লজ্জার হার বাংলাদেশের

Print

আবারও লজ্জার হার বাংলাদেশের। আফগানিস্তানের দেয়া ১৬৫ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে ২৫ রানের হার স্বাগতিকদের। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত এ সংস্করণে ২৫ রানের হার বড় হারই বলা চলে। প্রতিদিনের মত আজও ক্রিকেট শিখতে নেমেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। ১৯.৫ ওভারে সব ক’টি উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১৩৯ রান।

কোন রানের খাতা খোলার আগে সাজঘরে লিটন দাস। প্রথমবারের মতো ওপেনিংয়ে নেমে কিছুই করতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। ১৫ রান করা অধিনায়কও ফিরেছেন দলকে বিপদে রেখে। ডাক মেরেছেন সৌম্য সরকারও। ৩২ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে তখন ধুকছে বাংলাদেশ।

মাহমুদউল্লাহ-সাব্বির দুজনে টেনে তোলার টেষ্টা করলেও তা জয়ের জন্য যথেস্ট ছিলো না। তাদের রান তোলা মোটেও টি-টোয়েন্টি স্টাইলে হয়নি। ওয়ানডে স্টাইলে রান তুলে ব্যক্তিগত ৪৪ রান করে ফিরেছেন মাহমুদউল্লাহ। সাব্বির রহমান যখন বিদায় নিলেন, তখন দলীয় রান ৯৫। তখনই বোঝা ম্যাচের গতিবিধি বোঝা গেছে।

টেল এন্ডাররাও এদিন ভালো কিছু করতে পারেননি। প্রথম ম্যাচে জয়ের নায়ক আফিফ হোসেন আজ ফিরেছেন ১৬ রান করে। মোসাদ্দেক-সাইফউদ্দিনরা যখন ব্যাট করতে নেমেছেন , তখন জয় ছিলো প্রায় অসম্ভব। মোসাদ্দেক-সাইফউদ্দিনের বিদায়ে আফগানদের জয়ের অপেক্ষা কমেছে। মোস্তাফিজুর রহমানের ১৫ রানের ইনিংস ব্যবধান কমিয়েছে। ১ বল হাতে রেখেই ১৩৯ রানে অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ।

আফগানদের পক্ষে মজিবুর রহমান ৪, রশিদ খান ২, গুলবাদিন নাইব ২ ও ফরিদ মালিক ১টি করে উইকেট নিয়েছেন।

এর আগে শুরুটা ছিলো টাইগার বোলাদের। সাইফ-সাকিব তোপে ১৯ রানেই নেই ৩ উইকেট। টাইগারভক্তরা অল্প রানে গুটিয়ে আশা দেখলেও বাধ সাধে মোহাম্মাদ নবী-আসগর আফগান। মোহাম্মাদ নবীর ৮৪ ও আসগর আফগানের ৪০ রানের ইনিংসে ভর করে ১৬৪ রান সংগ্রহ করে আফগানিস্তান। ফলে বাংলাদেশের জিততে হলে করতে হবে ১৬৫ রান।

রবিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) মিরপুরে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই চাপে পড়েছিল আফগানিস্তান। শুরুটা করেন সাইফউদ্দিন। ইনিংসের প্রথম বলেই বোল্ড হয়ে বিদায় নেন রহমাতুল্লাহ গুরবাজ। পরের ওভারেই আঘাত হানেন টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তিনি আফগান ওপেনার হযরতুল্লাহ জাজাইকে ক্যাচে পরিণত করেন। পরের আঘাত হানেন সাইফউদ্দিন। এবার তার শিকার নাজিব তারাকাই। বিদায়ের আগে তিনি করেন ১১ রান। এরপর ৫ রান করা নাবিবুল্লাহ জাদরানকে ফেরান অধিনায়ক সাকিব।

সেখান থেকে বড় এক জুটি মোহাম্মদ নবী আর আসগরের। ৫৩ রানেই এই জুটিটি আটকে যেতে পারতো। তাইজুল ইসলামকে তুলে মারতে গিয়ে বাউন্ডারিতে ক্যাচ হয়েছিলেন নবী, তিনি তখন ৩০ রানে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে ওভারস্টেপিংয়ের কারণে সেই বলটি ‘নো’ হয়ে যায়।

নবী-আফগানের এই জুটিটিই ঘাম ঝরিয়েছে টাইগারদের। ৬২ বলে ৭৮ রান যোগ করেন তারা। কিছুতেই কিছু হচ্ছিল না। ১৭তম ওভারে আবারও সাইফউদ্দীনের হাতে বল তুলে দেন সাকিব।

আর বল হাতে নিয়েই আরেকবার ঝলক দেখান এই অলরাউন্ডার। ৩৫ বলে ৪০ রান করা আসগরকে সাব্বিরের ক্যাচ বানান দ্বিতীয় বলে, পঞ্চম বলে দুর্দান্ত এক ইনসুইংগারে বোল্ড করেন গুলবাদিন নাইবকে (০)।

বাংলাদেশের পক্ষে বল হাতে সবচেয়ে সফল সাইফউদ্দীন। প্রথম তিন ওভারে ১৬ রান দিয়ে ৪ উইকেট নিলেও অবশ্য শেষ ওভারের ১৭ রান খরচায় মোট দিয়েছেন ৩৩। ৪ ওভারে ১৮ রান দিয়ে ২টি উইকেট নেন সাকিব।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 39 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com