শীর্ষ মডেল থেকে রাস্তার ভিক্ষুক-দেহব্যবসায়ী!

Print

৯০-এর দশকে ভারতের প্রথম সারির মডেলদের মধ্যে আলোচিত নাম গীতাঞ্জলি নাগপাল। ক্যারিয়ারের সুবর্ণ সময়ে তার রূপের চর্চা চলত বলিউডের অলি-গলিতে। জনপ্রিয় অভিনেত্রী মাধুরী দীক্ষিতের সঙ্গে তার তুলনা করা হতো। নামজাদা ডিজাইনার থেকে ফটোগ্রাফার-প্রায় সবার সঙ্গেই কাজ করেছেন গীতাঞ্জলি নাগপাল। গ্ল্যামার জগতের চাকচিক্যে চোখ ধাঁধিয়ে গেলেও শেষ জীবনে নেমে আসে অন্ধকার। আর সেই অন্ধকারেই হারিয়ে যাওয়া এক জীবনের উদাহরণ গীতাঞ্জলি।

ভারতীয় গণমাধ্যমের খবর, দিল্লির লেডি শ্রীরাম কলেজ থেকে পাশ করা গীতাঞ্জলি মডেলিং শুরুর প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই সাফল্যের শিখরে পৌঁছে যান। সাবেক বিশ্ব সুন্দরী সুস্মিতা সেনের মতো অভিনেত্রীদের সঙ্গে র‌্যাম্পে হেঁটেছেন তিনি। কিন্তু শীর্ষ মডেল থাকা অবস্থায় জড়িয়ে পড়েন মাদকের জালে। সে সময় নিজের কাজের থেকেও নেশার জন্যই খবরের শিরোনামে থাকতেন তিনি। এরপর পরিবারের অমতে বিয়ে করেন রবার্ট নামের এক জার্মান নাগরিককে। তবে কিছুদিনের মধ্যেই সেই বিয়ে ভেঙে যায়। এরপর এক ব্রিটিশ নাগরিকের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন। সেই সম্পর্কে থাকাকালীনই গীতাঞ্জলি মডেলিং থেকে দূরে সরে যান। বেশ কয়েকবছর পর ২০০৭ সালে এক ফটোগ্রাফার তাকে দিল্লির রাস্তায় ভিক্ষা করতে দেখেন। দিল্লির মহিলা কমিশন তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান এবং তার দেখভালের দায়িত্ব নেন। প্রাথমিক চিকিৎসার পর গীতাঞ্জলির ঠাঁই হয় ‘বিদ্যাসাগর ইন্সটিটিউট অব নিউরো সায়েন্সে’।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 71 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com