ফটিকছড়ির ছোট্ট নাজিফার রঙিন পথচলা

Print

নাজিফা তাজনূরের ঝুলিতে জমা হয়েছে ১৩০টির বেশি পুরস্কার! আবৃত্তি, চিত্রাঙ্কন, গান, উপস্থাপনা ও উপস্থিত বক্তৃতাসব বিষয়ে সমান দক্ষতা তার! বিস্তারিত জানাচ্ছেন আরাফাত বিন হাসান

চট্টগ্রামের ডা. খাস্তগীর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে নাজিফা এবার জেএসসি দেবে মাত্র। কিন্তু এই বয়সেই দিব্যি জায়গা করে নিয়েছে চট্টগ্রামের সাংস্কৃতিক অঙ্গন। শহরের আনাচকানাচে যেখানেই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সেখানেই অবধারিতভাবে কবিতা আবৃত্তির জন্য ডাক আসে তার।

মাত্র ছয় বছর বয়সে বাবার হাতে আবৃত্তির হাতেখড়ি হয় তার। আর তখন থেকেই একের পর এক পুরস্কার পেয়েই চলেছে। বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলা আয়োজিত জাতীয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় ২০১৩ ও ২০১৪ সালে চট্টগ্রাম মহানগরে আবৃত্তিতে প্রথম হয়। ২০১৪ সালে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন আয়োজিত দেশের গান প্রতিযোগিতায় হয় দ্বিতীয়। নাজিফা রপ্ত করেছে সাধারণ জ্ঞানও। প্রতিভার ঝলকে সেরা হও পলকে স্লোগানে মার্কস অলরাউন্ডার প্রতিযোগিতায় ২০১৪ সালে চট্টগ্রাম বিভাগ থেকে কুইজে সমাপনী পর্বের জন্য নির্বাচিত হয়। এইচএসবিসি-প্রথম আলো আয়োজিত ভাষা প্রতিযোগে টানা চারবার বিভাগীয় পর্যায়ে প্রথম ও দুইবার জাতীয় পর্যায়ে দ্বিতীয় হয়। জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৭ সালে বিভাগীয় পর্যায়ে আবৃত্তিতে প্রথম পুরস্কারটিও জমা পড়ে তার ঝুলিতে। অবশ্য নাজিফা এখন যে হারে পুরস্কার পাচ্ছে, তাতে সবগুলোর বর্ণনা দেওয়া মুশকিল। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন ও চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন আয়োজিত বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় রচনা, উপস্থিত বক্তৃতা, আবৃত্তিএই তিন বিষয়ে নাজিফার ঝুলিতে রয়েছে অর্ধশতকের বেশি পুরস্কার! পুরস্কার পেতে কেমন লাগে জিজ্ঞেস করতেই মিষ্টি হেসে নাজিফা বলল, একেবারে ছোটবেলা থেকেই প্রাইজ পাচ্ছি। কিন্তু এখনো প্রাইজ পেলে খুব ভালো লাগে। আর প্রতিটি পুরস্কারই আমার জন্য সমান আনন্দের। বাংলাদেশ শিশু একাডেমি, চট্টগ্রাম আয়োজিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে সভাপতি হিসেবে নিমন্ত্রিত হয় সে। যেমন বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার সপ্তাহ ২০১৬-এর সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান এবং বাংলাদেশ শিশু একাডেমি, চট্টগ্রাম আয়োজিত নবান্নের পিঠা উত্সব ২০১৬তে সভাপতিত্ব করে নাজিফা। এখানে বলে রাখা ভালো, বিশেষ কিছু অনুষ্ঠানে ছোটরা সভাপতিত্ব করার সুযোগ পায়।

২০১৪ সালে বাংলাদেশ বেতারে আবৃত্তি ও উপস্থাপনা শিল্পীদের তালিকায় যুক্ত করা হয় নাজিফার নাম। গত বছরের শেষের দিকে ভুটানের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে (রাজধানী থিম্পুতে) অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ-ভুটান সম্পর্ক উন্নয়নে Bangladesh-Bhutan youth leadership camp-এ বাংলাদেশ থেকে ১২ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। ওই ১২ জনের একজন ছিল নাজিফা। আর দলটির নেতৃত্ব দেন জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকারমো. ফজলে রাব্বী মিয়া। ভুটানে নাজিফাদের অন্য রকম একটি অভিজ্ঞতা হয়। দলের একজন সেখানকার একটি শপিং মল থেকে একটি শার্ট কিনতে গেলে দোকানি জানতে পারেন তারা বাংলাদেশি। তখন দোকানি লাভের কথা না ভেবে ওদের জানিয়ে দেন,ওই শার্টটি বাংলাদেশ থেকে আমদানি করা। তিনি বলেন, বাংলাদেশে অপেক্ষাকৃত কম মূল্যে শার্টটি পাওয়া যাবে। এই ঘটনা নাজিফার মনে দাগ কাটে। সেই সঙ্গে ভিন দেশের বাজারেও নিজেদের দেশের পোশাকের উজ্জ্বল উপস্থিতি দেখে তার বুকটা গর্বে ভরে ওঠে।

নাজিফা চায় বাংলাদেশকে দুর্নীতিমুক্ত করতে! তার মতে, পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদরা চাইলে দুর্নীতি বেশির ভাগই কমিয়ে আনা সম্ভব। তাই ডাক্তার কিংবা ইঞ্জিনিয়ার নয়, বরং বড় হয়ে পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ হয়ে দেশকে দুর্নীতিমুক্ত করতে ভূমিকা রাখতে চায়। অবসরে বই পড়তে ভীষণ ভালো লাগে তার। স্কুলে তো বইপোকা নামেই সবাই তাকে চেনে। তার সংগ্রহে রয়েছে এক হাজার দুই শর মতো বই। অরিগ্যামি, পুরনো মুদ্রা ও ডাকটিকিট জমানো তার শখ। সুযোগ পেলেই শখের কাজ নিয়ে মেতে ওঠে সে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 192 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com