ব্যক্তিগন সদরঘাটের কুলি নয়- এরা আমাদের সূর্য সন্তান (রেমিটেন্স যোদ্ধা)

Print

এটি কমলাপুর রেল স্টেশনের চিত্র নয়-এটি শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বহির্গমন গেইটের গত বৃহস্পতিবারের চিত্র, ছবিতে দৃশ্যমান ব্যক্তিগন সদরঘাটের কুলি নয়- এরা আমাদের সূর্য সন্তান (রেমিটেন্স যোদ্ধা)।
ভাবতে ভালোই লাগে, দেশ এগিয়ে যাচ্ছে অগ্রগতির স্রোতে -সমৃদ্ধির পথে। কিন্তু যখন দেখি এই অগ্রগতির নায়কেরা (প্রবাসী) স্বদেশের বিমানবন্দরে একটা ট্রলি ব্যাবহারের সুবিধা পাচ্ছে না তখন গর্ববোধ করার মানসিকতা হারিয়ে ফেলি
আমি জানিনা ট্রলি স্বল্পতা কিংবা ট্রলি হারিয়ে যাওয়ার ভয়ে এমনটি করা হচ্ছে কিনা, তবে যতোটুকু দেখলাম আর উপলব্ধি করলাম তাতে মনে হলো বহির্গমন চত্বরে এক শ্রেণীর দালাল কাজ করে যারা টাকার বিনিময়ে ট্রলি খোলা পার্কিং পর্যন্ত আনতে দেয় এবং তাদের মাধ্যমে টেক্সি ভাড়া করলেও সে সুযোগ পাওয়া যায়,আর একটা বিষয় লক্ষ করলাম যারা শক্ত ভাষায় প্রতিবাদ করতে জানে তারাও দেখলাম ট্রলি বাহিরে আনতে পারছে, গ্রামের স্বল্প শিক্ষিত আর মধ্যবয়সী যাত্রীরা সে সুযোগ পাচ্ছে না,অবশ্য অনেক শিক্ষিত যুবককে ও দেখছি জামেলার ভয়ে নৈরাজ্যের কাছে নতজানু হয়ে মালামাল কাঁধে তুলে নিতে আরও একটা বিষয় আমার নজরে পরে,যারা ট্টলি আনতে বাধা দিচ্ছে তারা কেউই অফিসার পর্যায়ের না,বেশির ভাগই মনে হলো অষ্টম শ্রেণী নবম শ্রেনীর কর্মচারী অথবা দালাল প্রকৃতির লোক
দেশ যখন উপযুক্ত যুবকদের কর্মসংস্থানে হিমশিম খাচ্ছে, তখন হতাশাগ্রস্ত যুবকদের একটা বিরাট অংশ স্বউদ্যোগে, পারিবারিক অর্থায়নে মা- মাটি ছেড়ে অনিশ্চিত পথে পাড়ি দেয় বিদেশ,আমরা যাদেরকে বলি প্রবাসী। এই প্রবাসীদের অপরিচিত পরিবেশে নিজের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে প্রাণপণ লড়াই করতে হয়। শান্তনা তাদের একটাই আমার ত্যাগে পরিবার পরিজন ভালো থাকবে, আমার রেমিটেন্সে সমৃদ্ধ হবে স্বদেশ। কিন্তু বিনিময়ে তাদের প্রাপ্তি যদি হয় এমন তখন আমাদের উন্নতি আর অগ্রগতি প্রশ্নবিদ্ধ হবে নিশ্চয়ই
আবার একজন প্রবাসী যখন দেশে রওনা হয় তখন তাকে প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র যোগাড়, কোম্পানি বা মালিকের সাথে হিসাব নিকাশ, আত্মীয় স্বজনের জন্য কেনাকাটা, মালামাল কাটুন করা সহ আরও অনেক কাজ তাকে করতে হয়। তার উপর দুরত্ব বেধে ৬ – ৯,কেউ কেউ ২০-২২ ঘন্টা জার্নি করে দেশের মাটিতে পা রাখে । ততোক্ষণে ঐ প্রবাসী ভাইটি বড়ই ক্লান্ত হয়ে পরে,এমতাবস্থায় যখন তার আনিত মালামাল তাকে কাঁধে কিংবা মাথায় তুলে নিতে হয় তখন তার শিশু সন্তানের জন্য আনা শখের খেলনাগুলোও বিরক্তির কারণ হয়ে ধারায়, মায়ের জন্য আনা তসবি আর বাবার জন্য আনা জায়নামাজের বোঝা বইতেও শরীর সায় দেয় না। বউ আর বোনের জন্য আনা কসমেটিক গুলো ইচ্ছে করে ছুড়ে ফেলতে। আর ঐ মূহুর্তে প্রবাসী ভাইটির মনে দেশের প্রতি অনিহা জ্ন্ম নিবে এটাই স্বাভাবিক ।
আমার ভাবতে অবাক লাগে। যে দেশ নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর মতো বিশাল প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে পারে, যে দেশে মেট্রো রেল প্রকল্প বাস্তবায়ন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। সে দেশের প্রধান বিমান বন্দরের ব্যাবস্থাপনা এতো নাজুক হবে কেন ? সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিরা কি করে, চলমান নৈরাজ্য কি তাদের নজরে পরে না ? তারা কি শুধু তাদের আখের গুছানো নিয়ে ব্যস্ত ?

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 69 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com