ফরিদপুরের চারটি আসনে আলোচনায় ৬ নারী প্রার্থী

Print
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ফরিদপুরের চারটি সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগ-বিএনপি-জাতীয় পার্টির ৬ নারী প্রার্থী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এদের মধ্যে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুজন জাতীয় রাজনীতিতে বড় ভূমিকা রেখে চলেছেন। ৬ নারী প্রার্থীর মধ্যে দুজন বর্তমান সংসদ সদস্য, আরেকজন নির্বাচন করে অল্প ভোটে হেরেছেন। বাকি তিনজন জাতীয় রাজনীতিতে নবাগত। ফরিদপুরের চারটি আসনের মধ্যে কেবলমাত্র ফরিদপুর-১ আসনে এখন পর্যন্ত কোনো নারী প্রার্থীর প্রচারণা চোখে পড়েনি। তিনজন নারী প্রার্থী সবচেয়ে বেশি প্রচারণা চালাচ্ছেন ফরিদপুর-২ আসনে। তিনটি আসনেই নারী প্রার্থীরা আলোচনায় রয়েছেন। ফরিদপুর-২ আসনে বর্তমান এমপি হিসেবে আছেন সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী। বর্তমানে শারীরিক অসুস্থতার কারণে তেমন একটা এলাকায় আসতে পারেন না। বয়সের ভারে ন্যুব্জ থাকায় আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তার অংশ নেওয়াটা বেশ কষ্টসাধ্য। তারপর আওয়ামী লীগের প্রবীণ এই নেত্রীর প্রতিই ভরসা স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের। সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর পক্ষে বর্তমানে প্রচারণা চালাচ্ছেন দলের নেতা-কর্মীরা। এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইছেন জেলা পরিষদের সদস্য, মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী আনজুমান আরা বেগম।

বিএনপি থেকে ২০০৮ সালে নির্বাচনে অংশ নিয়ে হেরে যান দলের সাবেক মহাসচিব প্রয়াত কে এম ওবায়দুর রহমানের কন্যা, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির ফরিদপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ ইসলাম রিংকু। বিএনপির প্রার্থী তালিকায় তার নাম রয়েছে সবার উপরে। তিনিই ফের দলের মনোনয়ন পাবেন এমনটি মনে করেন বিএনপির বেশির ভাগ নেতা-কর্মী। ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থী তালিকা কিংবা প্রচার-প্রচারণায় নেই কোনো নারী প্রার্থী। তবে জাতীয় পার্টি (জাপা) থেকে নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মরহুম ইমরান চৌধুরীর সহধর্মিণী হাসিনা ইমরান চৌধুরী। সম্প্রতি এক মতিবিনিময় সভায় তিনি তার প্রার্থিতা ঘোষণা করেন। প্রার্থিতা ঘোষণা করেই তিনি দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে সভা-মতবিনিময় করে যাচ্ছেন। জাতীয় পার্টি আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচন না করে এককভাবে নির্বাচন করলে হাসিনা ইমরানই হবেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী এমনটি নিশ্চিত করে বলছেন দলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। ফরিদপুর-৪ (ভাঙ্গা-সদরপুর-চরভদ্রাসন) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালিকায় আছেন সাবেক এমপি ও বর্তমানে সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি নিলুফার জাফর উল্লাহ। ২০০৮ সালের নির্বাচনে তার স্বামী আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ মামলা সংক্রান্ত জটিলতায় নির্বাচন করতে পারেননি। সেই নির্বাচনে জয়ী হন নিলুফার জাফর উল্লাহ। এবারও কোনো কারণে কাজী জাফর উল্লাহ নির্বাচন করতে না পারলে নিলুফার জাফর উল্লাহ হবেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী এটা নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের বেশির ভাগ নেতা। এ আসনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে বেশ আলোচনার জন্ম দিয়েছেন জাসাস কেন্দ্রীয় কমিটির নেত্রী শাহরিয়ার ইসলাম শায়লা। সিনেমা জগৎ থেকে রাজনীতির মাঠে নেমে বেশ আলোচনায় এসেছেন তিনি। বিগত কয়েক বছর ধরে এলাকায় থেকে নিয়মিত গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। বিএনপির নীতিনির্ধারক ও হাই প্রোফাইল নেতাদের সঙ্গে শায়লার সু-সম্পর্ক রয়েছে। সেই হিসেবে শায়লা এ আসন থেকে মনোনয়ন পেলে অবাক হওয়ার কিছু নেই।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 28 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com