সূচনায় পড়লে ধরা,ক্যান্সার রোগ যায় যে সারা

Print

মেডিসিন ক্লাব- মেডিকেল ও ডেন্টাল ছাত্র-ছাত্রী দ্বারা পরিচালিত শিক্ষা ও সমাজ সেবামূলক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। স্তন ক্যান্সার সম্পর্কে সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে আমাদের ক্ষুদ্র প্রয়াসের অংশ হিসেবে অক্টোবর মাসব্যাপী ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজ তৃতীয় পর্বে থাকছে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি নিয়ে কিছু কথা।

স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকিপূর্ন কারণসমূহ ঃ
দুঃখজনক হলেও সত্য যে আমাদের দেশের প্রতি আট জন মহিলার মধ্যে একজন স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে আছেন। তাই আমাদের সবারই এসম্পর্কে জানা উচিত এবং আমাদের আশেপাশের সকল মহিলার মাঝে এই তথ্যগুলো প্রচার করা উচিত।
১. বয়স ৩৫ বছরের ঊর্ধ্বে হলে
২. স্তন ক্যান্সারের পারিবারিক ইতিহাস থাকলে
৩. বেশি বয়সে প্রথম সন্তান ধারণ করা অথবা নিঃসন্তান থাকা
৪. সন্তানকে বুকের দুধ পান না করানো
৫. দীর্ঘদিন ধরে জন্মনিয়ন্ত্রণের জন্য পিল /ওষুধ খাওয়া
৬. অল্প বয়সে প্রথম ঋতুস্রাব হওয়া (১২বছর পূর্বে) অথবা দেরিতে ঋতুস্রাব বন্ধ হওয়া(৫০ বছর পরে)
৭. অত্যধিক চর্বিযুক্ত খাদ্যাভ্যাস
৮.ধূমপান, মদ্যপান এবং তামাকজাতীয় দ্রব্যে আসক্ত থাকা
৯. দীর্ঘদিন তেজস্ক্রিয় পদার্থের সংস্পর্শে থাকা
স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি যেসকল নারী বহন করছেন, তাঁরা নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষার মাধ্যমে খুব সহজে বিপদ এড়িয়ে চলতে পারেন।

*এজন্য আমাদের করণীয় কি???

√মনে রাখতে হবে, সবার মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করতে পারলে প্রাথমিক পর্যায়েই স্তন ক্যানসার নির্ণয় করা খুবই সহজ এবং এর মাধ্যমে প্রায় পঞ্চাশ ভাগ ক্যান্সার সহজে নিরাময় যোগ্য।

√পাশাপাশি মায়েদের উদ্ভুদ্ধ করতে হবে সন্তানকে বেশি বেশি বুকের দুধ পান করানোর জন্য।

√যাদের বয়স ৪০ বছর এর উপরে, সেসব মহিলাদের স্ক্রীনিং খুবই জরুরি। প্রতি মাসে একবার নিজের স্তন নিজে পরীক্ষা করা- যেটাকে বলা হয়- সেলফ ব্রেস্ট এক্সামিনেশন এবং প্রতি এক বছর /তিন বছর অন্তর অন্তর চিকিৎসক দ্বারা স্তন পরীক্ষা করানোর মাধ্যমে প্রাথমিক পর্যায়ে রোগ নির্ণয় করা যায় এবং বর্তমানে আমাদের দেশেই স্তন ক্যান্সারের সকল আধুনিক চিকিৎসা করানো সম্ভব।

দেশে জাতীয়ভাবে এবং বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন নিজ উদ্যোগে স্তন ক্যানসার নিয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করার জন্য বিভিন্ন রকমের কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন এই পুরো অক্টোবর মাস ব্যাপী। সেই কথাগুলো আমাদের প্রতিটি ঘরে ঘরে, সকল মা-খালা-বোন-কন্যা সন্তান সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে পারলেই আমরা সবাই মিলে কিছুটা হলেও এই রোগটাকে মোকাবেলা করতে সক্ষম হব।

 

