মঙ্গলে এক পাথর ঘিরে রহস্য

Print

যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা মনে করে আগামী ২৫ বছরের মধ্যে তারা মঙ্গলে মানুষ পাঠাতে সক্ষম হবে। তবে এর আগে প্রযুক্তিগত ও স্বাস্থ্যজনিত সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে উঠতে হবে নাসাকে। কারণ, মঙ্গল গ্রহে মানুষ পাঠাতে হলে যে পরিমাণ প্রযুক্তিগত উৎকর্ষ সাধন ও সেখানে থাকাকালীন মানুষের স্বাস্থ্য-সংক্রান্ত সমস্যা মোকাবেলা করতে যে পরিমাণ দক্ষতায় এখনও পোঁছাতে পারেনি মহাকাশ সংস্থাটি।

তবে মঙ্গলে গবেষণা অব্যাহত রেখেছে নাসা। এ গবেষণারই অংশ হিসেবে মঙ্গলে রয়েছে নাসার মহাকাশযান ‘কিউরিওসিটি’। আর সেই কিউরিওসিটির ক্যামেরায় উঠে আসছে লালগ্রহের আশ্চর্য সব তথ্য। তবে এর মধ্যে আলোচনায় এসেছে মঙ্গলের এক উজ্জ্বল পাথর। যাকে বিজ্ঞানীরা বলছেন, ‘গোল্ডেন রক’। একেবারে সামনে থেকে সেই পাথরের ছবি তুলে পৃথিবীতে পাঠিয়েছে ‘কিউরিওসিটি’।

বিজ্ঞানের ভাষা এর এর নাম দেয়া হয়েছে ‘লিটল কলনস’। এটির উজ্জ্বল চেহারা দেখে মনে করা হচ্ছে এটি কোনো উল্কার অংশ। তবে এখনও তার প্রমাণ পাওয়া যায়নি। এজন্য পাথরটি রসায়নের মাধ্যমেই পরীক্ষা করার প্রয়োজন হবে। এতে ব্যবহার করা হবে ‘কিউরিওসিটি’-র কেম ক্যাম। এর মাধ্যমেই দেখা হবে পাথরের আসল চরিত্র।

কেম ক্যাম থেকে লেজার রশ্মি বের হয়। সেই রশ্মি দিয়েই খুঁটিয়ে দেখা হবে ওই পাথর। ক্যামেরায় যা দেখা যায় তার থেকে ১০ গুণ ছোট জিনিসও দেখাতে পারে কেম ক্যাম।

বর্তমানে কিউরিওসিটি মঙ্গলের পাহাড়ি এলাকায় ভেরা রুবিন গিরিশিরায় আছে। সেটি সেখানে একটি ছাই রঙের বেডরক নিয়ে কাজ করছে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 13 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com