প্রাচীনকালে জন্মনিয়ন্ত্রণে ব্যবহৃত কিছু উদ্ভট নিয়ম!

Print

জন্মনিয়ন্ত্রণের জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি বর্তমানে প্রচলিত রয়েছে। ওষুধ সেবন কিংবা দীর্ঘমেয়াদি ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে এ কাজটি করা হয়। কিন্তু কেমন ছিল শত শত বছর আগের চিত্রপট? তখন কীভাবে করা হতো জন্মনিয়ন্ত্রণ?

প্রাচীন যুগে জন্মনিয়ন্ত্রণ এতটা সোজা ছিল না। এ কাজটির জন্য নারীদের অনেক কষ্ট সহ্য করতে হয়েছিল। আজব সব নিয়ম মানতে হয়েছিল এজন্য। চলুন সে সময়কার কিছু উদ্ভট নিয়ম সম্পর্কে জেনে নিই-

পারদের মিশ্রণ-

চীনে গর্ভধারণ এড়ানোর জন্য অদ্ভুত এক পদ্ধতি অবলম্বন করা হতো। আর তা হলো পারদ আর তেলের মিশ্রণ পান করা। এ পদ্ধতিতে খালি পেটে নারীদের এ মিশ্রণ খাওয়ানো হতো। তাদের মতে এভাবে অসময়ে গর্ভধারণ এড়ানো যেত। কিন্তু বর্তমানে সবাই জানেন, হাড় আর দেহের জন্য পারদ কতটা ক্ষতিকর।

চাঁদের দোষ-

গ্রিনল্যান্ডে মনে করা হতো নারীদের গর্ভবতী হওয়ার পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান চাঁদের। আর তাই গর্ভধারণ এড়াতে তারা চাঁদকেই এড়িয়ে চলত। তাকাতো না চাঁদের দিকে। এমনকি ঘুমোতে যাওয়ার আগে নিজেদের পেটে থুতু লাগিয়ে নিত যেন ঘুমের ভেতরেও চাঁদ কোনো ঝামেলা করতে না পারে।

নেকড়ের মূত্র-

মধ্যযুগে বেশ ভালোরকমের অন্ধ বিশ্বাস ছিল সবার মাঝে। তখন চিকিৎসার ধরনও উদ্ভট। সে সময় অযাচিত গর্ভধারণ রোধ করতে যৌনমিলনের পূর্বে নারীদের ঘরের বাইরে গিয়ে কোনো নেকড়ের মূত্র ত্যাগ করার স্থানের ওপর মূত্র ত্যাগ করতে হতো। কিংবা ঘুরে আসতে হতো কোনো গর্ভবতী নেকড়ের মূত্রত্যাগের স্থান থেকে।

লাইসল-

খুব বেশি আগের কথা নয়। ১৯০০ এর প্রথমদিকের কথা। তখনও আমেরিকায় জন্মনিয়ন্ত্রণ বৈধ হয়নি। সেসময় বাজারে লাইসল নামে একটি পণ্য বের করা হয়। যেটি নারী দেহের ভেতরে গিয়ে খানিকটা অংশ জ্বালিয়ে দিবে আর নিরাপদভাবে নিশ্চিত করবে জন্মনিয়ন্ত্রণ। তবে, যতই নিরাপদ বলা হোক না কেন, এটি ব্যবহারে অনেকেই আহত হন। এমনকি মৃত্যুও হয় পাঁচজনের।

অলিভ অয়েল-

প্রাচীন গ্রিসে পুরুষেরা অলিভ অয়েল আর সিডারের তেল একসঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করতেন। কারণ, মনে করা হতো এটি শুক্রাণুকে দুর্বল করে দেয়। যা নারীকে গর্ভবতী হওয়া থেকে বিরত রাখে।

মধু-

প্রাচীন মিশরে গর্ভধারণ এড়াতে ব্যবহার করা হতো মধু। তবে পুরুষ নয়, নারীরা ব্যবহার করতেন এটি। মনে করা হতো মধুর প্রলেপ থাকলে পুরুষের শুক্রাণু নারী দেহের ভেতরে প্রবেশ করতে পারবে না। ফলে কোনো সন্তানেরও জন্ম হবে না। বর্তমানে মধুর পরিবর্তে হানি ক্যাপ ব্যবহার করা হয়।

প্রাচীন এই নিয়মগুলো সম্পর্কে কি জানা ছিল আপনার?

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 108 বার)


Print
bdsaradin24.com