যে কারণে প্রিয়া সাহার প্রতি নমনীয় সরকার

Print

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের দেশত্যাগ ও নিপীড়নের মনগড়া তথ্য তুলে ধরে দেশের মানুষের তোপের মুখে পড়েন। মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য দিয়ে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করার দায়ে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি ওঠে। এ বিষয়ে শুরুতে ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষস্থানীয় কয়েকজন নেতা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানালেও পরবর্তীতে প্রিয়া সাহার প্রতি সরকারকে নমনীয় ভূমিকায় দেখা যায়। প্রিয়া সাহার মন্তব্য নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দ্বন্দ্বে এড়াতেই সরকার তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর আয়োজিত ধর্মীয় স্বাধীনতাবিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অংশ নিতে যাওয়া বিভিন্ন দেশের অন্তত ২৭ জন প্রতিনিধিকে গত ১৯ জুলাই তাঁর ওভাল অফিসে ডেকে পাঠান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাঁদের মধ্যে ছিলেন প্রিয়া সাহা। ওই সময় ট্রাম্পকে প্রিয়া সাহা বলেন, আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। সেখানে ৩ কোটি ৭০ লাখ (৩৭ মিলিয়ন) হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান উধাও হয়ে গেছেন।

ভিত্তিহীন ও বানোয়াট অভিযোগ করে প্রিয়া সাহা দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করায় প্রিয়া সাহার বক্তব্যের প্রতিবাদে ও তার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন হয়েছে। এমনকি তাকে নিজ দল ট্রাম্পের কাছে অসত্য অভিযোগ দেয়া প্রিয়া সাহাকে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক পদ থেকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে দেশে ফিরলে তাকে সবধরনের নিরাপত্তা দেওয়া হবে বলে আশ্বাস দেওয়া হয়।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 32 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com