প্রথমেই জেনে নেয়া যাক-
স্তন ক্যান্সার কি??
শরীরের যে কোন জায়গার স্বাভাবিক কোষের বিভাজন অনিয়ন্ত্রিত হলে সেটাকে আমরা বলে থাকি ক্যান্সার। আর সেটাই যদি স্তনে হয়, তবে তা হলো স্তন ক্যান্সার।

স্তন ক্যান্সারের লক্ষণসমূহ ঃ
সকল নারীদের জন্য স্তন ক্যান্সারের উপসর্গ সম্পর্কে সম্যক ধারণা থাকা খুবই প্রয়োজন। কারণ রোগটি কোন পর্যায়ে আছে সেটার ভিত্তিতে ভিন্ন ভিন্ন উপসর্গ হতে পারে।আবার অনেক সময় কোন রকম উপসর্গ ছাড়াও স্তন ক্যান্সার হতে পারে। তাই স্তন ক্যান্সারের উপসর্গ গুলো সম্পর্কে যদি কারো ধারণা থাকে, তাহলে খুবই প্রাথমিক পর্যায়েই রোগটি শনাক্ত করা যায় এবং সম্পূর্ণরূপে চিকিৎসার মাধ্যমে নিরাময় করা যায়।
সবচাইতে বেশি যে লক্ষণটি আমরা পেয়ে থাকি তাহলো-
১. স্তনে কোনো চাকা বা পিণ্ড অনুভব হওয়া
২. বগলে চাকা বা পিন্ড অনুভূত হওয়া
৩. স্তনের চামড়ার রং পরিবর্তন হওয়া
৪. চামড়ায় কমলার খোসার মতো ছোট ছোট ছিদ্র হওয়া
৫. নিপল ভেতরের দিকে ঢুকে যাওয়া/ অসমান হাওয়া /বাঁকা হয়ে যাওয়া অথবা নিপলের চামড়া কুচকে যাওয়া
৬. নিপল দিয়ে রস পড়া বা রক্তক্ষরণ হওয়া
৭. স্তনে দীর্ঘদিন ধরে কোন ঘা থাকা বা অস্বাভাবিক চুলকানি হওয়া
৮. স্তনের আকার আকৃতির পরিবর্তন হওয়া।
আবারো বলছি, উপসর্গগুলো একেক রোগীর ক্ষেত্রে একেক রকম হতে পারে এবং রোগটি কোন পর্যায়ে রয়েছে সেটার উপর নির্ভর করে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রকমের উপসর্গ হতে পারে।
নিজে সচেতন হোন, অন্যকে সচেতন করুন।

জয়নাব, বয়স ৪০ বছর, মেহেরপুর জেলার ছোট্ট গ্রামে স্বামী এবং দুই সন্তান নিয়ে তার সুখের সংসার। স্বামী ছোটখাটো ব্যবসায়ী, বড় ছেলে সপ্তম শ্রেণীতে এবং ছোট মেয়ে চতুর্থ শ্রেণীতে পড়ে। সারাদিন সংসারের নানা বিধ কাজকর্ম, স্বামী-সন্তান, এই ছিল তার পৃথিবী। হঠাৎ একদিন সেই পৃথিবীর আকাশে জমে ঘন কালো মেঘ। একদিন ডান স্তনে ছোট্ট একটি চাকা অনুভব করল সে, কিন্তু ব্যথা না থাকায় আর আমলে নেয়নি। আস্তে আস্তে তিন মাসের মধ্যে সেই চাকা বিশাল বড় আকার ধারন করল, সাথে স্তনের চামড়া ও কেমন যেন কুঁচকে গেল, বগলেও একটা গুটি হাতে লাগে। আতঙ্কিত হয়ে সে এবং তার স্বামী গেলেন নিকটবর্তী উপজেলা হেলথ কমপ্লেক্স এর চিকিৎসকের কাছে। বিভিন্ন পরীক্ষার মাধ্যমে ধরা পড়ল তার ক্যান্সার হয়েছে, স্তন ক্যান্সার।

