নিত্যপণ্যের দাম চড়া, বিক্রেতারা বলছেন, আড়তদারদের কারসাজি

Print

গত কদিনে ঢাকায় কোনো কোনো পণ্যের দাম প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। সবচেয়ে বেশি বেড়েছে সবজির দাম। ৫০ টাকার কমে এক কেজি কোনো সবজি পাওয়া যায় না। এ ছাড়া মাছ ও ডিমের দামও বেড়েছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, কয়েক দিনের ভারি বৃষ্টি ও বেশ কয়েকটি জেলায় বন্যার কারণে রাজধানীতে পণ্যের সরবরাহ কম। এদিকে পেঁয়াজের দাম কিছুটা নিম্নমুখী হলেও ঈদের আগেই ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে মশলার বাজার।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে পাইকারীতে প্রতি কেজি এলাচ বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৬শ থেকে ২ হাজার টাকায়, জিরা প্রতি কেজি ৩৪০ থেকে ৪শ ১০ টাকায়, লবঙ্গ ১ হাজার ৫০ টাকায়, আর দারুচিনি বিক্রি হচ্ছে ২শ ৯০ টাকায়। পেঁয়াজ প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫২ টাকা কেজি দরে যা আগের সপ্তাহের চেয়ে কিছুটা বেশি। এলাচ আর জিরার দাম কিছুটা বাড়লেও অন্যান্য মসলার দাম তেমন বাড়েনি বলে জানান বিক্রেতারা। এছাড়া মসলার সরবরাহও স্বাভাবিক রয়েছে।

সব্জির বাজার চড়া। মতিঝিলের এক সবজি বিক্রেতা বলেন, কয়েক দিনের ভারি বৃষ্টির কারণে এ সমস্যা তৈরি হয়েছে। এ ছাড়া মানিকগঞ্জসহ ঢাকার আশেপাশের এলাকায় বন্যায় সবজির ক্ষেত ডুবে গেছে। এসব কারণে দাম বেড়েছে।

রাজধানীর বাজারগুলোতে পাকা টমেটো ১৩০-১৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। ১৫ দিন আগে এর দাম ছিল ৬০-৮০ টাকা। আর এক সপ্তাহ আগে দাম ছিল ৮০-১০০ টাকা। অস্বাভাবিকভাবে দাম বেড়েছে কাঁচা মরিচের। মতিঝিলে প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ মানভেদে ১৮০ থেকে ২১০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। ১৫ দিন আগে এর দাম ছিল ১০০-১২০ টাকা। এ হিসাবে পণ্যটির দাম প্রায় দ্বিগুণ বেড়েছে।

প্রতি কেজি গাজর ৮০-১০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। গত সপ্তাহে ৭০-৮০ টাকায় বিক্রি হয়। গত সপ্তাহে ৫০-৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হওয়া করলা বুধবার ৭০-৮০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। ঝিঙ্গে ও ঢেঁড়স ৫০-৬০ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে। গত সপ্তাহে ৪০-৫০ টাকায় বিক্রি হয়। পটোল ৪৫-৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। গত সপ্তাহে ২০-৩০ টাকায় বিক্রি হয়। গত সপ্তাহে ৪০-৫০ টাকার বেগুন বুধবার ৬০-৭০ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে। রাজধানীর নয়াবাজারের সবজি বিক্রেতা মো. আল-আমিন বলেন, বন্যার কারণে রাজধানীতে সবজির সরবরাহ কম। পাইকারি বাজারে দাম বাড়তি। এ কারণে খুচরায়ও দাম বেশি।

চলতি মাসের শুরুতে রাজধানীর খুচরা বাজারে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ২৫-৩০ টাকায় বিক্রি হয়। কিন্তু দু’দিন পর এক লাফে দাম কেজিতে ২৫ টাকা বেড়ে ৫০-৫৫ টাকা হয়ে যায়। তবে বর্তমানে পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমেছে। বুধবার রাজধানীর বাজারে দেশি পেঁয়াজ ৪০-৪৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। আর একটু নিম্নমানের দেশি পেঁয়াজ ৩৮ টাকা কেজি বিক্রি করতে দেখা গেছে। তবে এক মাস আগের তুলনায় এ দাম এখনও চড়া। অন্যদিকে দেশি রসুন মানভেদে ১৪০-১৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহে ১২০-১৩০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 49 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com