ভারতীয় বিদ্যুৎনির্ভর হচ্ছে বাংলাদেশ

Print

ভারতীয় বিদ্যুৎনির্ভর হচ্ছে বাংলাদেশ। প্রথম বহরমপুর, এরপর ত্রিপুরার পালাতানা, এখন ঝাড়খণ্ড থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করবে সরকার। কুষ্টিয়া, দক্ষিণ কুমিল্লা এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ এই তিন অঞ্চল দিয়ে বিদ্যুৎ আনা হবে। এই তিন সাইট দিয়ে মোট আমদানি হবে ২ হাজার ৯৯৬ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ, যা জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে। ইতোমধ্যে বহরমপুর থেকে বিদ্যুৎ আমদানি শুরু হয়েছে। ঝাড়খণ্ড দিয়ে আমদানির জন্য ২৮ কিলোমিটার ৪০০ কেভি ডাবল সার্কিট সঞ্চালনলাইন নির্মাণ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এর জন্য ব্যয় হবে ২২৫ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। আগামী মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির সভায় প্রকল্পটি অনুমোদনের জন্য পেশ করা হচ্ছে বলে একনেক সূত্রে জানা গেছে।

বিদ্যুৎ বিভাগের প্রস্তাবনা থেকে জানা গেছে, ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যের গড্ডা জেলায় আদানি পাওয়ার লিমিটেড ২ হাজার ৬০০ মেগাওয়াট কোল ফায়ার্ড থার্মাল পাওয়ার প্ল্যান্ট স্থাপন করছে। ওই প্ল্যান্ট থেকে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ওই বিদ্যুৎ রাজশাহী ও রংপুর অঞ্চলসহ ঢাকার বিদ্যুতের ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণ করবে। পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন একটি প্রকল্পের আওতায় চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহসপুর থেকে বগুড়া পর্যন্ত ১০৪ কিলোমিটার দীর্ঘ ৪০০ কেভি সঞ্চালনলাইন নির্মাণ করা হচ্ছে। বাংলাদেশ ওই গ্রিডের সাথে ভারত থেকে আমদানিকৃত বিদ্যুৎকেন্দ্রের সংযোগ স্থাপন করবে। আর এ জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর ইউনিয়ন থেকে একই জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার মনাকষা ইউনিয়ন (সীমান্তবর্তী) পর্যন্ত ২৮ কিলোমিটার ৪০০ কেভি ডাবল সার্কিট সঞ্চালনলাইন নির্মাণ করতে যাচ্ছে। তিন বছর মেয়াদে এই লাইন নির্মাণ করা হবে। আগামী ২০২১ সালের ডিসেম্বরে প্রকল্পটি সমাপ্ত হওয়ার কথা। প্রকল্পটি চলতি অর্থবছরের এডিপিতে বরাদ্দবিহীন অননুমোদিত প্রকল্পের তালিকায় রয়েছে।

প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, আদানি পাওয়ার (ঝাড়খণ্ড) লিমিটেড (এপিজেএল) থেকে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যাপারে গত ২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড পিজিসিবি এবং ভারতের এপিজেএলের মধ্যে বিদ্যুৎ ক্রয় সম্মতি (পিপিএ) এবং বাস্তবায়ন সম্মতি (আইএ) স্বাক্ষরিত হয়। ওই সম্মতি চুক্তি অনুযায়ী, আগামী ২০২২ সালের জানুয়ারি ওই বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে পাওয়ার ইভেকুয়েশন শুরু করতে হবে। বিদ্যুৎকেন্দ্র চালুর ছয় মাস আগে ব্যাক ফিড পাওয়ার সরবরাহ করতে হবে। ওই লাইনের ফলে জাতীয় গ্রিডে আরো ১৪৯৬ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ করা সম্ভব হবে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 36 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com