ভুল ইকজেকশন পুশ করায় বিয়ানীবাজারের লাজফার্মায় স্বজনদের হট্টগোল

Print

রোগীর শরীরে গত তিন সপ্তাহ থেকে ভুল ইনজেকশন পুশ করার অভিযোগ তুলেছেন স্বজনরা। বিয়ানীবাজারের লাজফার্মায় রোগীকে গত তিন সপ্তাহ থেকে ভুল ইকজেকশন পুশ করার অভিযোগে স্বজনরা আজ সন্ধ্যায় হট্টগোল করেন। এ সময় উত্তেজিত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, বিয়ানীবাজার পৌরসভার এলাকার কসবা গ্রামের আঙ্গুরা বিবিকে লাজফার্মার অনুপ নামের একজন ইনজেকশন পুশ করেন। রোগীকে গত তিন সপ্তাহ থেকে একই ইনজেকশন পুশ করায় তার হাত অবশ হয়ে যায়। এ অবস্থায় আঙ্গুরা বিবিকে হাসপাতালে নেয়া হলে ভুল ইনজেকশন পুশ করার বিষয়টি ধরা পড়ে। এ সময় স্বজনরা উত্তেজিত হয়ে শহরের দক্ষিণ বাজারের লাজফার্মার সামনে জড়ো হলে হট্টগোল ও উত্তেজনা দেখা দেয়। প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বিয়ানীবাজার থানা পুলিশকে অবহিত করলে থানার এসআই সিরাজুল ইসলাম ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

বিয়ানীবাজার থানার এসআই সিরাজুল ইসলাম জানান,রোগীরা স্বজনরা ভুল ইনজেকশন পুশ করায় রোগীর হাত অবশ হওয়ায় ক্ষুদ্ধ স্বজনরা প্রতিষ্ঠানে ছুটে আসে। উভয় পক্ষের সাথে আলোচনা করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছি।রোগীর স্বজনদের বলেছি রোগীকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করতে এবং শারীরিক সমস্যা হলে থানায় অভিযোগ করতে। এ সময় প্রতিষ্ঠানে অনুপ কুমার নামের একজনকে পেয়েছি। ইনজেকশনটি তিনি পুশ করেছেন বলে জানান। তার দাবি ইকজেকশনে কোন ভুল নেই।

প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজারের ঘটনাটি অস্বীকার করে বলেন,আমাদের প্রতিষ্ঠান থেকে এরকম কোন ইনজেকশন কাউকে দেয়া হয়নি। স্থানীয় একটি চক্র দেশের প্রতিষ্ঠিত এ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে চক্রান্তে মেতে উঠেছে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 355 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com