছে যে, কাজের মেয়ে বা গৃহপরিচারিকার সাথে যৌন সংগম বৈধ কারণ তাঁর ধর্মের প্রবর্তক এ কাজ করে ধরা পড়েছিলেন। যে ছেলে তাঁর পিতাকে দেখেছে বাড়ীর কাজের মেয়ের সাথে যৌন আচরণ করতে, তার মায়ের সাথে কৃতদাসীর মতো আচরণ করতে­— সেই ছেলের ধর্ষকামী হওয়াটাই স্বাভাবিক।

যে দেশে আটক নারীকে পুলিশ সদস্যরা পালাক্রমে ধর্ষণ করে। যে দেশে পুলিশ সদস্যরা মিছিলে নারীর বুকে হাত দেয়। যে ধর্মীয় শিক্ষা কিশোর-তরুণদের নারীর প্রতি ভোগ-লিপ্সু করে তোলে এবং সেই ধর্মশিক্ষা বিস্তারে প্রতি বছর ক্রমবর্ধমানহারে রাষ্ট্র অর্থ বরাদ্দ করে চলেছে— সেই ধর্মের অনুসারী ছেলে, সেই পিতার সন্তান, সেই দেশের তরুণ নারীকে দেখলে তাঁকে উত্যক্ত করবে, বিবস্ত্র করবে, ধর্ষণ করবে-তারপর অপরাধ ঢাকার জন্য মেরেও ফেলবে- এ হচ্ছে ধর্ম ভিত্তিক সমাজের, রাষ্ট্রের ও শিক্ষাব্যবস্থার অনিবার্য পরিণতি আর সেই সমাজে জন্ম নেয়া হতভাগ্য নারীর অবধারিত নিয়তি।

নারীর প্রতি পুরুষের এ রকম দৃষ্টিভঙ্গীর ও নির্যাতনমূলক আচরণের কারণ হলো ৯৯ ভাগের চেয়েও বেশি পুরুষ আসলে নারীকে বোঝেই না। নারীকে বোঝার জন্য যে শারীরবিজ্ঞানের ও মনঃস্তত্ত্বের শিক্ষা দরকার তা আমাদের শিখাব্যবস্থায় সম্পূর্ণ অনুপস্থিত।

নারী যদি মুক্তি চায়, তাঁকে বিদ্রোহ করতে হবে। বিদ্রোহ করতে হবে পুরুষবাদের বিরুদ্ধে, পিতৃতন্ত্রের বিরুদ্ধে, ধর্মের বিরুদ্ধে। নামতে হবে ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষাব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্য দূর্বার আন্দোলনে। তাঁকে, তাঁর সন্তানকে গড়ে তুলতে হবে পূর্বধারণা থেকে মুক্ত হয়ে, নারীকে ও দূর্বল দরিদ্র শ্রেণিকে শোষণের জন্য ধূর্ত স্বার্থপর পুরুষের তৈরি ধর্মশিক্ষা থেকে সহস্র যোজন দূরে রেখে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 123 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com