শাস্ত্রীই তাহলে ভারতের যোগ্য কোচ

Print

বিরাট কোহলিদের নতুন কোচ খুঁজছে ভারত। এদিকে সংবাদমাধ্যমে গুঞ্জন, বর্তমান হেড কোচ রবি শাস্ত্রীর মেয়াদ আরও দুই বছর বাড়ানো হবে। কোহলিদের সামলাতে শাস্ত্রী আর যাই হোক অযোগ্য কেউ নন

বিসিসিআই বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ক্রিকেট বোর্ড। এমন বোর্ডের দলের কোচ হতে কে না চায়! আবেদনপত্র জমা পড়ার সংখ্যা (২০০০) সে কথাই বলছে। বিরাট কোহলিদের কোচ হওয়ার এ দৌড়ে কেউ চাচ্ছেন নতুন কোচ, কেউ আবার রবি শাস্ত্রীর ওপরেই আস্থা রাখছেন। সংবাদমাধ্যমের ভাষ্য, কোচ হওয়ার দৌড়ে শাস্ত্রীই টিকে যেতে পারেন। তাঁর মেয়াদ দুই বছরের জন্য বাড়ানো হতে পারে। পুরস্কারটি শাস্ত্রী পেলে সেটি কিন্তু যোগ্যতার বলেই।

স্বয়ং অধিনায়ক সমর্থন দিচ্ছেন শাস্ত্রীকে। ‘সিএসি (ক্রিকেট অ্যাডভাইজরি কমিটি) আমার সঙ্গে এখনো যোগাযোগ করেনি। তাঁরা মতামত চাইলে বলব, রবি ভাইয়ের সঙ্গে আমাদের পারস্পরিক বোঝাপড়া খুব ভালো। সে চালিয়ে গেলে অবশ্যই খুশি হব। কিন্তু আমার সঙ্গে কেউ এখনো যোগাযোগ করেনি’—ওয়েস্ট ইন্ডিজের উদ্দেশে উড়াল দেওয়ার আগে এ কথাগুলো বলেছিলেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

আগেই জানা গেছে, এবার ভারতের কোচ নির্বাচনে অধিনায়কের পছন্দ-অপছন্দ প্রাধান্য দেবে না সিএসি। সে হিসেবে শাস্ত্রীর জন্য কোহলির সুপারিশ হয়তো কোনো কাজে আসবে না। তবে চাইলেই অধিনায়কের কথা একেবারে ফেলেও দেওয়া যায় না। একটি দেশের ক্রিকেট কোন পথে যাচ্ছে, কী তার ভবিষ্যৎ—এসব নির্ধারণে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দুটি পদ জাতীয় দলের অধিনায়ক ও কোচ। দুজনের মধ্যে মনের মিল থাকলে তা কিন্তু ওই দেশের ক্রিকেটের জন্যই ইতিবাচক। সিএসির কমিটিতে থাকা সাবেক তিন ক্রিকেটারের (কপিল দেব, অংশুমান গায়কোয়ার ও শান্তা রঙ্গস্বামী) নিশ্চয়ই তা অজানা নয়।

হ্যাঁ, এ কথা সত্য, স্বয়ং ভারতের ক্রিকেট মহল থেকে ক্রিকেটপ্রেমীদের মধ্যে শাস্ত্রীকে নিয়ে বিরক্তিও আছে। সাবেক ক্রিকেটারদের মধ্য থেকে মাঝে-মধ্যেই শাস্ত্রীর বিপক্ষে আওয়াজ তোলা হয়। আর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও সমর্থকদের নিয়মিত ‘ট্রল’-এর খোরাক শাস্ত্রী। ভারত কোনো সিরিজ বা টুর্নামেন্টে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলে বিষয়টি ভালোই টের পাওয়া যায়। দোষটা যে শুধু একপক্ষের তাও নয়। বেফাঁস কথা বলতেও ভালোই পারেন শাস্ত্রী। এর আগে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে সিরিজ জয়কে বিশ্বকাপ জয়ের চেয়েও এগিয়ে রেখে বিতর্ক কুড়িয়েছিলেন সাবেক এ ক্রিকেটার।

তবে শুধু ভালো সম্পর্কের খাতিরে শাস্ত্রীকে সমর্থন দিয়ে যাওয়ার মতো অ-ক্রিকেটীয় মানসিকতা নেই কোহলির। গত বছরের শুরু থেকেই শাস্ত্রীকে গোচরে-অগোচরে সমর্থন দিচ্ছেন কোহলি। ২০১৭ সালের জুলাইয়ে ভারতের হেড কোচের দায়িত্ব পান শাস্ত্রী। এরপর তাঁর অধীনে টানা পাঁচ ওয়ানডে সিরিজ জিতেছে ভারত। যার মধ্যে জয় রয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতেও। গত বছর ইংল্যান্ডের মাটিতে অল্পের জন্য ওয়ানডে সিরিজ হার এড়াতে পারেনি ভারত। এ ছাড়া অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের মাটিতেও ওয়ানডে সিরিজ জিতেছে শাস্ত্রী অ্যান্ড কোহলি কোং।

সে তুলনায় টেস্টে কিছুটা ম্রিয়মাণ কোচ শাস্ত্রী। দক্ষিণ আফ্রিকায় ২-১ ব্যবধানে ও ইংল্যান্ডে ৪-১ ব্যবধানের সিরিজ হারলেও অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে গত ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে টেস্ট সিরিজে ঐতিহাসিক জয় পেয়েছে তাঁর শিষ্যরা। পরিসংখ্যানই বলছে, ভারতের হয়ে ক্রিকেটে শাস্ত্রীর পছন্দের রং সাদা নয় নীল।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 19 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com