সাভার উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন-সম্পাদক হিসাবে সিরাজ শিকদারকে চাচ্ছেন এলাকাবাসী

Print
খোরশেদ আলম,  ঢাকাঃ জেলা প্রতিনিধি
সারা দেশে ক্ষমতাসীন আওযামীলীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের বিভিন্ন নেতাকর্মীর কর্মকান্ডে দলটি যখন বিব্রত ঠিক তখনই রাজধানী ঢাকার নিকটবর্তী আশুলিয়ার ইয়ারপুরে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে পরিচ্ছন্ন ইমেজ নিয়ে দলের সিনিয়র নেতা থেকে শুরু করে জনসাধারনের মনে ঠায় করে নিয়েছেন সিরাজুল ইসলাম শিকদার @ সিরাজ শিকদার।
সরেজমিনে এলাকা ঘুরে দেখা যায়, ১৯৯৬ সালের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে কয়েক হাজার নেতাকর্মী নিয়ে আওয়ামীলীগের যোগদানের পর থেকেই আশুলিয়া থানাধীন ইয়ারপুর ইউনিয়নের এক সময়ের যুবলীগ ও পরে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে সর্বস্তরের মানুষের মন জয় করে নিয়েছেন সিরাজ শিকদার। এস্থানীয়ভাবে তিনি দলের নতোকর্মীদের নিয়ে জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন কর্মকান্ড দূর্নীতিমুক্ত রাখতে নিজ উদ্যোগেই এলাকাবাসীকে নিয়ে সংস্কার করতে থাকেন বিভিন্ন রাস্তা-ঘাট। মাদক নির্মূলেও তরুনদের সঙ্গে নিয়ে পাড়া-মহল্লায় উঠতি বয়সের যুবকদের মাদকের কুফল সম্পর্কে সচেতন করেন।
তার রাজনৈতিক কর্মকান্ড পর্যালোচনা করে দেখা যায়, বিগত জামায়াত-বিএনপি’র সরকারের বিভিন্ন গনবিরোধী আন্দোলন-সংগ্রামে আওয়ামীলীগ ও যুবলীগের নেতাদের সাথে একসাথে কাজ করেছেন। আওয়ামীলীগের প্রতিনিটি কর্মসূচীতেই রাজপথসহ বিচরণ করেছেন ইউনিয়নের সর্বত্র। এমনকি তৎকালীন জামায়াতা-বিএনপি সরকারের স্থানীয় এমপি লোষানলে পড়ে শিকার হয়েছেন বিভিন্ন মামলার।
বারবার মামলা-হামলার শিকার এই নেতা বলেন, আমি জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতেই জাতীয় পার্টির কয়েক হাজার নেতাকর্মী নিয়ে আওয়ামীলীগে যোগদানের পর ১৯৯৮ সালে সাভার উপজেলা যুবলীগের আহŸায়ক কমিটির কার্যকরী সদস্য, ২০০২ সালে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সদস্য ও ২০১৪ সালে ইয়রপুর ইউনিয়ন কমিটির সদস্য নির্বাচিত করেন নেতাকর্মীগন। বর্তমানে মুক্তিযোদ্ধা লীগের সাভার উপজেলার কমিটির সভাপতি ও ঢাকা জেলা কমিটির সহ-সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছি।
আগামী দিনে আমাকে সাভার উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বভার পদান করলে, আমি সততার সাথে পালন করার চেষ্টা করবো। যেখানেই ¯^াধীনতা বিরোধী শক্তি বাধা হয়ে দাড়াবে, সেখান থেকেই প্রতিরোধ ও প্রতিবাদ শুরু করবো।
১/১১ এর পর ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগে অত্র ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ ও এর বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের একত্রে নিয়ে আসার জন্য আমি কাজ করেছি। আওয়ামীলীগের তৎকালীন নেতাদের ডাকে রাজপথে যেমন ছিলাম এখনো তেমনই আছি। ২০১৩ সালের শেষ দিকে বিএনপি-জামায়াতের লাগাতার ইস্যুবিহীন, জনগনের সর্মথনহীন আন্দোলনের প্রতিবাদে দিনের পর দিন কর্মীদের নিয়ে আশুলিয়ার রাজপথ দখলে রেখেছি। বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলন শেখ হাসিনার উন্নয়ন বিরোধী আন্দোলন একথা ইয়ারপুরের শ্রমিক থেকে শুরু করে সাধারন মানুষকে বুঝিয়েছি। ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতির ছোট ভাই দেওয়ান মইন উদ্দিন বিপ্লব অত্র এলাকার প্রভাবশালী নেতা হওয়ার পরও বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনে ইয়ারপুরের জনগন সাড়া দেয়নি।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 95 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com