নোবিপ্রবিতে জুনিয়র কর্তৃক সিনিয়র লাঞ্ছিতের অভিযোগ

Print
নোবিপ্রবি প্রতিনিধি :
নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (নোবিপ্রবি) ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের (১৩ তম ব্যাচ) জুনিয়র শিক্ষার্থীর দ্বারা বিশ্ববিদ্যালয় ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের (৯ম ব্যাচের) সিনিয়র এক শিক্ষার্থী লাঞ্ছিত হয়েছে । আজ মঙ্গলবার ৫ নভেম্বর দুপুরে প্রক্টর বরাবর লাঞ্ছিতের অভিযোগ করে ওই শিক্ষার্থী।
অভিযুক্ত মোঃ মিরাজ মাহতাব বিশ্ববিদ্যালয় ১৩ তম ব্যাচের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী। অভিযোগকারী আসাদুজ্জামান নূর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯ম ব্যাচের ফিশারীজ & মেরিন সায়েন্স বিভাগের শিক্ষার্থী।
ভুক্তভুগী ওই শিক্ষার্থী তার অভিযোগে বলেন , একাডেমিক ভবন ১ থেকে মটর সাইকেল যোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের মালেক উকিল হলে যাওয়ার পথে রাস্তায় অভিযুক্ত ওই শিক্ষার্থীর সাথে সংঘর্ষের উপক্রম হয়। তখন গতি কম থাকায় গাড়ী থেমে যায় এবং ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী তাকে একপাশ দিয়ে হাঁটতে বললে সে উল্টা তুই সম্বোধন করে হুমকি-ধামকি দিতে থাকে।
ভুক্তভোগীর ভাষ্যমতে অন্য এক জুনিয়রের কাছে সে সিনিয়র জেনেও পরে দেখে নেয়ার হুমকি দেয় তাকে। একপর্যায়ে প্রত্যুত্তর না দিয়ে স্থান ত্যাগ করে আসাদ নামের ওই শিক্ষার্থী। পরক্ষনেই কাজ সেরে ফিরে আসার পথে হলের সামনে মিরাজ নামের জুনিয়র ওই শিক্ষার্থীর নেতৃত্বে ৭-৮ জনের গ্রুপ আসাদ নামের সিনিয়র ওই শিক্ষার্থীকে ফিল্মি কায়দায় ঘিরে ফেলে।
এরপর মোটর সাইকেল থামিয়ে তাকে চড় থাপ্পড় মেরে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করতে থাকে। এবং সবাই মিলে পরবর্তীতে  আবার দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়। পরবর্তীতে প্রক্টর অফিসে গিয়ে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী আসাদ উজ জামান নূর একটি লিখিত অভিযোগ করে।
ভুক্তভোগী আসাদ বলেন,আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে এধরনের ঘটনা নতুন নয়। আমি চাই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এই বিষয়গুলো যেন সুন্দরভাবে সমাধান করে যাতে করে পরবর্তীতে কেউ এ ধরনের কাজ করার সাহস না পায় ।
ভুক্তভোগী আসাদ ফিশারিজ এন্ড মেরিন সায়েন্স (ফিমস) বিভাগের ৯ম আবর্তনের শিক্ষার্থী। ফিমস বিভাগের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর সরকার দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, আসাদ আমার প্রিয় একজন ছাত্র। তার অনেক জুনিয়র হয়েও ছেলেটা এভাবে তাকে হেনস্থা করল যা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের জন্য হুমকি স্বরূপ। এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে বিচার করা হোক যাতে পরবর্তীতে কোন ছেলে এরকম করার সাহস না পায়।
এ ঘটনায় অভিযুক্ত মিরাজ বলেন, আমরা তাকে লাঞ্ছিত করি নাই, উল্টা তিনি আমাদের কে লাঞ্ছিত করেছেন। প্রথম দফায় তিনি মোটরসাইকেল নিয়ে প্রায় আমাদের গায়ের উপর চলে আসেন এবং  দ্বিতীয় দফায় তিনি আবার বাইক নিয়ে দ্রুত গতিতে আমাদের দিকে তেড়ে আসেন এবং আমাদেরকে তুই তুকারি করে হেনস্থা করেন ।
এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় সহকারী প্রক্টর ইমরুল কায়েস বলেন, আমরা ভুক্তভোগীর লিখিত অভিযোগ পেয়েছি এবং অভিযুক্তকে সনাক্ত করেছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ী আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নিব।
Sent from OPPO Mail
[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 210 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com