বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিতে গিয়ে ভোগান্তির শিকার মেয়েরা

Print

দেশে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এখন চলছে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার মৌসুম। এক্ষেত্রে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি না থাকায়, শিক্ষার্থীদের একেক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য একেক জায়গায় গিয়ে পরীক্ষা দিতে হচ্ছে। এ কারণে অনেক সময় মেয়ে শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের ভোগান্তি পোহাতে হয়।

বাংলাদেশে এবছর সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা ও কারিগরি বোর্ড মিলিয়ে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন প্রায় দশ লাখ শিক্ষার্থী। এই ছাত্র-ছাত্রীরা এখন উচ্চ-শিক্ষার্থে দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন। তাদের প্রায় অর্ধেকের মতো নারী।

নিরাপত্তার কথা ভেবে অনেক অভিভাবক হয়তো মেয়েকে বাড়ি থেকে দূরে যেতে দিতে চান না, যেমন চাননি ফারিহা রহমান অ্যান্থিয়ার মা-বাবা।

ফারিহা রহমান অ্যান্থিয়া বলেন, ‘আমার জন্য রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সব জায়গারই ফর্ম তোলা হয়েছিলো। কিন্তু যেদিন রাজশাহী যাবো, টিকেট ঠিক, সাথে আম্মা যাবে তাও ঠিক, সকালে আব্বা বললেন, তোমাকে তো আমি ঢাকার বাইরে পড়াবো না। হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় না হয় জাহাঙ্গীরনগর – এই দুই জায়গায় চান্স পাইলে পড়বা, নাহলে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়।’

পরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর পাস করার পর অ্যান্থিয়া এখন ঢাকার একটি বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন। কিন্তু এ ধরনের বাধা পেরিয়ে যারা অন্য শহরে ভর্তি পরীক্ষা দিতে যান তাদের অনেকেরই পড়তে হয় নানা বিড়ম্বনায়। বিশেষ করে ওই শহরে যদি তাদের কোন আত্মীয় পরিজন না থাকে।

যে কারণে উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি-যুদ্ধে অবতীর্ণ হবার আগে আরেক ধরনের যুদ্ধে নামতে হয় অনেককে, যেমনটি বলছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আবিদা সুলতানা। ‘আমার বাড়ি মুন্সীগঞ্জে। মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার সময় কুমিল্লার একটি কলেজে আমার সিট পড়েছিল, কিন্তু ওখানে আমাদের কোন আত্মীয় নাই। পরে আব্বু তার একজন পরিচিতর পরিচিত মানুষকে ধরে আমাদের থাকার একটা ব্যবস্থা করেছিল।’

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 43 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com