নোবেল এবং আমার শঙ্কা!

Print

 

আগেই মনে হয়েছিল, জি বাংলা নিজেদের ব্যবসায়িক দিক চিন্তা করে সারেগামাপায় বাংলাদেশি ছেলেমেয়েদের সুযোগ দিয়ে ভুল করতে যাচ্ছে।

আমার মনে হওয়াটা কতখানি যে সত্য ছিল, যত দিন যাচ্ছে, বাংলাদেশের দর্শক শ্রোতাদের প্রতিক্রিয়া দেখে বুঝতে পারছি! এমনকি আমার স্ট্যাটাসেই বয়স্ক বুঝদার সজ্জন বন্ধুদের কমেন্ট পড়েই আহত বোধ করছি।

নোবেল বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছে তা সত্য, তার চেয়ে বড় সত্য নোবেল একজন প্রতিভাবান সঙ্গীতশিল্পী। শিল্পীর কোন দেশ থাকেনা, শিল্পের কোন সীমারেখা থাকেনা, সঙ্গীতের কোন দেশীয় পরিচয় থাকেনা।

নোবেল বাংলাদেশে জনপ্রিয়তা পাওয়ার আগে নিজের গায়কী দিয়ে পশ্চিমবাংলায় পরিচিতি এবং জনপ্রিয়তা পেয়ে গেছে। সারেগামাপায় গীত নোবেলের গান এখন বাজে বিভিন্ন ধারাবাহিকে।এটা যে কত বিশাল প্রাপ্তি একজনের প্রতিভা বিকাশের ক্ষেত্রে!

আজকাল খুব টেনসড থাকি নোবেলের কথা ভেবে। দুই একটা এপিসোডে নোবেল ফুল মার্কস পায়নি। তাতেই ইউটিউবে অলরেডি নোবেলকে হাতিয়ার করে বাংলাদেশি ভক্তরা সারেগামাপা নিয়ে, বিচারকদের নিয়ে খোলামেলাভাবে অনাকাঙ্ক্ষিত কথা বার্তা প্রচার করছে, আমার খুব ভয় লাগছে!

বাংলাদেশি দর্শক শ্রোতাদের প্রায় ৯৫ ভাগ ভারত বিরোধী মনোভাব পোষণ করে। ভারত বিরোধিতা করার কিছু একটা ছুতো পেলেই হলো, তা ক্রিকেটই হোক আর সারেগামাপাই হোক।

যে নোবেলকে নিয়ে বাংলাদেশি ভক্তরা এখন লাফালাফি করছে, সারেগামাপায় আত্মপ্রকাশের আগে সেই নোবেলকে বাংলাদেশে কেউ চিনতো না। এমনকি রক মিউজিকে তুখোড় নোবেলকে তার আইডল আইয়ুব বাচ্চু, জেমস কেউই চিনতেন না।
ইউটিউবে বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে দেয়া নোবেলের সাক্ষাৎকারগুলো শুনলেই জানা যাবে, নোবেলকে পশ্চিমবাংলার দর্শক শ্রোতা কী প্রচন্ড ভালোবাসে।

সারেগামাপার সেরা দশের প্রত্যেকে সেরা। বিচারকগণ শুরুতেই বলেছিলেন, সেরা দশ থেকে চুলচেরা বিচার বিশ্লেষণ করে নাম্বার দেয়া হবে।

এই চুলচেরা বিশ্লেষণ পর্বে এসে ক্লাসিক্যাল সঙ্গীতে একেবারেই অভিজ্ঞতা না থাকায় নোবেল কিছুটা চাপে পড়েছে, এটা স্বাভাবিক। কিন্তু বাংলাদেশি ভক্তরা এই সত্যটা গ্রহণ করতে পারছেনা, অথবা অনুধাবনই করতে পারছেনা।

সারেগামাপার প্রতিটি কন্টেসট্যান্ট আমাদের সন্তানতুল্য, প্রত্যেকে বাঘা শিল্পী। এদের মধ্যেই প্রথম দ্বিতীয় তৃতীয় স্থান নির্ধারিত হবে, তাই বলে বাকী সাত শিল্পী তো জলে ভেসে যাবেনা!

নোবেলকে নিয়ে এতটুকুই বলি, নোবেলের জীবনের শ্রেষ্ঠ সময় এটা। এই সারেগামাপা মঞ্চ ওকে পৌঁছে দিতে পারে সাফল্যের চূড়ায়। না, সারেগামাপায় ১ম হতে পারাটাই সাফল্যের শেষ কথা নয়। নোবেল প্রতিযোগিতা চলাকালীন এসময়ের সেরা কমপোজার অনুপম রায়ের পরিচালনায় প্লে ব্যাক করেছে। মোনালি ঠাকুর অলরেডি মুম্বাই সঙ্গীত পরিচালকদের কাছে নোবেলকে পরিচয় করিয়ে দিয়েছে! নোবেলের দিগন্ত খুলে গিয়েছে, এটা ভেবেই আমি খুশি।

নোবেল যদি সারেগামাপায় ১ম ২য় ৩য় স্থান মিস করে, নোবেলকে নিয়ে বাংলাদেশি দর্শকরা ভারত বিরোধিতার যে কুৎসিত খেলাটা শুরু করবে, সেটা ভেবে ভয় করে।

জি বাংলা বাংলাদেশের ছেলেমেয়েদের জন্য বিশাল একটা সুযোগ তৈরি করে দিয়েছিল প্রতিভা বিকাশের, নাজানি আগামীতে তা বন্ধ হয়ে যায়!

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 62 বার)


Print
bdsaradin24.com