সপ্তাহ জুড়ে সারাবেলা,কৈশোর-বান্ধব সেবা কেন্দ্র থাকুক খোলা

Print

কৈশোর বান্ধব সেবা কেন্দ্র ‘ অর্থাৎ কিশোর-কিশোরীদের কৈশোরকালের শারীরিক সমস্যাগুলার সমাধান দেয়া হয় যে কেন্দ্রে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সংজ্ঞা অনুযায়ী ১০-১৯ বছর বয়সী দের কিশোর-কিশোরী বলা হয় এরা বয়ঃসন্ধিকালে পদার্পণের পর নানা ধরণের যে শারীরিক পরিবর্তন ঘটে সেগুলার জন্য বিভিন্ন ধরনের শারীরিক জটিলতাও তৈরি হয় সেগুলো সমাধানের জন্য কৈশোর বান্ধব সেবা কেন্দ্র চালু করা হয়েছে যা বর্তমানে গ্রামীন পর্যায় পর্যন্ত পৌছে গেছে।এছাড়াও এসব সেবা কেন্দ্রে কিশোর-কিশোরীরা এসে বিভিন্ন বিষয়ে জানতে পারে এবং সমস্যার সমাধান করে, কৈশোরকালীন খাদ্যাভ্যাস ,কিশোরদের বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার সমাধান, কিশোরীদের আয়রন ট্যাবলেট খাওয়ার নিয়ম, মাসিককালীন পরিচর্যা, শারীরিক পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, জানাসহ নানা বিষয়ে সেবা পাচ্ছে।
বাংলাদেশের প্রায় ৬০৩ টি কৈশোর বান্ধব সেবাকেন্দ্র চালু রয়েছে যার সময়সীমা দেয়া আছে সকাল ৯ টা দুপুর ৩ টা পর্যন্ত, কিন্তু এক্ষেত্রে প্রধান যে সমস্যা তা হলো এসময়ে কিশোর -কিশোরীরা তাদের স্কুল,কলেজ নিয়ে ব্যস্ত থাকে যা তাদের সেবা নেওয়া থেকে বঞ্চিত করছে। এমনিতেই আমাদের সমাজে প্রজনন স্বাস্থ্য নিয়ে কথা বলা একটা ট্যাবু, আবার অনেক সেবা কেন্দ্র গোপনীয়তা বজায় রাখা নিয়ে রয়েছে সংশয় এবং কিশোর-কিশোরীদের আলাদা করে বসবার জায়গাতেও রয়েছে সংকট ৷ সব মিলিয়ে দেখা যায় যে আমাদের দেশের কিছু সেবাকেন্দ্রে সেবাপ্রদানকারীরা তাদের সুচিন্তিত কিছু কৌশল অবলম্বনের মাধ্যমে সেবাগ্রহীতার সেবা নিশ্চিত করছে এবং গোপনীয়তা বজায় রাখছে আবার অনেক জায়গায় সেবাকেন্দ্রগুলোতে সেবাগ্রহীতার দেখাই মেলেনা।
সুতরাং দেশের এই তরুণ সমাজের কৈশোরকালীন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে বিনীত নিবেদন জানাই যে তাঁরা যেন কৈশোর বান্ধব সেবা কেন্দ্রগুলোতে কিশোর -কিশোরীদের স্বাস্থ্যসেবার পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্য নিয়েও কাজ করেন, কেননা মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করার বিশাল প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছি। কৈশোর অবস্থায় শারীরিক যে পরিবর্তন ঘটে এতে অনেকে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে তখন তার শারীরিক সুস্থতার আগে মানসিক সুস্থ হওয়াটা জরুরী। এদিকে কিশোর-কিশোরীদের অভিভাবকদেরও মানসিক কাউন্সিলিংয়ের মাধ্যমে সমাজের প্রজননে স্বাস্থ্য নিয়ে কথা বলার ট্যাবু ভেঙ্গে ফেলা সম্ভব বলেই মনে করছি। পাশাপাশি অবশ্যই কৈশোর বান্ধব সেবাকেন্দ্রগুলে সপ্তাহে ৭ দিন সারাবেলা খোলা রাখার নীতিমালা প্রণয়ন করা জরুরি। আর তাই আমাদের তরুণদের স্লোগান হওয়া দরকার ‘সপ্তাহ জুড়ে সরাবেলা, কৈশোর – বান্ধব সেবা কেন্দ্র থাকুক খোলা’।

লেখকঃ

অপূর্ব কৃষ্ণ রায়
সিরাক-বাংলাদেশ,
রংপুর বিভাগীয় সমন্বয়ক

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 98 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