রাজপথে আবারো আন্দোলনে নামছে বিরোধীজোট

Print

বিভিন্ন ইস্যুতে আবারও রাস্তায় নামছে বিরোধী রাজনৈতিক জোট। রাজনৈতিক নেতাদের কথায় এমনই ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। ইস্যুগুলোর মধ্যে অন্যতম বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে আন্দোলন জোরদার করা।

এছাড়া সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের পরপরই বিএনপি আবারো সরাসরি ভারত বিরোধিতায় নেমেছে। তারা বলেছে, এলপিজি গ্যাস রপ্তানির মাধ্যমে শেখ হাসিনা ভারতের কাছে দেশ বিক্রি করে দিয়েছেন।

মওদুদ আহমদ :

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেছেন, বর্তমান সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরাতে তাঁদের আর কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে এবং এরপর গণবিস্ফোরণ ঘটবে। দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোয় সরকারি দলের ছাত্রদের টর্চার সেল রয়েছে বলে দাবি করেন মওদুদ। ২০দলীয় জোটের উদ্যোগে বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদের স্মরণে ১৫ অক্টোবর এক আলোচনা সভায় মওদুদ আহমদ এসব কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার মুক্তি প্যারোলে বা আইনি প্রক্রিয়ায় না হয়ে রাজপথের আন্দোলনের মাধ্যমে হবে উল্লেখ করে মওদুদ আহমদ বলেন, ‘অনেকে মনে করেন আর কত দিন। এত দিন তো সহ্য করেছি। আমাদের আরও কিছুদিন সহ্য করতে হবে। কিন্তু সময় আসবে। এমন একটি সময় আসবে, যখন এ দেশের এই জালেম সরকারকে উৎখাত করার জন্য বা অপসারণ করবার জন্য গণবিস্ফোরণ ঘটবে বলে আমি মনে করি।’

মাহমুদুর রহমান মান্না:

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, বিফল বা ব্যর্থ বলা যাবে না, কারণ ঐক্যফ্রন্ট হবার পরে সাধারণ মানুষের মধ্যে যে সাড়া আমরা পেয়েছিলাম তা অভূতপূর্ব সাড়া ছিল। এমনটা আমি আমার রাজনীতির জীবনে কখনও দেখি নাই। তবে গণআন্দোলন গড়ে তোলার ক্ষেত্রে আমরা আরও দৃঢ় হতে পারতাম কিনা অথবা জনগনকে আরও বেশি সংগঠিত করা সম্ভব ছিল কিনা তা নিয়ে একটা বিতর্ক রয়ে গেছে। মান্না বলছেন, সামনের দিনগুলোতে আন্দোলন সংগ্রামে জনগণের সম্পৃক্ততা আরো বাড়ানো হবে।

ইকবাল হাসান মাহমুদ:

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেছেন, উনি যা চাইবেন তাই হবে এটাতো হতে পারে না। ৩০শে ডিসেম্বর নির্বাচনে বিরোধীদল কিন্তু কিছুই হারায় নাই বরঞ্চ আওয়ামীলীগ সব হারিয়েছে। এই অবক্ষয় কতক্ষন মানুষ মেনে নিবে। মানুষ রাস্তায় নামবে। এটা এখন শুধু সময়ের ব্যাপার।

ড. কামাল হোসেন :

গণফোরামের সভাপতি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন বলেছেন, ‘আবরারকে যারা হত্যা করল, এরা কার আদর্শের অনুসারী? যিনি দেশ শাসন করছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নাম উল্লেখ না করে তার উদ্দেশে বলেন, ‘এই আপনার (প্রধানমন্ত্রী) আদর্শ? তা-ই যদি হয়ে থাকে, আপনার তো এক মুহূর্ত ক্ষমতায় থাকা উচিত না।’ তিনি আরও বলেন, ‘সবার চাওয়া প্রধানমন্ত্রী যেন দেশ শাসন করা থেকে সরে দাঁড়ান।’ সন্ত্রাসকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেওয়া হচ্ছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘আবরার কী অন্যায় করেছিল! এটা সংবিধানের ওপর আঘাত।’ ১৪ অক্টোবর জাতীয় প্রেসক্লাবে আবরার হত্যার প্রতিবাদে নাগরিক সভা ও শোক র‌্যালির আয়োজনে কামাল হোসেন এসব কথা বলেন।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 54 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com