পুলিশ-র‌্যাবের নজর ইয়াবায়, ফেনসিডিলে সয়লাব দেশ!

Print

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে জব্দ হওয়া ফেনসিডিলদেশজুড়ে মরণ নেশা ইয়াবার ছড়াছড়ির কারণে পুলিশ ও র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সব ইউনিটের সেদিকেই নজর বেশি। কিন্তু এরই ফাঁকে রাজধানীসহ সারাদেশে নতুন করে চোরাচালান বেড়েছে ফেনসিডিলের। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সূত্র বলছে, ইয়াবার পাশাপাশি ফেনসিডিলে আসক্তির প্রবণতা বাড়ছে। আগের তুলনায় ফেনসিডিলের দামও বেড়েছে কয়েকগুণ। এই মরণ নেশায় ব্যাপকহারে আসক্ত হয়ে পড়ছেন চাকরিজীবী, তরুণ-তরুণী ও বিত্তশালী পরিবারের সদস্যরা।

জানা গেছে, রাজধানীর বিভিন্ন মাদক স্পটে এখন প্রতিটি ফেনসিডিলের বোতল বিক্রি হচ্ছে ১৪শ’ থেকে দুই হাজার টাকায়। সাধারণত বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার মানুষ, বিশেষ করে ব্যাংকার, চিকিৎসকসহ উচ্চবিত্ত তরুণরা ফেনসিডিল সেবন করছে বেশি। বছর কয়েক আগে ইয়াবার প্রতি বেশি ঝুঁকে পড়ায় ফেনসিডিলের চোরাচালান কিছুটা কমে এসেছিল। কিন্তু এই প্রবণতা নতুন করে বেড়ে যাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন খোদ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারাও।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের কর্মকর্তারা বলছেন,বাংলাদেশের অন্তত ১৯টি সীমান্তঘেষা জেলার ওপারে (ভারতে) নতুন করে ফেনসিডিলের কারখানা স্থাপন করেছে মাদক কারবারিরা। রাতের আঁধারে সীমান্ত হয়ে সেসব ফেনসিডিল আসছে ঢাকায়। নানা কৌশলে সেসব ফেনসিডিল নেওয়া হচ্ছে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায়। গত জুলাইয়ে ঢাকার পিলখানায় বিজিবি সদর দফতরে অনুষ্ঠিত ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বিএসএফ কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক বৈঠকে অন্যান্য প্রসঙ্গের সঙ্গে ফেনসিডিলের চোরাচালান বেড়ে যাওয়া প্রসঙ্গেওে আলোচনা হয়। বৈঠকে মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের পক্ষ থেকে তুলে ধরা এক প্রতিবেদনে অন্তত ১৯টি জেলার সীমান্ত দিয়ে দেশের ভেতরে ফেনসিডিল প্রবেশ করছে বলে উল্লেখ করা হয়।

মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের একজন কর্মকর্তা জানান, একসময় ফেনসিডিলই ছিল অন্যতম প্রধান মাদক। ইয়াবার সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় ফেনসিডিলের গুরুত্ব অনেকটা কমে গিয়েছিল। এছাড়া, সীমান্তের ওপারে ফেনসিডিলের যত কারখানা ছিল, ভারতীয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তা ধ্বংস করে দিয়েছিল। একারণে ফেনসিডিলের সরবরাহ কমে গিয়েছিল। কিন্তু গত কয়েক বছরে এই সরবরাহ আবারও বাড়তে শুরু করেছে। ফেনসিডিলে আসক্ত হওয়ার প্রবণতাও ফের বাড়ছে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 59 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com