স্তন ক্যান্সার- সমগ্র পৃথিবীতে মহিলাদের ক্যানসারজনিত মৃত্যুর প্রথম কারণ।প্রতিবছর এ রোগে আক্রান্ত হচ্ছে নতুন কয়েক লক্ষ মহিলা। বাংলাদেশে ও সংখ্যাটা খুব কম নয়। বাংলাদেশে প্রতিবছর প্রায় ২০ হাজার নতুন রোগী স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছেন এবং প্রতিদিন ১৮ জন নারী স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করছে। খুব দ্রুত সময়ে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে পড়ে বলে সবাই আতঙ্কিত হয়ে যান, কিন্তু খুবই সাধারণ কিছু শিক্ষা ও অল্প একটু সচেতনতাই পারে এই রোগের করালগ্রাস থেকে বাঁচাতে হাজারো প্রাণ। তাই এখন সময় হয়েছে সচেতন হওয়ার।
অক্টোবর মাস -সারাবিশ্বব্যাপী পালন করা হচ্ছে স্তন ক্যান্সার সচেতনতার মাস হিসেবে। তারই অংশ হিসেবে “মেডিসিন ক্লাব”-এর এই ক্ষুদ্র প্রয়াস। মাসব্যাপী স্তন ক্যান্সার এর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে থাকছে ধারাবাহিক সচেতনতামূলক পোস্ট।

#নিজেজানুনঅন্যকেজানান।
#নিজে
সচেতনহোনঅন্যকেসচেতনকরুন

#পিংকঅক্টোবর
#স্তন
ক্যান্সারহোকপ্রতিরোধ

আজ আমরা কথা বলবো- কিভাবে খুব সহজেই প্রাথমিক পর্যায়ে স্তন ক্যান্সার শনাক্ত করা যায়।

⭕প্রতি মাসে একটি নির্দিষ্ট তারিখে নিয়মিত নিজের স্তন নিজেই পরীক্ষা করার মাধ্যমে আমরা স্তনের কোনো অস্বাভাবিক পরিবর্তন লক্ষ্য করে সতর্ক হতে পারি, যাকে বলে- “সেলফ ব্রেস্ট এক্সামিনেশন “।২০ বছর বয়স থেকে এই শিক্ষা দিলে প্রায় শতকরা ৫০ভাগ রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব। কিভাবে করতে হয় এই সেলফ ব্রেস্ট এক্সামিনেশন??
🔯যাদের মাসিক নিয়মিত -তারা মাসিক শেষ হবার পর অথবা মাসিকের সাত দিন পরে এই পরীক্ষাটি করতে পারেন।
🔯যাঁদের মাসিক অনিয়মিত অথবা বন্ধ হয়ে গেছে- তারা মাসের একটি নির্দিষ্ট তারিখে এই পরীক্ষাটি করবেন।
🔯 প্রথমেই আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে লক্ষ্য করতে হবে- স্তনের আকৃতিতে কোন পরিবর্তন বা ত্বকে কোথাও কোন পরিবর্তন আছে কিনা /স্তনে কোনো চাকা বা কোন অংশবিশেষ পুরু মনে হয় কিনা। কোমরে হাতের তালু রেখে নীচের দিকে জোরে চাপ দিন যাতে বুকের মাংস পেশীতে টান ধরে এবং দুই হাত উপরে তুলে স্তনের কোনো পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায় কিনা দেখতে হবে।
🔯দ্বিতীয় অংশ -বিছানায় শুয়ে ডান কাঁধের নিচে বালিশ এবং মাথার নিচে ডান বাহু রাখতে হবে। বাম হাতের সব আঙ্গুল একসঙ্গে মিলে অগ্রভাগ দিয়ে আস্তে আস্তে চাপ দিয়ে ছোট ছোট চক্রাকারে পরীক্ষা করতে হবে, পাশাপাশি ডান বগল পরীক্ষা করে দেখতে হবে কোন চাকা আছে কিনা। স্তনের বোটা চেপে দেখতে হবে কোন রস বের হয় কিনা। একইভাবে বাম স্তন পরীক্ষা করতে হবে।
⭕সন্দেহজনক কিছু মনে হলে লুকিয়ে না রেখে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।
📛🔱চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী রোগ নির্ণয়ের কিছু ধাপ রয়েছে -সেক্ষেত্রে আলট্রাসনোগ্রাফি/ মেমোগ্রাফি/সুই দিয়ে রস বা মাংস পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিতকরণ (এফএনএসি /বায়োপসি) করা হয়।
🔎🔎🔎আমাদের দেশেই এ রোগ নির্ণয় এবং চিকিৎসার সকল ব্যবস্থা আছে। আতঙ্কিত হয়ে বিদেশে চিকিৎসার জন্য ব্যস্ত হবার কোনই প্রয়োজন নেই।

