বিএনপিতে হঠাৎ ছন্দপতন

Print

কারাবন্দি খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে বিএনপিতে হঠাৎই ছন্দপতন দেখা দিয়েছে। তাতে বিদ্রোহের ‘আলামত’ও দেখা যাচ্ছে। সাবেক সেনাপ্রধান লে. জেনারেল (অব) মাহবুবুর রহমান এবং মোরশেদ খানের পদত্যাগ যে একান্ত ব্যক্তিগত কারণ নয়, তা তাদের বক্তব্যে উঠে এসেছে। দলের একাধিক নেতা জানিয়েছেন, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ওপর নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের এবং সিনিয়র ও মধ্য সারির অনেক নেতাই রুষ্ট। দুই নেতা পদত্যাগের মাধ্যমে তা প্রকাশ করেছেন; আরও কয়েকজন সেদিকেই এগোচ্ছেন।

দলের নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো বলছে, তারেক রহমানের নানা কর্মকা- ও সিদ্ধান্তে দলের সিনিয়র নেতারা ক্ষুব্ধ। কারণ অনুসন্ধানে জানা যায়- চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে রাজপথে দৃশ্যমান আন্দোলন কর্মসূচি না দেওয়া, খালেদা জিয়াকে ছাড়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ, ‘অকারণে’ মনোনয়ন বঞ্চিত হওয়া ও দল পুনর্গঠনসহ দলীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণে সিনিয়র নেতাদের অবজ্ঞা, সম্প্রতি অভিজ্ঞদের বাদ দিয়ে দুই নেতাকে স্থায়ী কমিটিতে নিয়োগ দেওয়া। এসব ক্ষোভের পাশাপাশি নিজেদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান টিকিয়ে রাখা ও মামলা-হামলা থেকে রক্ষা পেতেও কয়েকজন পদত্যাগ করেছেন বলে জানা গেছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বরচন্দ্র রায় এ বিষয়ে আমাদের সময়কে বলেন, ‘দলে সব সময় সব কিছু আমার অনুকূলে থাকবে এটি ভাবা ঠিক নয়। প্রতিকূল অবস্থাও আসবে। এটি মোকাবিলা করাই রাজনীতি। যারা পদত্যাগ করছেন, তা ব্যক্তিগত স্বার্থে। এখানে আদর্শের কোনো বিষয় নয়। যেমন আমি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিরুদ্ধে ছিলাম। দল তখন আমার কথা শোনেনি, একসময় তো আমার কথা শুনতে পারে। ক্ষোভ প্রকাশ করে পদত্যাগ কোনো সমাধান নয়।’

নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের কয়েকজন নেতার সঙ্গে আলাপকালে তারা বলেন, বর্তমানের শীর্ষ নেতৃত্বের প্রতি অনাস্থা প্রায় সবার। কিন্তু খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে দলের বিপদে এই কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে চাচ্ছেন না। বেইমান তকমাও লাগাতে চাইছেন না। ওই সব নেতা বলেন, অবস্থা এমন জায়গায় এসে দাঁড়িয়েছে, খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে পদত্যাগ করলে নেতাকর্মী ও দেশের মানুষের কাছে তাদের বেইমান হতে হবে। আবার যেভাবে দল চলছে, তাতে সম্মান নিয়ে রাজনীতি করাও কঠিন হয়ে পড়েছে।

নেতাদের কয়েকজন বলেন, জ্যেষ্ঠ নেতাদের প্রতি তারেক রহমানের অবজ্ঞা, তাদের গুরুত্ব না দেওয়া এবং নিজের মতো সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিষয়ে তারা খুবই ক্ষুব্ধ। তা ছাড়া ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তার নিজ বলয়ের বাইরে কাউকে গুরুত্ব দেন না, বরং নানাভাবে অপদস্থ করছেন।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 28 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com