বন্যার পর গুজব ও গণপিটুনির শিকার মিনু মিয়া মরেই গেলেন

Print

বন্যার পানিতে রাস্তাঘাট তলিয়ে গেছে, তাই ভ্যান চালাতে পারছিলেন না টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর থানার টেপিপাড়া গ্রামের মিনু মিয়া (২৮)। কামাই-রোজগারের আশায়, বেঁচে থাকার তাগিদে ভ্যান চালানো বাদ দিয়ে মাছ ধরবেন বলে ঠিক করলেন।

ঘরে থাকা পুরোনো জালটি ছিঁড়ে গেছে। তাই দরকার একটি নতুন জাল। নতুন জাল কিনতে গত ২১ জুলাই পাশের কালিহাতি থানার সয়াহাটে যান। পকেটে কিছু টাকা ছিল মিনু মিয়ার। এই টাকা নেয়ার উদ্দেশ্যে এক ছেলে তার পকেটে হাত ঢুকিয়ে দেয়। মিনু মিয়া তাকে ধরে ফেলেন। তাৎক্ষণিক ওই ছেলে ‘ছেলেধরা’ বলে চিৎকার শুরু করে।

তার সাঙ্গপাঙ্গরা মিনু মিয়াকে মারধর শুরু করে। মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে নেয়া হয় কালিহাতী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। সেখান থেকে ওই দিনই পাঠিয়ে দেওয়া হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে টানা আট দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মানলেন মিনু মিয়া।

সোমবার সকাল ১০টায় ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। লাশের সুরতহাল ও ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের সহকারী ইনচার্জ এএসআই আবদুল্লাহ মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মিনু মিয়ার শ্যালক জাহাঙ্গীর আলম দেশর ‍রূপান্তরকে জানান, মিনু মিয়ার বাড়ি টাঙ্গাইল জেলার ভূঞাপুর উপজেলার টেপিপাড়া গ্রামে। তার বাবার নাম কুরবান আলী। মিনু মিয়ার স্ত্রী রিনা আক্তার পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। একমাত্র ছেলে রাহাতের বয়স সাত বছর। মিনু মিয়া পেশায় ভ্যানচালক।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 34 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com