📝📝📝স্তন ক্যান্সারের জন্য যে চিকিৎসা পদ্ধতি গুলো রয়েছে তা হলো -√সার্জারী
√কেমোথেরাপি
√রেডিও থেরাপি
√হরমোন থেরাপি
কোন চিকিৎসা পদ্ধতি গ্রহণ করা হবে তা নির্ভর করে- রোগটি কোন পর্যায়ে আছে তার উপর।
🗡যদি খুবই প্রাথমিক পর্যায়ে রোগটি শনাক্ত করা যায়, সে ক্ষেত্রে অপারেশনের মাধ্যমে শুধুমাত্র ক্যানসার আক্রান্ত অংশ কেটে ফেলে দেয়া হয় এবং বাকি স্তন স্বাভাবিক রাখা যায় যাকে বলা হয় -ব্রেস্ট কনজারভেটিভ সার্জারি।
কিন্তু যদি রোগটি অ্যাডভান্সড অবস্থায় থাকে, সেক্ষেত্রে কেমোথেরাপি /রেডিওথেরাপি নিয়ে সার্জারির মাধ্যমে সম্পূর্ণ স্তন কেটে ফেলতে হয়। এজন্যই প্রাথমিক পর্যায়ে রোগ সনাক্তকরণ খুবই প্রয়োজনীয়।

আর একটি কথা না বললেই নয়।
🎑🎀 “প্রিভেনশন ইজ বেটার দেন কিওর” 🎀🎑প্রতিরোধের জন্য আমাদের সতর্ক হতে হবে। এজন্য প্রয়োজন আমাদের ইচ্ছাশক্তি।
***যাদের ওজন বেশি তাদের ক্ষেত্রে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি স্বাভাবিকের চেয়ে চারগুণ বেশি। সেজন্য ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে। দৈনিক ১ঘন্টা করে হাঁটার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে যাতে ঝুঁকি অনেক কমে যায়।
***নিজের পরিবারের স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত কেউ থাকলে নিজের জেনেটিক টেস্টিং এর মাধ্যমেও এই রোগে আক্রান্ত হবার ঝুঁকি নির্ণয় করা যায়।
***পাশাপাশি পুষ্টিযুক্ত খাবার, শাকসবজি, ফলমূল খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে।যে কোনো রকমের অ্যালকোহল কনসামশন থেকে দূরে থাকতে হবে।
***৪০ বছর বয়সের পর থেকে অবশ্যই স্ক্রিনিং করতে হবে।
***গবেষণার মাধ্যমে দেখা গেছে,কিছু খাবার ক্যান্সার সেল তৈরিতে বাধা সৃষ্টি করে (ব্রকলি,আনার,ব্লুবেরি,লেবু)।খাদ্যতালিকায় এসব রাখার চেষ্টা করতে হবে।

💠💠তাই আসুন,আজই সচেষ্ট হই। স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে আমরা সবাই একজোট হয়ে কাজ করলে এর করালগ্রাস থেকে বাঁচতে পারবে অসংখ্য প্রাণ, যারা আমাদেরই মা, আমাদেরই বোন, আমাদেরই কন্যা।
সবার জন্য গোলাপি ভালোবাসা। 💗💗💗
#Pink_October
#Think_Pink
#Medicine_Club

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 79 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com