বানারীপাড়ায় লুপ্ত প্রায় ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প

Print

রাহাদ সুমন,বিশেষ প্রতিনিধি॥
বানারীপাড়ার শত বছরের ঐতিহ্যবাহী মৃৎ শিল্প আজ কালের বিবর্তনে বিলীনের পথে। এলুমেনিয়াম,মেলামাইন ও প¬াস্টিকের ভীড়ে হারিয়ে যেতে বসেছে মাটির তৈরি মৃৎ শিল্পের প্রয়োজনীয়তা ও চাহিদা। ফলে চরম অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে এই শিল্প। এক সময় বানারীপাড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় কয়েক শত পরিবার প্রত্যক্ষভাবে এ শিল্পের সাথে জড়িত ছিল। আধুনিকতার ছোঁয়ায় কালের পরিক্রমায় হাতে গোনা কয়েকটি পরিবার এখন তাদের পূর্বসুরীদের এ পেশাকে ধরে রেখেছেন। বানারীপাড়ার পালদের তৈরি মৃৎ শিল্পের সুনাম ও সুখ্যাতি ছিল দেশব্যপী। বানারীপাড়ার কুন্দিহার গ্রামের ঐতিহ্য পাল বংশ নিশ্চিহ্ন হয়ে এখন মাত্র তিনটি পরিবার রয়েছে। আর চাউলাকাঠি ও কালির বাজার গ্রামে রয়েছে মাত্র ১০/১২টি পরিবার। যেখানে একসময় শতাধিক পাল পরিবার ছিল। এ গ্রাম দুটি সন্ধ্যা নদীর কড়াল গ্রাসের শিকার হওয়ায় সবকিছু হারিয়ে নিঃস্ব ও রিক্ত হয়ে পড়েছে পাল পরিবার গুলো। নারী-পুরুষের সমন্বয়ে পাঁ দিয়ে মাটি ও পানি মিশিয়ে ছেনে নরম করে মাটির জিনিস তৈরির উপযোগি করে চাকের সাহায্যে যাবতীয় মৃৎ শিল্প¬ তৈরি করা হয়। এর পর রোদে শুকিয়ে জলন্ত চুল্লীতে দিয়ে পোঁড়ানো হয়। বানারীপাড়ার পালদের তৈরিকৃত তৈজসপত্রের মধ্যে রয়েছে হাঁড়ি, পাতিল,কলস, কঁড়াই, চাড়িয়া, ল্যাম্পদানি, ফুলদানি প্রভৃতি।এছাড়া হিন্দুদের ঐতিহ্য পুজা মন্ডপ সহ যাবতীয় মুর্তি তৈরী করেন তারা। পালরা মুলতঃ এখন সনাতন ধর্মীদের যাবতীয় মুুর্তি তৈরী করে কোন রকমের জীবন জীবিকা নির্বাহ করছেন। ফলে মৃৎ শিল্পের নিপূন কারিগররা তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে আজ অসহায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন। বানারীপাড়ার গাভা গ্রামের প্রবীন গৌরাঙ্গ পাল জানান, কোন মতে তারা তাদের আদি পেশাকে ধরে রেখেছেন। বানারীপাড়া, উজিরপুর ও স্বরূপকাঠী উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে তৈরীকৃত মৃৎ শিল্প বিক্রি করে দ’ুমুঠো ডালভাত খেয়ে কোন রকমের জীবন যাপন করছেন তারা।এদিকে পূর্ব পুরুষদের এ পেশাকে নিম্নমানের পেশা মনে করে অনেকেই অন্য পেশায় নিয়োজিত হয়েছেন। সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা পেলে হারিয়ে যাওয়া মৃৎ শিল্পের অতীত ঐতিহ্য পুনরায় ফিরিয়ে আনা সম্ভব।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 191 বার)


Print
bdsaradin24.com