১৯৯৬ থেকে বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগকে ভালবাসতে শুরু করেন ইয়ারপুর ইউনিয়ন এর কৃতি সন্তান নুরুল আমিন সরকার

Print

খোরশেদ আলম , ঢাকা, জেলা প্রতিনিধি

সাভারের আশুলিয়ায়,  ১৯৯৬ সাল থেকে বঙ্গবন্ধু সোনার বাংলাকে বুকে ধারন করে, আওয়ামী লীগ ও  ছাত্রলীগের  মিটিং মিছিলে  যেতে শুরু করে দিনরাত শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন।
 ধীরে ধীরে  পরিচিত বাড়তে শুরু করে ২০১৭ সালে  ইয়ারপুর ইউনিয়ন যুবলীগের  আহ্বায়ক হন তিনি।
নুরুল আমিন সরকার এই প্রতিবেদককে জানায়, ছোটবেলা থেকেই আমার বাবার মুখে শুনেছি বঙ্গবন্ধু একজন প্রতিবাদী নেতা ছিলেন।
বাবা বলেন  বাংলার মাটিতে  যদি বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হতো তাহলে  হয়তো আমরা স্বাধীন বাংলা ভাষায়  কথা বলতে পারতামনা।
আর  এদিকে আশুলিয়া জাতীয় অর্থনীতিতে যেমন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন, তেমনি রাজনীতির দিক থেকেও অধিক গুরুত্বপূর্ণ বহন করে চলেছে।
এবার স্থানীয় রাজনীতিতে যারা বিভিন্ন কর্মসূচিতে নিজেদের অবস্থান জানান দিয়েছেন।
তেমনি একজন ইয়ারপুর ইউনিয়ন  যুবলীগের বর্তমান আহ্বায়ক জনাব, মোঃ  নুরুল আমিন সরকার।
 বিএনপি-জামায়াত সরকারের বিভিন্ন গণবিরোধী আন্দোলন সংগ্রামে ভূমিকা রেখেছেন  তিনি, আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে লড়াই-সংগ্রাম করে  রাজপথ দখলে রেখেছেন তিনি।
 আওয়ামী লীগের প্রতিবাদী কর্মসূচিতে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বুকে ধারণ করে নৌকা প্রতীক হাতে নিয়ে অংশগ্রহণ করেন।
নিজের যোগ্যতা প্রমাণ রাখাই ইয়ারপুর ইউনিয়ন যুবলীগের পদে দায়িত্বভার তুলে দেন।
সাভার উপজেলা ও আশুলিয়া থানা যুবলীগের নেতাগণ।
প্রতিবাদী এই নেতা বিডি সারাদিন কে জানান, রাজনীতিতে আষাঢ় একমাত্র অবলম্বন আমার পরিবার তারপর ২০১৭ সালে কবির সরকারের নেতৃত্বে যুবলীগের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়ি। এদিকে কবির হোসেন সরকার বলেন পর্যায়ক্রমে বিচার-বিশ্লেষণ করে তার নিজের দক্ষতার পরিচয় পান সিনিয়র নেতৃবৃন্দরা।
অন্যদিকে ইয়ারপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সমস্ত নেতাকর্মী একত্র হয়ে নুরুল আমিন সরকারকে  ইয়ারপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি হিসেবে দেখতে চাই।
তার সাথে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে না বলেও জানায় এই প্রতিবেদককে।
 জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ বুকে ধারণ করে,
বাংলাদেশের তিন তিনবারের সফল প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে প্রতিটি ইউনিয়ন ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে কাজ করেছেন তিনি।
একসময়ে বিএনপি-জামাতের ভয়ে ইয়ারপুর ইউনিয়ন যুবলীগ-ছাত্রলীগ নেতাকর্মীকে খুঁজে পাওয়া কষ্ট হতো।
ভয়ে কেউ তাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে সাহস পেত না, আমি সবসময়ই আওয়ামী লীগ যুবলীগ ছাত্রলীগ এর সাথে কাজ করেছি।
বিএনপি-জামাতের ভয়ে আমি আমার রাজনীতি থেকে পিছপা হয়নি কখনো।
 আগামী দিনে আমাকে যদি ইয়ারপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নির্বাচিত করেন তাহলে ইয়ারপুর ইউনিয়ন যুবলীগ নেতাকর্মীদের হাতে হাত রেখে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করব।
২০০৮ সালে জাতীয় নির্বাচনে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের একত্রে নিয়ে আসার পেছনে তার অবদান ছিল অনেক।
পরবর্তী ২০১৪  সালে বিএনপি জামাতের লাগাতার হরতাল সন্ত্রাসবাদ বোমাবাজ রাজপথে সক্রিয় ছিলেন এই নেতা।
এসময় আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহবায়ক কবির হোসেন সরকার বলেন ইয়ারপুর ইউনিয়ন যুবলীগের পরীক্ষিত নেতা নুরুল আমিন সরকার।
 অন্যদিকে আশুলিয়া থানা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক মইনুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন দুঃসময়ের দুর্দিনে যুবলীগের পাশে নিরলসভাবে  কাজ করেছেন তিনি।
[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 284 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com