রাজধানীতে মাছ ধরা

Print

মাছ ধরা অনেকের শখ। ঢাকায় বিভিন্ন জলাশয় ও লেকের পাড়ে শৌখিন মাছশিকারিদের দেখা মেলে।

ঢাকা শহরে মাছ ধরা! নেই কোনো খাল, নেই কোনো বিল। তাহলে? কিন্তু যঁাদের শখ মাছ ধরা, তঁারা তো বসে থাকার পাত্র নন। একটু সুযোগ পেলেই তঁারা চলে যান বড়শি নিয়ে। কোথায় যান তঁারা শখের বশে মাছ ধরতে? এ বিষয়ে বাংলাদেশ শেৌখিন মৎস্য শিকার সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক শাহনেওয়াজ ভুঁইয়া জানান, রাজধানীতে এখন ছিপ-বড়শি দিয়ে মাছ ধরার উলে্লখযোগ্য জায়গা হলো ধানমন্ডি লেক, জাতীয় সংসদ ভবন লেক, ঢাকা চিড়িয়াখানা লেক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জহুরুল হক হল পুকুর ও বংশাল পুকুর। এসব জলাশয়ে সূর্যাস্ত থেকে সূর্যোদয় পর্যন্ত মৎস্য শিকারিরা মাছ ধরতে পারেন।

ধানমন্ডি লেক
রাজধানীতে সবচেয়ে বেশি শেৌখিন মৎস্য শিকারির দেখা মেলে ধানমন্ডি লেকে। এখানে লেক ইজারা নিয়ে মাছ শিকার পরিচালনা করছে ধানমন্ডি শেৌখিন মৎস্য শিকারি বহুমুখী সমবায় সমিতি। তাদের কাছ থেকে মাছ ধরার টিকিট কিনে এখানে মাছ ধরা যায়। এক হাজার টাকা দামের একটি টিকিটে এক দিন মাছ ধরা যায়। যোগাযোগ: ০১৭১৫২৯৭৭৫৪

জাতীয় সংসদ ভবন লেক
ঢাকার শেরেবাংলা নগরের জাতীয় সংসদ ভবনের লেকে মাছ ধরতে পারেন শেৌখিন মৎস্য শিকারিরা। এটি পরিচালনা করে এমপি ক্লাব। সংসদ অধিবেশন চলাকালীন সময় ছাড়া প্রতি শুক্র ও শনিবার এখানে মাছ ধরা যায়। এক দিনের জন্য টিকিট খরচ তিন হাজার ১০০ টাকা। যোগাযোগ: ৯১১৯৯৯৪ (এমপি ক্লাব)

ঢাকা চিড়িয়াখানা লেক
ঢাকার মিরপুরের চিড়িয়াখানার লেকে এক হাজার ৫০০ টাকায় এক দিন মেয়াদি টিকিট কিনে মাছ ধরা যায়। রোববার ছাড়া প্রতিদিনই মাছ ধরার সুযোগ আছে। তবে রোববার অন্য কোনো সরকারি ছুটি থাকলে তখনো চিড়িয়াখানা লেকে মাছ ধরার সুযোগ থাকে। ফোন: ৮০৩৫০৩৫

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় জহুরুল হক হল পুকুর
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জহুরুল হক হলের পুকুরে শুধু শুক্রবার মাছ ধরা যায়। টিকিটের দাম দুই থেকে তিন হাজার টাকা। যোগাযোগ: জহুরুল হক চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারী সমিতি।

ঢাকার নবাববাড়ির পুকুর
ঢাকার নবাববাড়ির পুকুর, যেটি গোলতালাব নামেও পরিচিত, সেখানে মাছ ধরা যায়। তবে বছরের নির্দষ্টি সময়ে প্রতিবছর রমজান মাসের আগের আট সপ্তাহ মাছ ধরা যায়। দুই মাসের জন্য সাড়ে তিন হাজার টাকায় প্যাকেজ টিকিট কিনতে হয়। যোগাযোগ: গোলতালাব, আহসান মঞ্জিল, ইসলামপুর, ঢাকা।

বংশাল পুকুর
পুরান ঢাকার বংশাল পুকুরে বছরের নির্দষ্টি সময়েই শুধু মাছ ধরার সুযোগ পাওয়া যায়।
এ ছাড়া ঢাকার গুলশান লেক, খিলক্ষেতসহ বিভিন্ন জলাশয়ে শেৌখিন মাছশিকারিদের দেখা মেলে। নারায়ণগঞ্জের সোনারগঁাওয়ের লোকশিল্প জাদুঘরের পুকুরেও মাছ ধরার সুযোগ আছে।

উপকরণের খঁোজখবর
ঢাকার বিজয়নগর, কলাবাগান, ফকিরাপুল, গুলশান, বাড্ডার নতুন বাজার, মিরপুর চিড়িয়াখানা রোড, খিলক্ষেত ও বিমানবন্দর এলাকায় মাছ শিকারের নানা ধরনের দেশি-বিদেশি উপকরণ পাওয়া যায়। কলাবাগানের হাসান অ্যাংল্যার্সের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ হাসান বলেন, Èবাজারে মাছ ধরার বিভিন্ন ধরনের ছিপ, বড়শি, হুইল, সুতা ইত্যাদি উপকরণ পাওয়া যায়। বিভিন্ন বর্্যান্ডের দেশি-বিদেশি এসব উপকরণের দামও ভিন্ন।’ রাজধানীর বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে দেখা গেছে, দেশি-বিদেশি ছিপ পাওয়া যায় ২০০ থেকে শুরু করে চার হাজার টাকা পর্যন্ত। ছিপের সঙ্গে হুইলের দাম ২০০ থেকে এক হাজার ১০০ টাকা, বড়শি পাবেন ৪০ থেকে ৮০ টাকায় দশটি। মাছের খাবার পঁিপড়ার ডিমের দাম কেজিপ্রতি ৩০০ টাকা, পাউরুটির খামিরের দাম ৩০ টাকা। ফিশিং লাইন বা সুতার দাম প্রতি প্যাকেট ৫১ থেকে ৩০০ টাকা।
শেৌখিন মাছ শিকারের নানা বিষয় সম্পর্কে বাংলাদেশ শেৌখিন মৎস্য শিকার সমিতির কাছে খঁোজ নিতে পারেন। রাজধানীর বিভিন্ন জলাশয় এবং মাছ ধরার নানা উপকরণের মান ও দাম সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারেন তাদের কাছে।
যোগাযোগ: ৯৩৫২৫৬১

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 42 বার)


Print
bdsaradin24.com