বিয়ানীবাজারে জমে উঠেছে ঈদবাজার শপিংমহল গুলোতে ক্রেতাদের উপচে পড়াভীড়

Print

মিসবাহ উদ্দিন বিয়ানীবাজার থেকে ঃ
ঈদ মানইে খুশি।ঈদ মানে আনন্দ এই আনন্দ কে আরো বর্ণিল সাজে করতে মুসলমানদরে প্রধান এ র্ধমীয় উৎসব ঈদুল ফিতরকে ঘিরে সবার মধ্যে থাকে নানা আয়োজন আর পরকিল্পনা। আর মুখরোচক খাবাররে পাশাপাশি এদনি বিশেষ গুর“ত্ব পায় নতুন পোশাক। নতুন পোশাকই মানে ঈদের র্পূণতা। তাই রোজার শুর“তইে অনেকেই শুর“ করছেনেঈদের কেনাকাটা ।
বিয়ানীবাজার পৌরশহররে বিভিন্নি শপিংমহল ঘুরে ও বিক্রিতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত কয়কে দিনে বিক্রি তেমন ভালো ছিলনা। তবে ঈদ যতো এগিয়ে আসছে জমে উঠছে ঈদ বাজার।
১৫ রমজান থেকে শুর“ করে বিভিন্ন পোশাকরে দোকান ক্রেতাদের পদচারণায় মুখরতি হয়ে উঠছেফুটপাত থেকে শুর“ করে বড় বড় শপিংমহল গুলোতে ।ঈদ বাজার ঘুরে দেখা যায়, মতিন ক্লথষ্টোর

আশরাফ ফ্যাশন, বিশাল ব্রান্ড, হাফিজ ক্লথ ষ্টোর, জারি ফ্যাশন, তর“ন তর“নিদের উপচে পড়া ভীড় ।বরাবররে মত এ বছরও বিয়ানীবাজার র্মাকেটে ভারতীয় পোশাকরে চাহিদা বেশিনানা রকম ডিজাইন আর হিন্দি সিনেমারনাম অনুসারে বেশি জনপ্রিয় ভারতীয় পোশাকগুলো।

এ বছর মেয়েদের জন্য দোকানিরা এনেছেন বিাজিরাও মাস্তান, বাগি ড্রেস সামপুরা, লং কোট, মাসাককালী, ওয়াইফাই, ক্যাকটাস, বিশাল, লকনা, আশিকী, পাখি ফ্লোরটাচ, জয়পুরী, মাস্তানীয়া, সুইচ লন, কান্দী ভাঙ্গা, কাশশি, ভনিয়া। করিণমালা, মধুমালা, মায়াপরী, পাকিস্তানী লনসহ বিভিন্ন নামের থ্রিপিস ও ফোর পিস পোশাকও ক্রেতাদের আকৃষ্ট করেছে।

ভারতীয় বিভিন্ন ধরনরে থ্র-পিস দড়ে হাজার টাকা থেকে ১০ হাজার টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে ।ছেলেদেরে কালার ফুল র্শাট, চকে র্শাট, এক কালার র্শাট, জিন্সও গ্যাবাডিং প্যান্টের পাশাপাশি বাহারি ডিজােইনের পাঞ্জাবি পছন্দের তালিকায় রয়েছে

বিভিন্ন শাড়ীর দোকানে টাঙ্গাইল শাড়ি ৬০০ টাকা থেকে ১২০০ টাকা, র্জেজেটে শাড়ী ১২০০ টাকা থেকে ৩ হাজার টাকা, সিল্ক শাড়ি দুই হাজার টাকা থেকে সাত হাজার টাকা র্পযন্ত বিক্রি হ”েছ সুতি পাঞ্জাবি ৩০০টাকা থেকে দুই হাজার টাকা, র্জজটে পাঞ্জাবি ১৫০০ হাজার টাকা থেকে সাড়ে ৩০০ হাজার টাকা, সল্কি পাঞ্জাবি (ভারতীয়) দুই হাজার টাকা থেকে । সারা দিনের ঈদ বাজার শেষে

বিকেল ঘনিয়ে আসতে বাড়ি ফিরতে শুরু করেছেন ক্রেতারা । সবার হাতেই ব্যাগ। কারো হাতে দুটি-পাঁচটি, আবার কারো হতে আটটি-দশটি শপিং ব্যাগ। শপিং করে ক্লান্ত তারা। এখন বাসায় ফেরার অপেক্ষা। গাড়ি আসলেই বাসায় ফিরে ইফতার করবেন।
বিক্রেতারা বলছেন, এবারের ঈদে দেশি পোশাকের চেয়ে বিদেশি পোশাকের প্রতি ক্রেতাদের ঝোঁক বেশি। ঈদের আগের দিনগুলোতে ব্যবসা আরো জমে উঠবে বলে আশাবাদী বিক্রেতারা।

ক্রেতাদের কয়েকজন জানান, মার্কেটজুড়ে দেশি-বিদেশি নানান ডিজাইনের পোশাক থাকায় পছন্দ করে কেনা যা”েছ। এরমধ্যে বিদেশি পোশাকের প্রাধান্য বেশি। তবে অনেকে আছেন যারা, ঈদের জন্য দেশি বুটিকস, সুতি কাপড়কে বেছে নি”েছন। আবার অনেকে মানসম্মত পোশাক পাচ্ছেনা বলেও অভিযোগ করেন।

মতিন ক্লথ এর স্বত্তাধিকারী মতিন আহমদ ও মোকাম রোডের আশরাফ ফ্যাশন এর স্বত্তাধীকারী ইকবাল আহমদ এর সাথে আলাপ কালে এই প্রতিবেদক কে জানান, এবারের ঈদ বাজারে দেশি কাপড়ের তুলনায় বিদেশি কাপড় বেশি বিক্রি হ”েছ। তবে দেশি বুটিকসের কাপড়ও কিনছেন অনেকে। কেউ আবার পছন্দের জিনিস তৈরি করতেছেন থান কাপড় কিনে , অন্যান্য দিনের তুলনায় আমরা তর“নীদের পাশাপাশি তর“ন্দের কাছে জেন্টেসের, শার্ট,প্যান্ট পাঞ্জাবী, পায়জামা খুব ভালো চলছে আজ বিক্রি ভালো। হ”েচ বলে জানান, জামান প্লাজার মতিন ক্লথ, ঝারি ফ্যাশন, হাফিজ ক্লথ ষ্টোর, ইনার কলেজ রোডের ব্রান্ড কালেকশন,লুৎফুর ফ্রেবিক্স, বিউটি বস্ত্র বিতান র“পশি ফ্যাশন এর বিক্রেতা এই প্রতিবেদককে

আরো জানান, গত কয়েক দিনে বিক্রি ভালো না হওয়া দুশ্চিন্তায় ছিলাম আমরা ।ব্যবসায়িরা ঈদ ঘনিয়ে আসতে না আসতে ব্যবসা জমে উঠেছে আমরা আশাবাদি আগামি দিনগুলুতে আরো জমে উঠবে ব্যবসা

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 783 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com