বাচ্চার দেরীতে কথা বলা তথা গ্যাজেট আসক্তি।

Print

 

আগেই মাফ চেয়ে নিচ্ছি,কারন আমি কোন লেখক নই এবং আমার জ্ঞ্যানের পরিধি খুবই সীমিত । এটা কোন আর্টিক্যাল বা তথ্য নির্ভর লিখা নয়। “pregnancy & motherhood bd” নামক গ্রুপে যদি কারো কোন উপকারে আসে সেই চিন্তা থেকে নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছিলাম মাত্র। যদিও এখন সব বাবা মাই অনেক সচেতন, তারপরো এটা পড়ে একজনও যদি উপকার পায় আল্লাহ আমাকে তার বিনিময়ে কিছু নেকী দিবে সেই উদ্দেশ্যেই লিখা। বলতে পারেন নিজের স্বার্থেই লিখেছি। ৯৯ ব্যাচের বন্ধুরা, যাদের ৬ মাস থেকে-২ বছর বয়সের বাচ্চা আছে তারা পড়ে দেখতে পারেন।

আমার মেয়ের বয়স যখন ১৪ মাস তখন আমি নীলক্ষেত থেকে ২৩০ টাকা দিয়ে একসেট ছবি ছাপানো বই নিয়ে আসি। আমার কান্ড দেখে কন্যার বাবা, আমার মা, আমার ভাই-বোন সবাই হেসেই খুন!!! এইটুক বাচ্চা বই এর কি বুঝবে? আমি কাউকে কিছুই বল্লামনা। পরদিন দেখি আমার আম্মা বই নিয়ে কন্যাকে অভিনয় করে দেখাচ্ছে কোনটা কোন প্রানী, কোনটা কিভাবে ডাকে আর আমার কন্যা হেসে কুটকুট। দেখে আমার মনটাই ভরে গেলো। আমি সকালে অফিস যাওয়ার সময়ও দেখি ২ বয়সের ২ বাচ্চা ছবিওয়ালা কয়টা বই নিয়ে হাসছে, এসেও দেখি একই চিত্র। এভাবেই কিছুদিনের মধ্যেই দেখলাম বই নিয়ে আমার কন্যার সময়টা ভালোই কাটে,পাশাপাশি অন্যান্য খেলাধুলাতো আছেই। আমার মনে আছে, একদিন ওকে নিয়ে একটা সুপার শপে গিয়েছিলাম। ও শপে সাজানো সব গুলো সবজি দেখে একটা একটা করে নাম বলছিলো…মিতি কুম্মা, কাতা ময়িত, গাদর, দাউ (লাউ), বেগুন, করলা….. পিছনে দেখি অনেক ক্রেতা দাঁড়িয়ে আমার মেয়ের কান্ড দেখছে। মাত্র ১৫/১৬ মাসের একটা বাচ্চা সব্জির নাম বলছে তাও এত কিউট করে… দেখবেইতো। আরেকটা ব্যাপার করতাম আমি, সেটা হল ৪/৫ মাস বয়স থেকেই ওকে ছড়া বলে বলে ঘুম পাড়াতাম। ১৬/১৭ মাস থেকেই সে রেসপন্স করা শুরু করেছিলো। আমি এক লাইন বলতাম সে পরের লাইন এভাবে। এবং বয়স ২ হওয়ার আগেই বেশ অনেকগুলো ছড়া ওর আয়ত্বে চলে এসেছিলো।
যাই হোক আমি আমার কন্যার গুন কীর্তন করতে বসিনি। আমার মুল উদ্দেশ্য ছিলো কিভাবে আমি ওকে মোবাইল ফোন থেকে দূরে রেখেছিলাম সেটা জানানো। বর্তমানে বাচ্চাদের speech delay অনেকটা মহামারী আকারে ধারন করেছে। প্রায় সবাইকেই বলতে শুনি বাচ্চা সঠিক সময়ে কথা বলছেনা। আর এ নিয়ে সবাই বেশ চিন্তিত।বাচ্চার দেরীতে কথা বলার অন্যতম কারন হল বাচ্চার হাতে ইউটিউব দিয়ে দেয়া। আমরা কম বেশি সবাই জানি এখন এই ব্যাপারটা তাই আর অত গভীরে গেলামনা। আমার মেয়ে ১৪ মাস বয়সে পুরো বাক্য বলেছে (মাশাল্লাহ)। এর অন্যতম কারন হল ওর সাথে আমরা প্রচুর কথা বলতাম। ও বুঝতে পারতো কিনা জানিনা, কিন্তু সারাদিন ওর সাথে আমার আম্মা গল্প করতো, যেনো ও একটা বড় মানুষ, আর আম্মার বন্ধু।
আমরা ছোটবেলায় বাইরে খেলতে যেতাম, প্রতিবেশিদের বাসায় যেতাম, বাসায় ভাই-বোনের সাথে খেলতাম। কিন্তু এখন আমাদের বাচ্চাগুলো সারাদিন খাঁচায় বন্দী স্কুলে যাওয়ার আগ পর্যন্ত,আবার বেশির ভাগ ফ্যামিলিতেই একটা বাচ্চা, বড়জোড় ২ টা। কিভাবে তাদেরকে ব্যাস্ত রাখা যায় এটা একটা বড় চ্যালেঞ্জ। বইই দিতে হবে এমন কোন কথা নেই। প্রতিটা বাচ্চাই আলাদা। আমার মেয়ের ক্ষেত্রে বই কাজ দিয়েছে অন্য কারো কাজ নাও হতে পারে। যেকোন ভাবে এক্টিভ রাখাটাই আসল। অনেক সময় হাতে গ্যাজেট তুলে দেয়া ছাড়া উপায়ও থাকেনা। একটা ছোট বাচ্চাতো আর চুপচাপ বসে থাকবেনা। তারপরো কথা বলা শিখার পিরিয়ডটায় গ্যাজেট থেকে দূরে রাখতে পারলেও অনেক খানি উপকার পাওয়া যায়।

এখন কন্যার ৩.৫ বছর। বুদ্ধি হয়েছে। মাথা ভর্তি দুষ্টু বুদ্ধি। এখন বই হাতে নিলেই উল্টো দিকে দৌড় দেয় (অত্যাবশকীয়, আমার কন্যা বলে কথা)। আমিও পেইন দেইনা, সারা জীবন পরে আছে পড়ার জন্য। এখন ওকে আমি নিজ দায়িত্বেই হাতে মোবাইল ফোন দিয়ে বসিয়ে দেই, নইলে ওর পিছনে দৌড়াতে দৌড়াতে হাঁপিয়ে উঠি, তবে সেটা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য।পাশা পাশি হিন্দি কার্টুনগুলো থেকে দূরে রাখতে দুরন্ত টিভির অভ্যাস করার ট্রাই করছি। বাচ্চাদের মুখে হিন্দি কথা খুবই শ্রুতিকটু লাগে আমার।

এই অস্থির সময়ে আমরা সব বাবা-মাই অসম্ভব টেনশনে আছি ওদের ভবিষ্যত নিয়ে। আল্লাহ সব বাচ্চাগুলোকে সুস্থ, স্বাভাবিকভাবে বেঁচে থাকার তৌফিক দিন।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 120 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com