সাফল্য-ব্যর্থতায় আওয়ামী লীগ

Print

আজ ২৩ জুন। নানা ঘাত-প্রতিঘাত, চড়াই-উৎরাইয়ের মধ্য দিয়ে সত্তর পেরিয়ে একাত্তর বছরে পা রাখছে আওয়ামী লীগ। ১৯৪৯ সালের এই দিনে পুরান ঢাকার কেএম দাস লেন রোডের রোজ গার্ডেন প্যালেসে প্রতিষ্ঠা লাভ করে বৃহৎ এই রাজনৈতিক দলটি। দীর্ঘ পথচলায় দলটির যেমন অনেক বড় বড় সফলতা রয়েছে, তেমনি আছে কিছু ব্যর্থতাও। অবশ্য কিছু বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের কারণে সফলতাগুলো অনেকটা চাপা পড়ে যাচ্ছে।

প্রতিষ্ঠার ৭০ বছরের ইতিহাসে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, ’৬৬ সালের ছয় দফা, ঊনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান, একাত্তরের স্বাধীনতা সংগ্রামসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের অর্জন চোখে পড়ার মতো। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে বঙ্গবন্ধু নিহত হওয়ার টানা ২১ বছর পর অনেক ত্যাগ-তিতীক্ষার বিনিময়ে ৯৬ সালে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। সরকার গঠনের পরেই এই দল পার্বত্য শান্তিচুক্তি সম্পাদন করতে সক্ষম হয়। এ ছাড়াও ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়লাভ করার পর থেকে আজ অবধি শাসনভার আওয়ামী লীগের হাতেই রয়েছে। টানা তিনবার রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকাটা আওয়ামী লীগের একটি বড় অর্জন এবং বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি রেকর্ডও বটে। এই সময়ের মধ্যে মিয়ানমার ও ভারত থেকে সমুদ্র বিজয়, ভারতের সাথে ঐতিহাসিক ছিটমহল বিনিময় চুক্তি, মেগা প্রজেক্ট পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজে ব্যাপক অগ্রগতিসহ নানা সফলতা রয়েছে। তবে এই সফলতার পাশাপাশি এমন কিছু বিতর্কিত কর্মকাণ্ড রয়েছে, যা অর্জনগুলোকে করে দিচ্ছে বলে মনে করেন দেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা।

তাদের মতে, ভারতের সাথে তিস্তা চুক্তির এখনো কোনো সমাধান হয়নি। দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি সাধিত হলেও গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পায়নি। মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকারের কথা আওয়ামী লীগই বেশি বলে; কিন্তু সেই আওয়ামী লীগ সরকারে থাকাবস্থায় দেশের জনগণ ভোটবিমুখ হয়ে পড়েছেন। পাকিস্তানের শোষণ-নির্যাতন ও বৈষম্যের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে এ দেশের মানুষ জ্বলে উঠেছিলেন। দেশ স্বাধীন হয়েছে ঠিকই, কিন্তু সত্যিকারের সেই স্বাধীনতা আজো দেশের মানুষ পায়নি। ধনী-গরিবের বৈষম্য রয়ে গেছে। ধনিক শ্রেণী আরো ধনী হচ্ছে, গরিব মানুষ হচ্ছে আরো গরীব। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ঠিকই, কিন্তু মানুষের জীবনযাত্রার মান সে অর্থে উন্নতি লাভ করেনি। মারামারি, হানাহানি, প্রতিহিংসার রাজনীতি, গুম-খুন অপহরণ নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। দুর্নীতিতে ছেয়ে গেছে দেশ, সমাজে মাদকের সয়লাব বয়ে গেছে, প্রতিনিয়ত নারী-শিশুরা ধর্ষিত হচ্ছে। বিচারহীনতার সংস্কৃতিতে সামাজিক অবক্ষয় বেড়েছে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 24 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com