সৈয়দপুরে ঠিকাদার হত্যার ঘটনায় ৫ ছাত্র গ্রেফতার।

Print

সৈয়দপুরে ঠিকাদার হত্যার ঘটনায় ৫ ছাত্র গ্রেফতার।

বিশেষ প্রতিনিধি।।নীলফামারীর সৈয়দপুর-পার্বতীপুর সড়কে দৃষ্টিনন্দন ছাত্রাবাসে ঠিকাদার আব্দুল জলিলকে চোর সন্দেহে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় ৫ কলেজ ছাত্রকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি পুলিশ।২৮শে ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার নীলফামারী জেলা শহরের চৌরাঙ্গী মোড় থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতারকৃতরা হলেনঃ-দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার উত্তর সুজালপুরের সেন্টারপাড়ার এলাকার পরেশ সরকারের ছেলে অমৃত সরকার (২৬),মৃত জিন্নাহ আলী চৌধুরীর ছেলে আল রিয়াদ চৌধুরী (২৫), পার্বতীপুর উপজেলার সরদার পাড়ার ইয়াকুব আলীর ছেলে মিনহাজুল ইসলাম (২৫), নীলফামারী সদরের গোবিন্দপুর গ্রামের মোশাররফ হোসেনের ছেলে আরমান হোসেন হাসু (২৫) এবং রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার আলমপুর পাইকপাড়ার আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে সাখাওয়াত হোসেন (২২)।তারা সকলেই সৈয়দপুর ক্যান্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেনীর ছাত্র ছিল।
অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) নীলফামারীর সহকারী পুলিশ সুপার এস এম রমজান হোসেন সাংবাদিকদের জানান, মামলাটি সৈয়দপুর থানা কর্তৃক ফাইনাল রিপোর্ট প্রদান করায় মামলার বাদী আদালতে নারাজী দাখিল করেন।এরই পরিপ্রেক্ষিতে আমাদের সিআইডিতে তদন্তের জন্য হস্তান্তর করে বিজ্ঞ আদালত। আমরা অধিকতর তদন্তে ঘটনার রহস্য উম্মোচন করি এবং প্রকৃতপক্ষে এই ছাত্রাবাসের ছাত্ররাই হত্যাকান্ডটি ঘটিয়েছে। এদের মধ্যে ৫জনকে গ্রেফতার করেছি আর বাকী ৬জন পলাতক রয়েছে।
একইদদিনের বিকেলে তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়।
প্রসঙ্গতঃ ২০১১ সালে ১৭ এপ্রিল সকালে গাইবান্ধা শহরের মমিনপাড়ার ঠিকাদার আব্দুল জলিল চারতলা বিশিষ্ট দৃষ্টিনন্দন ছাত্রাবাসে তার এক পরিচিত ব্যক্তিকে খুঁজতে যায়।এ সময় ১ম ও ২য় তলায় বিভিন্ন কলেজের অবস্থানরত ছাত্ররা তাকে চোর সন্দেহে পিটিয়ে জখম করে। পরে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে নেয়ার পর ঠিকাদার আব্দুল জলিল মারা যায়।সে সময় ছাত্ররা গণপিটুনীতে জলিল নামে একজন চোর মারা গেছে বলে প্রচার চালায়। বাসার মালিক মোসলেমা বেগম ওই সময় নিজে বাদী হয়ে সৈয়দপুর থানায় ৩০৪ পেনাল কোড ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন।
সেই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আব্দুস সবুর একই বছরের ৭ই ডিসেম্বর সৈয়দপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্টেট আদালতে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের পিটুনীতে নিহতের কথা উল্লেখ করে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করায় মামলার বাদী ওই তদন্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজী করেন। আদালত বাদীর আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ১৭/০৭/২০১৭ মামলাটির অধিকতর তদন্তের জন্য অপরাধ তদন্ত বিভাগ নীলফামারীর কাছে ন্যস্ত করেন।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 97 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com