ফেসবুক অস্থিরতা, প্রতিক্রিয়া ও হুজুগ

Print

ফেসবুক খুলে অবাক হয়ে যাই! দেখি, সবাই মিলে একই আচরণ করছে! সবাই কেমন করে জানি একই রকম হয়ে গেছে! সবাই অনুসরণ করছে সবাইকে! একই সঙ্গে একইভাবে পরিবেশিত হচ্ছে একটি সুসংবাদ বা দুঃসংবাদ! সবাই একই কথা লিখছে! সবাই একই সঙ্গে দুঃখিত কিংবা সুখী! সবাই একইভাবে একই কথার প্রচারক! সবাই একই কথার বক্তা—যেন কোনো শ্রোতা আর নেই! অবাক হয়ে এই আজব কাণ্ড দেখতে থাকি আর ভাবতে চেষ্টা করি, কেন এমনটি হচ্ছে! যখন বিখ্যাত কারও অসুস্থতার সংবাদ ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে, তখন সবাই যেন সেই মানুষটির মৃত্যুর জন্য অপেক্ষমাণ থাকে! খুব ভয়াবহ এই অপেক্ষা! কারও আবার এই অপেক্ষা সহ্য হয় না! সাম্প্রতিক সময়ে কারও মৃত্যুর আগেই মৃত্যুসংবাদ প্রচারিত হয়েছে এই ফেসবুকে! একাধিকবার! মৃত্যুসংবাদটিও পরিবেশন করতে হবে সবার আগে, এই প্রতিযোগিতা প্রবণতা থেকেই অস্থির কেউ কেউ এই কাণ্ড করছেন!

সবাই এখন সবার আগে সবকিছু জানাতে চায়! মানুষের মৃত্যু বা ক্রিকেট স্কোর যা-ই হোক না কেন! কোনো কিছুর সঙ্গে আর কোনো কিছুর পার্থক্য নেই! ‘আমি আগে জানাতে পারলাম’, এটাকেই কৃতিত্ব ভাবছে অনেকে! প্রথম ঘোষণার যোগ্যতা! সবাই এখন একইভাবে এবং এককভাবে সবকিছুর প্রথম প্রচারক হতে চাইছে! প্রথম হতে গিয়ে সবাই যে একই রকম হয়ে যাচ্ছে, সেই খেয়াল নেই! সবাই অন্য কাউকে না দেখে কেবল নিজেকে দেখছে! ফেসবুক এখন সবার একই সঙ্গে একই রকম সত্য-মিথ্যার প্রচারভূমি হয়ে উঠেছে! মিথ্যা সংবাদের (ফেইক নিউজ) রমরমা বাজার এভাবেই কি তৈরি হলো?

অবাক লাগে ভাবতে, ফেসবুক সবাই মিলে একই আচরণ করার এক সম্মিলিত সফলতা নাকি ব্যর্থতার নাম হয়ে উঠছে! ভাবি, একটা অনগ্রসর সমাজে ব্যক্তি তার মৌলিকত্ব হারালেই বোধ হয় এ রকম হয়! দ্রুত অন্যের অনুকরণ করতে গিয়ে সবাই নিজের বোধ-বিশ্লেষণ-অনুভূতির জায়গাটা হারিয়ে বসে আছে! কী এমন পিছিয়ে পড়ার ভয় আমাদের? একটু দেরি হলে কিছু কী হারিয়ে ফেলব? আমাদের নাম-ধাম-ইজ্জত-সম্মান-অস্তিত্ব আর থাকবে না? এই গণ-অনুকরণের মনস্তাত্ত্বিক-সমাজতাত্ত্বিক ব্যাখ্যা কী? আনন্দিত হওয়ার বা ভয় পাওয়ার বা ঘৃণা প্রকাশের এমন হুজুগে প্রবণতা খুঁজে পাওয়া যাবে কি আর কোনো জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে?

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 21 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com