ঢাকারবিবার , ২৯ মে ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. ইতিহাস ঐতিয্য
  3. ইসলাম
  4. কর্পোরেট
  5. খেলার মাঠে
  6. জাতীয়
  7. জীবনযাপন
  8. তথ্যপ্রযুক্তি
  9. দেশজুড়ে
  10. নারী কন্ঠ
  11. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  12. ফার্মাসিস্ট কর্নার
  13. ফিচার
  14. ফ্যাশন
  15. বিনোদন

ফের চালের দাম বাড়ল

ডেস্ক নিউজ
মে ২৯, ২০২২ ৯:১১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

দেশের অন্যতম বড় চালের মোকাম নওগাঁ, কুষ্টিয়ার খাজানগর ও ঢাকার পাইকারি বাজারে খোঁজ নিয়ে চালের দাম বাজার চিত্র দেখা যায়। নওগাঁয় এক সপ্তাহের ব্যবধানে পাইকারি বাজারে প্রতি বস্তা (৫০ কেজি) চালের দাম ২০০ থেকে ৩০০ টাকা বেড়েছে। জেলার পার-নওগাঁ চাল মোকামের মোটা চাল (স্বর্ণা) কেজিপ্রতি ৪৬ টাকা, মাঝারি (বিআর-২৮, বিআর-২৯) ৪৮ টাকা, সরু চাল হিসেবে পরিচিত জিরা নন-শর্টার ৬০ টাকা, জিরা শর্টার (মিনিকেট) ৬৪ টাকা ও কাটারি নন-শর্টার ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পাইকারিতে দাম বাড়ার প্রভাব পড়েছে খুচরা বাজারেও। সেখানে প্রতি কেজি মোটা চাল তিন টাকা, মাঝারি দুই টাকা ও সরু চাল চার থেকে পাঁচ টাকা বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে।

কুষ্টিয়ার খাজানগর মোকামে গতকাল শনিবার কেজি প্রতি মিনিকেট চাল বিক্রি হয় ৬৩ থেকে ৬৪ টাকায়, যা গত ২৯ এপ্রিল ছিল ৫৬ টাকা। অপরদিকে রাজধানীর মিরপুর-১ নম্বর ও মোহাম্মদপুরের কৃষি মার্কেট বাজারে গতকাল পাইকারিতে মোটা চাল ৪৭ থেকে ৪৮ টাকা ও মাঝারি চাল ৫০ থেকে ৫২ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়। আর মিনিকেট প্রতি কেজি ৬৫-৬৬ টাকা এবং নাজিরশাইল ৭৮-৮০ টাকায় বিক্রি হয় বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে খুচরা পর্যায়ে এক সপ্তাহ আগের চেয়ে কেজিপ্রতি তিন-চার টাকা বেশি দামে চাল বিক্রি করতে দেখা যায়। দাম বাড়ার পর গুটিস্বর্ণা প্রতি কেজি ৫৩-৫৪ টাকা, বিআর-২৮ চাল ৫৪-৫৫ টাকা, মিনিকেট ৬৮-৭০ টাকা এবং নাজিরশাইল ৮২-৮৪ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

রাজধানীর মিরপুর-১ চাল আড়ত ব্যবসায়ী বহুমুখী সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক হারুন-অর-রশিদ প্রথম আলোকে বলেন, মিল পর্যায়ে চালের দাম প্রতিনিয়ত বাড়ছে। চালের চাহিদা জানিয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকার চালকলে ফোন করলেই মালিকেরা বাড়তি দামের কথা শুনিয়ে দিচ্ছেন।

চালকল মালিকেরা বলছেন, ধানের দাম বাড়ার কারণে চাল উৎপাদনের খরচও বেড়েছে। সপ্তাহের ব্যবধানে প্রকারভেদে প্রতি মণ ধানের দাম ৮০ থেকে ২০০ টাকা বেশি দামে কিনতে হচ্ছে। নওগাঁর অন্যতম বড় ধানের বাজার পত্নীতলা উপজেলার মধুইল বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রতি মণ (৪০ কেজি) জিরা ধান মানভেদে (শুকনা ও ভেজা ধান) বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৩৪০ থেকে ১ হাজার ৩৬০ টাকায়।

মধুইল বাজারের ধানের আড়তদার আমিনুল ইসলাম বলেন, এবার পাকা ধান কাটার আগমুহূর্তে প্রচুর বৃষ্টির কারণে খেতেই ধানের একটা অংশ নষ্ট হয়েছে। চাল ব্যবসায়ীদের মধ্যে বেশি ধান কেনার প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। ফলে প্রতিদিনই ধানের দাম বাড়ছে।

বাজারে এখন ডাল, তেল, চিনিসহ প্রায় সকল নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য পণ্য ও সাবান, টুথপেস্টসহ নিত্যব্যবহার্য পণ্যের দাম চড়া। এ অবস্থায় চালের মূল্যবৃদ্ধি বিপাকে ফেলছে মানুষকে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।