মানবদেহে বছরে ৭৩ হাজার অতি ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণা ঢুকছে

Print

মানবদেহে প্রতি বছরে ৭৩ হাজার মাইক্রোপ্লাস্টিক (অতি ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণা) পেটে ঢুকছে। দৈনিক মানুষের শরীরে ঢুকছে গড়ে ২০০টি মাইক্রোপ্লাস্টিক। এ হিসেবে বছরে ৭৩ হাজার প্লাস্টিক কণা পেটে যায়। প্লাস্টিকের ক্ষুদ্র কণার সবচেয়ে বড় উৎস বোতলজাত পানি। প্রতিটি মাইক্রোপ্লাস্টিকের আয়তন পাঁচ মিলিমিটারের চেয়েও ছোট (০.২ ইঞ্চি)। বোতলজাত পানি ছাড়াও সামুদ্রিক মাছের পেটেও পাওয়া যাচ্ছে প্রচুর প্লাস্টিক কণা। গবেষকেরা ইউরোপ, আমেরিকা, এশিয়ার মানুষের ১০ গ্রাম মলের মধ্যে গড়ে ২০টি মাইক্রোপ্লাস্টিক পেয়েছেন।

গবেষণা দলের প্রধান অস্ট্রিয়ার মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটি ড. ফিলিপ স্কোয়াবল ডেইলি মেইলকে (গবেষণাটি ডেইলি মেইলে ২ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত হয়েছে।) বলেন, এ ধরনের গবেষণা এটাই প্রথম। আমরা এর আগে যে সন্দেহ করেছিলাম তাই প্রমাণিত হয়েছে। মানুষের পেটে অতি ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণা ঢুকছে। প্লাস্টিক বর্জ্য, সিনথেটিক ফাইবার, ব্যক্তিগত স্বাস্থ্য সুরক্ষার বস্তু থেকে ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণা হচ্ছে। ড. স্কোয়াবল বললেন, ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণার কারণে মানুষের মধ্যে কী ঝুঁকি তৈরি করতে পারে তা এখনো অজানা। কিন্তু এগুলো থেকে বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থ তৈরি হতে পারে এবং এগুলোর মধ্যে ক্ষুদ্রতর কণাগুলো রক্ত প্রবাহে ঢুকে যেতে পারে। এতে করে মানুষের গ্যাস্ট্রোইন্টেস্টিনাল রোগ হতে পারে। ক্ষুদ্রতর প্লাস্টিক কণাগুলো রক্ত প্রবাহে, লিম্ফেটিক সিস্টেমে এবং এমনকি লিভারেও ঢুকে যেতে পারে।

‘এখন আমাদের কাছে প্রথম প্রমাণটা যা আমরা পেযেছি তা হলো- মানুষের দেহে আমরা অতি ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণা পেয়েছি। এটা নিয়ে আমাদের আরো গবেষণা করতে হবে যে, এসব মানবদেহে কী ধরনের ক্ষতি করতে পারে। ফিনল্যান্ড, ইটালি, দ্য নেদারল্যান্ড, পোল্যান্ড, রাশিয়া ও অস্ট্রিয়া থেকে আটজন স্বেচ্ছাসেবক আমাদের কাছে এসেছেন। তাদের সবার মলেই শতাধিক প্লাস্টিকের কণা পাওয়া গেছে।’ এসব প্লাস্টিকের কণা প্যাকেটজাত খাবার ও পানীয়ের বোতল থেকেই এসেছে, যেগুলো পলিপ্রোপাইলিন অ্যান্ড পলিইথিলিন-টেরেথালেট দিয়ে তৈরি। ড. স্কোয়াবল বলেন, প্রত্যেক স্বেচ্ছাসেবকের ১০ গ্রাম মল থেকে আমরা গড়ে ২০টি করে অতি ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণা পেয়েছি।’ প্রতিটি ব্যক্তি দৈনিক ১০০ গ্রাম মল ত্যাগ করে এবং এতে ২০০টি প্লাস্টিক কণা পাওয়া যায়।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 40 বার)


Print
bdsaradin24.com