পদ্মার শাখা খলিসাডাঙ্গা নদী যেন ফসলের মাঠ

Print
পদ্মার শাখা খলিসাডাঙ্গা নদী যেন ফসলের মাঠ
জেলা প্রতিনিধি, নাটোরঃ নাব্যতা সঙ্কটে পদ্মার শাখা নদী খলিসাডাঙ্গা এখন মরা খালে পরিণত হয়েছে। বর্তমানে নদীর বুক জুড়ে ধান চাষ করছেন তীরবর্তী মানুষেরা। এক সময় যে নদী থেকে পানি নিয়ে আশেপাশের জমিতে আবাদ হতো, এখন খোদ সে নদীর বুকেই ডিজেল চালিত স্যালো মেশিন বসিয়ে পানি তুলে ধান চাষ করা হচ্ছে। নদীর বুক এখন পুরোদস্তুর ফসলের মাঠে পরিণত হয়েছে। এতে জীববৈচিত্র্য বিনষ্ট হওয়ার পাশাপাশি নদীনির্ভর পেশাজীবিরা কর্মহীন হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।
জেলার লালপুর উপজেলার পাইকপাড়ায় উৎপত্তি হওয়া পদ্মার শাখা খলিসাডাঙ্গা নদী বড়াইগ্রামের ধানাইদহ হয়ে চাটমোহরে গিয়ে চিকনাই নদীতে মিশেছে। এক সময় এ নদীতে ছোট-বড় অজস্র নৌকা চলতো, জেলেরা রাতদিন মাছ ধরে সুখে শান্তিতে জীবিকা নির্বাহ করতেন। কিন্তু ফারাক্কার প্রভাবে প্রমত্তা পদ্মা মরে যাওয়ার সাথে সাথে পানি না থাকায় এবং দীর্ঘদিনেও ড্রেজিং না করায় পলি জমে নদী ভরাট হয়ে গেছে। এতে বর্ষাকালে কিছুটা পানি থাকলেও শুকনো মৌসুম আসতে না আসতেই নদী শুকিয়ে যাচ্ছে।
শুক্রবার সরেজমিনে দেখা গেছে, দীর্ঘদিনেও ড্রেজিং না করায় নদীটি দৈর্ঘ্য-েপ্রস্থে শীর্ণ খালে পরিণত হয়েছে। নদীর অস্তিত্ত্বের স্বাক্ষী হিসাবে ৫-৬ হাত প্রস্তের একটি পানির ক্ষীণ ধারা বয়ে যাচ্ছে। নদীর শুকিয়ে যাওয়া অবশিষ্ট অংশে স্থানীয়রা ধান চাষ করেছেন। মাছ না থাকায় নদী তীরবর্তী জেলেরা বেকার হয়ে পড়েছে। কালের বিবর্তনে মাঝিরাও বাধ্য হয়েছেন বাপ-দাদার পেশা পরিবর্তনে।
কয়েন এলাকার মৎস্যজীবি আসলাম ও নীরেন চন্দ্র বলেন, ‘ছোটবেলা থেইকে বাপ-দাদার সাথে নদীত মাছ ধরিছি। কিন্তু এখন জল না থাকায় মাছ পাওয়া যাইচ্চে না। ছেলিপেলি নিয়ে চলাই দায় হয়া পড়িছে।’ নগর ইউপি চেয়ারম্যান নীলুফার ইয়াসমিন ডালু বলেন, খলিসাডাঙ্গা নদী মরে যাওয়ায় নদীতীরের হাজার হাজার মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। এলাকাবাসীর স্বার্থে দ্রুত নদীটি পুনঃখনন করা দরকার।
[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 185 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com