প্রচলিত বিশ্বাস অনুযায়ী, চন্দ্রগ্রহণের সময় কি করা যাবে আর কি করা যাবে না?

Print

প্রচলিত বিশ্বাস অনুযায়ী, চন্দ্রগ্রহণকে নিয়ে তেমন কোন প্রচলিত বিশ্বাস নেই তবে সূর্যগ্রহনের সময় কি করা যাবে না তা নিয়ে আমাদের সমাজে কিছু কুসংস্কার বিদ্যমান আছে। যা নিছকই কুসংস্কার ছাড়া আর কিছুই নয়।

তাই চন্দ্রগ্রহণের সময় ভুলেও করবেন না এই কাজ:-

►শাস্ত্রমতে, গ্রহণের দিন সন্ধের পরে শরীরে তেল মালিশ করলে ত্বকের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

►স্বামী-স্ত্রীকে সংযম রাখতে হবে। শাস্ত্র মতে, গ্রহণের সময়ে মিলনের যে সন্তান গর্ভে আসবে, তার স্বভাব, চরিত্র ভাল হয় না।

►গ্রহণের সময়ে গর্ভবতী মহিলাদের বাইরে বেরনো উচিত নয়। কারণ, গ্রহণের সময় পরিবেশে ক্ষতিকারক তরঙ্গ সক্রিয় থাকে। এর ফলে গর্ভস্থ সন্তানের ক্ষতি হতে পারে।

►গ্রহণের আগে রান্না করা খাবার গ্রহণের পরে খাওয়া উচিত নয়। খাবার রান্না করা থাকলে গ্রহণের সময়ে তাতে তুলসি পাতা ছড়িয়ে দিন। তাহলে গ্রহণের ক্ষতিকারক প্রভাব খাবারে পড়বে না।

►সুস্থ মানুষদের সন্ধের পরে ঘুমনো উচিত নয়। এর ফলে শরীর অসুস্থ হতে পারে। গর্ভবতী, বৃদ্ধ এবং অসুস্থরা অবশ্য এই সময়ে বিশ্রাম নিতে পারেন বা শুয়ে থাকতে পারেন।

 

  • গ্রহণের সময় গর্ভবতী মায়েরা কোনও কিছু খেলে সন্তান পেটুক হয়।
  • > এ সময় কিছু কাটলে, বিশেষ করে মাছ কাটলে ঠোঁট কাটা, কান কাট বা নাক কাটা সন্তানের জন্ম হয়।
  • এ সময় গাছের ডাল ভাঙলে বা বাঁকানোর চেষ্টা করলে হাত-পা বাঁকানো (পোলিও) সন্তানের জন্ম হয়।
  • গ্রহণের সময় খেতে নেই, তৈরি করা খাবার ফেলে দিতে হয়। .

এছাড়াও আরো একটি কথা আছে, গ্রহনের সময় তার দিকে সরাসরি তাকানো উচিত নয়। এই বিষয়টি এই বিষয়টি বৈজ্ঞানিক ভাবে প্রমানিত যে আসলেই তাকানো উচিত নয়। গ্রহনের সময় সুর্যের আলো চন্দ্রের উপর পতিত হয় কিন্তু পৃথিবীর ছায়া চন্দ্রের উপর পতিত থাকে বলে চন্দ্রের উপর সুর্যের পতিত আলোর প্রতিফলিত কিরন পৃথিবীতে আসেনা ঠিকই কিন্তু সূর্যের পতিত আলোর বিকিরণ পৃথিবীতে চলে আসে। যে কারনে চন্দ্রকে আমরা লাল দেখি। আর এই সময়ে প্রচুর বিকিরন পৃথিবীতে চলে আসে। যাহা মানব দেহের জন্যে খারাপ। এজন্য খালি চোখে তাকানো ঠিক নয়। সানগ্লাস ব্যবহার করা যেতে পারে এই সময়। আমরা ছোট বেলায় এক্স-রে র শীট দিয়ে তাকাতাম। . এছাড়াও চন্দ্রগ্রহণ বা সূর্যগ্রহণের সময় কি করণীয় তা নিয়ে হাদিসে বর্ণিত হয়েছে যে, একদা সূর্যগ্রহণ হলে রাসূলুল্লাহ (সা.) ভীত হয়ে মসজিদে প্রবেশ করে দীর্ঘ সালাত আদায় করে বললেন, ‘এ হচ্ছে একটি নিদর্শন, যা আল্লাহ প্রেরণ করেন। এটা কারও মৃত্যু কিংবা জন্মের জন্য সংঘটিত হয় না; বরং এর দ্বারা আল্লাহ তাঁর বান্দাদের ভীতি প্রদর্শন করেন। তোমরা যখন এর কোনো কিছু দেখবে তখন ভীত মনে তাঁর (আল্লাহর) জিকির, দোয়া ও তার ক্ষমা প্রার্থনার দিকে দ্রুত গমন করবে’ (বোখারি ও মুসলিম)

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 903 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com