সরকারি উৎপাদন বন্ধ রেখে ঝোঁক বিদেশ, বেসরকারিতে!

Print

দেশের একমাত্র সরকারি রেল স্লিপার কারখানাটি বিভিন্ন জেলার রেলপথের মতোই জীর্ণ-দীর্ণ। প্রায় তিন দশক বয়সী ‘ছাতক কংক্রিট স্লিপার কারখানা’য় তিন মাস ধরে উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। মিটারগেজ রেলপথের নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণের জন্য এই কারখানায় উৎপাদিত স্লিপার ব্যবহার করা হয়ে আসছে। অভিযোগ আছে, ভারত ও চীন থেকে স্লিপার আমদানি এবং বেসরকারি দুটি কারখানার কংক্রিট স্লিপার বাণিজ্য টিকিয়ে রাখতেই প্রতিবছর একাধিকবার বন্ধ রাখা হচ্ছে কারখানাটি। বিভিন্ন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে রেলওয়ের কিছু কর্মকর্তার যোগসাজশে তা হচ্ছে। তবে প্রকাশ্যে বলা হচ্ছে, দরপত্র আহ্বানে বিলম্ব, কাঁচামাল সংকটের কারণে কারখানাটির উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে।

রেলপথ মন্ত্রণালয় এ কারখানা সংস্কার করে আধুনিকায়ন ও সক্ষমতা বাড়াতে এবং পশ্চিমাঞ্চলে নতুন কংক্রিট স্লিপার কারখানা স্থাপনের পরিকল্পনা করেছে। গত বছরের জুনে রেলসচিব মোফাজ্জেল হোসেন এ কারখানায় গিয়ে অবস্থা দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন, কিন্তু অবস্থার উন্নয়ন ঘটেনি এক বছরেও। গত সপ্তাহে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কারখানাটি বন্ধ। ছাতক উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান বললেন, ‘সরকারি কারখানাটি লুটপাটে বন্ধ হয়ে গেছে।’

বাংলাদেশ রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, ১৯৮৬ সালে ১২ কোটি ২১ লাখ টাকায় ছাতক রেলস্টেশনের কাছে ছয় একর জমির ওপর কংক্রিট স্লিপার কারখানাটি স্থাপন করে রেলওয়ে। ১৯৮৮ সালের মে থেকে পরীক্ষামূলকভাবে এবং পরে ২৭ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে উৎপাদন শুরু হয়। বছরে ২৪০ কোটি টাকা দামের স্লিপার উৎপাদনের সক্ষমতা আছে কারখানাটির। প্রধান কাঁচামাল ইস্পাতের রড ও পাত আমদানি করা হয় ভারত থেকে। তার সঙ্গে ছাতক সিমেন্ট কারখানার বিশেষ সিমেন্ট ও পাশের ভোলাগঞ্জের পাথর, বালু ব্যবহার করে তৈরি করা হতো উন্নত মানের স্লিপার। প্রথম ২৫ বছরে কাঁচামাল সংকটে পড়ে বছরে একাধিকবার বন্ধ হয় কারখানা। ছয় বছর আগে বেসরকারি দুটি কারখানার কংক্রিট স্লিপার এবং এ সরকারি কারখানার স্লিপার নিয়ে পরীক্ষা করে দেখা গেছে, বেসরকারি কারখানার স্লিপারগুলো নিম্নমানের।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 30 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com